¦
এবার আ'লীগ নেতার হাতে লাঞ্ছিত রাবি ভিসি

রাবি (রাজশাহী), ১৬ এপ্রিল: | প্রকাশ : ১৬ এপ্রিল ২০১৫

সরকার দলীয় এমপির হুমকির পর এবার রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. মুহম্মদ মিজান উদ্দিনকে লাঞ্ছিত করেছে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার ও তার সহযোগীরা। বৃহস্পতিবার দুপুর ১টার দিকে ভিসির দপ্তরে এ ঘটনা ঘটে।
জানা গেছে, সরকার দলীয় নেতা-কর্মীদের চাকরি দেয়ার দাবি জানাতে আসেন মহানগর আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা। কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে ভিসিকে অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ শুরু করেন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র উপদেষ্টা প্রফেসর ছাদেকুল আরেফিন ও বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর হাবিবুর রহমানসসহ বেশ কয়েকজন শিক্ষককে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেন তারা।
এর আগে বুধবার বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভূক্ত শাহ মখদুম মেডিকেল কলেজকে অনিয়মের দায়ে জরিমানা করায় এবং দলীয় লোকদের নিয়োগ না দেয়ার ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয়ে ভিসিকে তার পদ থেকে সরিয়ে দেয়ার হুমকি দেন রাজশাহী-১ আসনের সরকার দলীয় সংসদ সদস্য ওমর ফারুক চৌধুরী। তিনি শাহ মখদুম মেডিকেল কলেজের পরিচালনা পরিষদের চেয়ারম্যান।
প্রত্যক্ষদর্শী দপ্তরের কয়েকজন কর্মচারী সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার দুপুরে মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার ও সহ-সভাপতি শাহাদাত হোসেনসহ ১৫/২০ জন আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী কোনো অনুমতি ছাড়াই ভিসির দপ্তরে প্রবেশ করেন। দীর্ঘদিন বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়োগ না দেয়ায় ক্ষোভ জানিয়ে আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের দ্রুত কর্মকর্তা ও কর্মচারী পদে নিয়োগ দেয়ার জন্য ভিসির কাছে দাবি জানান তারা।
এসময় আওয়ামী লীগ নেতারা কবে নিয়োগ দেয়া হবে জানাতে চাইলে ভিসি তাদেরকে বলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিধি ও প্রক্রিয়া মেনেই যথাযথ সময়ে নিয়োগ দেয়া হবে। ভিসির উত্তরে সন্তুষ্ট না হয়ে একপর্যায়ে আওয়ামী লীগ নেতারা উচ্চবাচ্য শুরু করেন। এতে দপ্তরে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।
একপর্যায়ে বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর হাবিবুর রহমান মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শাহাদাত হোসেনকে হাত ধরে শান্ত হতে বললে আওয়ামী লীগ নেতারা শিক্ষকদের মারতে তেড়ে আসেন। এসময় মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকারসহ নেতারা ভিসিসহ উপস্থিত শিক্ষকদের গালিগালাজ করতে থাকে। পরে ভিসি তাদেও সঙ্গে কোনো কথা বলবেন না বললে আওয়ামী লীগ নেতারা বের হয়ে যান।
জনসংযোগ দপ্তরের প্রশাসক ইলিয়াছ হোসেন বলেন, আওয়ামী লীগ নেতারা কোনো এপয়েন্টমেন্ট ছাড়াই দুপুরে ভিসির কক্ষে প্রবেশ করেন। তারা দলীয় নেতা-কর্মীদের যেভাবেই হোক চাকরি দেয়ার কথা বলেন। এসব নিয়ে কথা বলার এক পর্যায়ে তারা ভিসিসহ শিক্ষকদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেন।
মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার যুগান্তরকে বলেন, শিবিরের হাতে নিহত ছাত্রলীগ কর্মী ফারুকের বোনের চাকরি স্থায়ী করা, আহত ছাত্রলীগ নেতা মাসুদের পরীক্ষার ব্যবস্থাসহ আমাদের কিছু দাবি নিয়ে ভিসির সঙ্গে কথা বলতে যায়। কিন্তু ভিসি বলেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিষয় নিয়ে বাইরের কারো সঙ্গে তিনি কথা বলবেন না। এতে নেতাকর্মীরা ক্ষিপ্ত হওয়ায় একটু উত্তেজনা হয়েছে।
এদিকে এঘটনার পরপরই বিশ্ববিদ্যালয়ের বিক্ষোভ মিছিল করেছে ছাত্রলীগের একাংশ। বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান রানার নেতৃত্বে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবনের সামনে থেকে মিছিল নিয়ে টুকিটাকি চত্বরে গিয়ে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে। পরে ভিসির পদত্যাগ দাবিতে বিকেল ৩টা থেকে বিশ মিনিট আবাসিক হলের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করে ছাত্রলীগ নেতকার্মীরা। এ দিকে বুধবার ভিসিকে পদ থেকে সরিয়ে দেয়ার হুমকির ঘটনায় নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছে বিপ্লবী ছাত্রমৈত্রী রাবি শাখা। বিবৃতিতে এমপি ওমর ফারুক চৌধুরীর অপসারণ দাবি করা হয়েছে।

সর্বশেষ খবর পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close