¦
উত্তরা থেকে আমাকে অপহরণ করা হয়েছিল

ঢাকা, ১৩ মে: | প্রকাশ : ১৩ মে ২০১৫

ভারতের মেঘালয়ে খোঁজ পাওয়া বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমেদ দাবি করেছেন, তাকে দুমাস আগে ঢাকার উত্তরা থেকে অপহরণ করা হয়েছিল। অপহরণের পর থেকে আর কিছু মনে করতে পারছেন না বলেও দাবি করেন তিনি।
মেঘালয় পুলিশ সোমবার সালাহ উদ্দিনকে উদ্ধারের পর একটি মানসিক হাসপাতালে পাঠায়। চিকিৎসকরা মানসিক কোনো সমস্যা না থাকার কথা জানালে তাকে অন্য একটি সরকারি হাসপাতালে নেয়া হয়।
হাসপাতাল স্থানান্তরের সময় সালাহ উদ্দিন নিজেই বলেন, আমি বিএনপি নেতা সালাহ উদ্দিন। আমাকে উত্তরা থেকে অচেনা লোকজন তুলে নিয়েছিল। আমি জানি না, কিভাবে এখানে এলাম।
এদিকে বিবিসির বরাদ দিয়ে শিলং শহরের পুলিশ সুপারিন্টেনডেন্ট (এসপি) বিবেক সিয়াম বলেন, একজন ব্যক্তি উদ্ভ্রান্তের মতো ঘুরছেন-এই খবর পেয়েই তাকে থানায় নিয়ে আসা হয়। সিয়াম আরও জানান, তার দেহে কোনো চোট বা আঘাতের চিহ্ন ছিল না, কিন্তু তিনি নিজে হৃদরোগ আর লিভারের সমস্যা রয়েছে বলে পুলিশকে জানিয়েছেন। বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তরও তিনি গুছিয়ে দিতে পারছিলেন না। তাই তাকে একটি মানসিক হাসপাতালে রাখা হয়েছে।
সালাহ উদ্দিনকে প্রথমে সরকারি মানসিক হাসপাতাল মেঘালয় ইন্সটিটিউট অব মেন্টাল হেলথ অ্যান্ড নিউরো সায়েন্সেস (মিমহ্যানস) এ নেয়া হয়। পরে তাকে সিভিল হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।
পুলিশের ওই কর্মকর্তা বিবিসিকে আরও বলেন, তার ভারতে আসার কোনো বৈধ কাগজপত্র নেই। এখানে তিনি কী উদ্দেশ্যে এসেছেন, সেটা তাকে জেরা করার পরেই বোঝা যাবে। কিন্তু এখন তিনি অসুস্থ বলে জেরা করতে পারিনি। সুস্থ হয়ে ওঠার পর তাকে আদালতে নিয়ে যাওয়া হবে।
ভারতের পুলিশ জানিয়েছে সালাহ উদ্দিন আহমেদকে শিলং শহরের বাসিন্দারা উদ্ভ্রান্তের মতো ঘুরতে দেখার পর তারা বিষয়টি পুলিশকে অবহিত করেন। কর্মকর্তারা বলছেন, প্রথমে তাকে সেখানকার পোলো গ্রাউন্ড গল্ফ লিংক এলাকায় দেখা যায়।
 

সর্বশেষ খবর পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close