¦
বই মেলা ঘিরে আশা-নিরাশা

| প্রকাশ : ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৫

মেলা একটি পরিচিত নাম। বঙ্গাব্দ ও খ্রিস্টাব্দ সালকে ঘিরে দেশে বছরের বিভিন্ন সময় মেলার আয়োজন করা হয়। রাজনৈতিক অস্থিরতার মধ্যেও থেমে নেই মেলার আয়োজন। এখানে বাণিজ্য মেলা ও বই মেলার কথা উল্লেখ করা যায়। বাণিজ্য মেলা ৩১ জানুয়ারি শেষ হওয়ার কথা থাকলেও রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতার কারণে এর সময় বাড়ানো হয়েছে। বাণিজ্য মেলায় প্রতিদিন লক্ষাধিক লোক সমাগমের রেকর্ড থাকলেও এবার গড়ে প্রতিদিন ১০ থেকে ১৫ হাজার দর্শনার্থী মেলায় গেছেন। এতে বোঝা যায়, মানুষ নিজেকে নিরাপদ মনে করলেই কেবল ঘর থেকে বের হয়। রাজনৈতিক কর্মসূচির কারণে দর্শনার্থী কম হওয়ায় ঘাটতি পুষিয়ে নিতে ব্যবসায়ীদের অনুরোধে বাণিজ্য মেলার সময় ১০ দিন বৃদ্ধি করা হয়েছে। অথচ প্রকাশকরা গত বছর বই মেলার সময় ১০ দিন বাড়াতে অনুরোধ করলেও বাংলা একাডেমি সে সুযোগ দেয়নি। বই মেলায় এবার যদি আশানুরূপ বিক্রি না হয়, তাহলে লেখক ও প্রকাশকরা হতাশ হয়ে পড়বেন, এ কথা বলার অপেক্ষা রাখে না।
বাণিজ্য মেলা শেষ হতে না হতেই প্রচলিত নিয়মে শুরু হয়েছে বই মেলা। বই মেলায় প্রথম দিনের অভিজ্ঞতা ভিন্ন রকম। বাংলা একাডেমির অভ্যন্তরের কিছু রাস্তা পাকা না হওয়ায় সেখানের পরিবেশও ছিল ধুলাবালিতে একাকার। প্রধানমন্ত্রী আসার আগে পানি ছিটানো হলেও পরে আর পানি ছিটাতে দেখা যায়নি। রাজনৈতিক পরিস্থিতি বিবেচনায় না নিয়ে গত বছরের তুলনায় এ বছর স্টলের ভাড়া বৃদ্ধি করায় প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানকে বাড়তি চাপ সহ্য করতে হয়েছে। উদ্যানের অভ্যন্তরে অপরিকল্পিতভাবে হকারদের প্রবেশ ছিল চোখে পড়ার মতো। মেলার প্রথম দিনে রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব ও কয়েকজন এমপি, মন্ত্রী ব্যতীত বড় কোনো কবি-সাহিত্যিকদের দেখা মেলেনি। বলতে গেলে সাধারণ মানুষের চেয়ে নিরাপত্তাকর্মীদের উপস্থিতিই বেশি ছিল। এদিন টিএসসি এলাকায় দুটি ককটেল বিস্ফোরণ হওয়ার শব্দ পাওয়া গেছে। বই মেলার আশপাশে এ ধরনের ঘটনা সত্যিই উদ্বেগের বিষয়।
আমাদের দুই নেত্রী যদি এক টেবিলে বসার উদারতা দেখিয়ে দলীয় চিন্তার ঊর্ধ্বে উঠে দেশপ্রেমের চিন্তা নিয়ে জনগণের মনের কথা বুঝতে চেষ্টা করতেন, তাহলে শুধু মেলা সংশ্লিষ্টরা নন, বরং দেশের সব স্তরের ব্যবসায়ী এবং জনগণ অনিশ্চয়তায় ভরা জীবন থেকে মুক্তি পেত। ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, সাধারণ মানুষ ও বাংলাদেশ এক নতুন দিগন্তের সন্ধান পেত। আমরা সেই প্রত্যাশায় আছি।
মুহাম্মদ আবদুল কাহহার
সিনিয়র শিক্ষক, গজমহল ট্যানারি উচ্চ বিদ্যালয়, ঢাকা
[email protected]
দৃষ্টিপাত পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close