¦
বিজয় মুহূর্তে কণ্ঠে জাতীয় সংগীত, শপথ প্রতিরোধের

ঢাকা | প্রকাশ : ১৬ ডিসেম্বর ২০১৫

চুয়াল্লিশ বছর আগে ঢাকার এই সোহরাওয়ার্দী উদ্যানেই লেখা হয়েছিল বাঙালির মুক্তির সনদ। আজ সেই মুহূর্তেই লাখো কণ্ঠে গাওয়া হলো জাতীয় সংগীত। নেয়া হলো প্রতিরোধের শপথ।
বুধবার 'বিজয় উৎসব' মঞ্চের সামনে সমবেত জনতা গাইল- 'আমার সোনার বাংলা, আমি তোমায় ভালোবাসি'।
চুয়াল্লিশ বছর আগে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বিকাল ৪টা ৩১ মিনিটে পাকিস্তানি বাহিনী এ উদ্যানেই আত্মসমর্পণের দলিলে সই করে, তখন এর নাম ছিল রেসকোর্স ময়দান।
বিজয় দিবস উদযাপন জাতীয় কমিটির পক্ষ থেকে দেশের প্রতিটি জেলা-উপজেলা-ইউনিয়ন-গ্রামসহ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে এবং সারা বিশ্বের বাংলাদেশীদের এ কর্মসূচিতে অংশ নেয়ার আহ্বান জানানো হয়েছিল আগেই।
উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর সহ-সাধারণ সম্পাদক সংগীতা ইমাম বলেন, এটি আসলে কোটি কণ্ঠে হবে। দেশের প্রতিটি জেলা-উপজেলা এবং বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বাঙালিরা একই সময়ে জাতীয় সংগীত গেয়েছেন। সব মিলিয়ে লাখো নয়, কোটি কণ্ঠে সংগীত গাওয়া হয়েছে।
বিকাল ৪টা ৩১ মিনিটে জাতীয় সংগীত পরিবেশন শেষে হয় 'আগামী বাংলাদেশের শপথ'। শপথবাক্য পড়ান বিজয় দিবস উদযাপন জাতীয় কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক আবুল বারকাত।
এরপর স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পীদের কণ্ঠে মুক্তিযুদ্ধের গান পরিবেশন শেষে আতশবাজির খেলায় ‘বিজয় সন্ধ্যা’ উদযাপনেরও কর্মসূচি রয়েছে। রাত ১০টা পর্যন্ত বিজয় মঞ্চে চলবে দেশের জনপ্রিয় ব্যান্ডদলের অংশগ্রহণে 'কনসার্ট ফর ফ্রিডম'।
এর আগে সাবেক প্রধান বিচারপতি এ বি এম খায়রুল হক বেলা ১১টায় এবারের বিজয় উৎসবের উদ্বোধন করেন।
এরপর বেলা সাড়ে ১১টা থেকে শুরু হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান 'আমাদের সংস্কৃতি'। বিকাল সাড়ে ৩টায় ছিল জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন পর্ব।

সর্বশেষ খবর পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close