¦
নরসিংদীতে ২ প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে আহত ৪

নরসিংদী প্রতিনিধি | প্রকাশ : ২৩ ডিসেম্বর ২০১৫

নরসিংদী পৌরসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে আওয়ামী লীগ ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে কমপক্ষে চারজন আহত হয়েছেন। ঘটনার পর থেকে উভয় পক্ষ মুখোমুখি অবস্থান নিয়েছে। শহরজুড়ে আতংক বিরাজ করছে।
বুধবার রাত ৭টার দিকে জেলা আওয়ামী লীগের কার্য্যালয়ের সামনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান মেয়র কামরুজ্জামান কামরুল ও স্বতন্ত্র প্রার্থী এসএম কাইয়ূমের সমর্থকদের মধ্যে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বিকালে জেলা আওয়ামী লীগের কার্য্যালয়ের সামনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী কামরুজ্জামান কামরুলের উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেনের নেতৃত্বে কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ অংশ নেয়।
রাত ৭টার দিকে স্বতন্ত্র প্রার্থী এস এম কাইয়ূমের সমর্থকরা মোবাইল প্রতীকের মিছিল বের করে। মিছিলটি আওয়ামী লীগের প্রার্থীর উঠান বৈঠক অতিক্রম করার সময় উভয় পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।
এতে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর সমর্থক জামান ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থক শ্রমিক নেতা ইয়াকুব ও সুমন আহত হয়। আহতদের নরসিংদী সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।
ওই সময় আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সমর্থকদের হামলায় নরসিংদী সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক তন্ময় দাস তনু আহত হয়। পুলিশ হামলাকারীদের হাত থেকে তনুকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।
সদর হাসপাতালে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শামীম নেওয়াজ বলেন, উঠান বৈঠকে আহমদ হোসেন বক্তব্য দেয়ার সময় স্বতন্ত্র প্রার্থী এস এম কাইয়ূমের নেতৃত্বে ২৫ থেকে ৩০ জনের একদল লোক হামলা চালায়। এতে শহর আওয়ামী লীগ নেতা জামানসহ কমপক্ষে ৩০ জন নেতা-কর্মী আহত হয়েছে।
এ অভিযোগ অস্বীকার করে স্বতন্ত্র প্রার্থী এস এম কাইয়ূম বলেন, সকাল থেকেই আমি শহরের ভেলানগর এলাকায় গণসংযোগ করছি। সাড়ে ৭টা পর্যন্ত আমি ভেলানগরে রয়েছি। তাহলে আমার নেতৃত্বে কিভাবে হামলা করা সম্ভব?
আমার সমর্থকরা গণসংযোগ করার সময় কামরুলের কর্মী জামানের নেতৃত্বে একদল লোক চেয়ার নিয়ে তাদের উপর হামলা চালায় বলে জানান তিনি।
নরসিংদী সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কাশেম বলেন, এক প্রার্থীর সভার পাশ দিয়ে আরেক প্রার্থী মিছিল করায় এই ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ তনু নামে একজনকে আটক করেছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে শহরের বিশেষ বিশেষ স্থানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
রিটানিং কর্মকর্তা অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোসা. সুরাইয়া বেগম বলেন, আওয়ামী লীগের প্রার্থী উঠান বৈঠকের নামে জনসভা করেছেন। খবর পেয়ে ম্যাজিস্ট্রেট ঘটনাস্থলে গিয়ে জনসভা বন্ধের নির্দেশ দেয়। একই সময় স্বতন্ত্র প্রার্থী কাইয়ূমের প্রায় পাঁচ হাজার সমর্থক মিছিল নিয়ে সভা অতিক্রম করার সময় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।
আচরণবিধি লঙ্গনের কারণে উভয় প্রার্থীকে কারণ দর্শানো নোটিশ দেয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি।

সর্বশেষ খবর পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close