¦
যুবলীগ ক্যাডারদের পিটুনিতে ভ্যানচালক নিহত

আশুলিয়া (ঢাকা) প্রতিনিধি | প্রকাশ : ২৩ ডিসেম্বর ২০১৫

আশুলিয়ায় ডেন্ডাবর পল্লিবিদ্যুৎ মন্ডল মার্কেট এলাকায় পাওনা টাকা নিয়ে সালিশ ডেকে মঈনউদ্দিন নামে এক ভ্যানচালককে স্থানীয় যুবলীগের সদস্যরা পিটিয়ে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ ওঠেছে।
এসময় মোর্শেদ নামের এক প্রতিবেশী তাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসলে তাকেও বেধড়ক পিটিয়ে ডান পা ভেঙ্গে দিয়েছে যুবলীগ ক্যাডাররা। মঈন উদ্দিন শেরপুর জেলার জয়নুদ্দিনের ছেলে। মঙ্গলবার রাতে এ ঘটনা ঘটলেও জানাজানি হয় বুধবার।
এ ব্যাপারে আহত মোরশেদ জানায়, সুদের ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলামের কাছ থেকে মঈনউদ্দিন তিন হাজার টাকা ঋণ নেন। ওই টাকা ফেরত দেয়া নিয়ে মঙ্গলবার রফিকের সঙ্গে মঈনউদ্দিন ও রফিকের মধ্যে কথা কাটাকাটি ও এক পর্যায়ে হাতাহাতি হয়। এ নিয়ে পরে সুদের ব্যবসায়ী রফিক এলাকার যুবলীগ নেতা হাসান মন্ডলের কাছে বিচার দিলে ভ্যান চালককে ডেকে পাঠায় ওই যুবলীগ নেতা।
মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মঈনউদ্দিন তার প্রতিবেশী মোরশেদকে নিয়ে ওই শালিস বৈঠকে যাওযার পথে মন্ডল মার্কেটের কাছে তাদের রড দিয়ে এলোপাথারী পিটাতে থাকে যুবলীগ সদস্য মেহেদী, মামুন, মান্নান, তুষার, পারভেজ, মানিক ও সুমন।
এক পর্যায় মঈনউদ্দিন ও মোর্শেদ মাটিতে লুটে পরেন। পরে স্থানীয়রা তাদেরকে উদ্ধার করে প্রথমে পলাশবাড়ী হাবিব ক্লিনিকে নিয়ে যান। এসময় কর্তব্যরত চিকিৎসক মোর্শেদকে ক্লিনিকে ভর্তি করলেও মঈনউদ্দিনের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাকে সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন।
হাসপাতালে নেয়ার পথেই মারা যান মঈনউদ্দিনকে। মঙ্গলবার মারা গেলেও ঘটনা জানাজানি হয় বুধবার। এ ব্যপারে মঈনউদ্দিনের স্ত্রী পোশাক শ্রমিক রুপালী থানায় অভিযোগ করতে যাওয়ার পথে যুবলীগ সন্ত্রাসীরা তাকেও হত্যার হুমকি দিলে প্রাণ ভয়ে তিনি স্বামীর লাশ নিজ  শেরপুরে চলে যান।
যুবলীগ নেতা হাসান মন্ডল জানায়, মারামারির মূহুর্তে তিনি উপস্থিত ছিলেন না। তবে তাদেরকে বিচারের জন্য তিনি ডেকেছিলেন।
এ ব্যাপারে ঢাকা জেলার সহকারী পুলিশ সুপার নাজমুল হাসান জানান, মারামারির ঘটনায় নিহতের কোন সংবাদ তার জানা নেই। এ ঘটনায় থানায় কোন অভিযোগও দেয়া হয়নি। সত্যতা পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সর্বশেষ খবর পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close