¦
নয়া জঙ্গি সংগঠন

| প্রকাশ : ১৬ এপ্রিল ২০১৫

বাংলা নববর্ষের একদিন আগে বিপুল পরিমাণ অস্ত্রশস্ত্রসহ শহীদ হামজা ব্রিগেড নামে নতুন একটি জঙ্গি সংগঠনের ২৫ সদস্যকে আটক করেছে র‌্যাব। এ ব্রিগেডের বেশিরভাগ সদস্য কওমি মাদ্রাসার ছাত্র। তাদের সংগঠিত করে জঙ্গি ওয়ানম্যান আর্মিতে পরিণত করেছে ইসলামী ছাত্রশিবির থেকে বহিষ্কৃত কর্মীরা। এদের লক্ষ্য নাকি বাংলাদেশে ইসলামী শাসন কায়েম করা, প্রতিবেশী মিয়ানমারসহ বিভিন্ন দেশে মুসলিম নির্যাতনের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলা।
কয়েক দিন আগে অর্থমন্ত্রী কওমি মাদ্রাসাকে ভয়ংকর বলে মন্তব্য করেছিলেন। গত কিছুদিনের ঘটনায় এটা বেশ স্পষ্ট হয়ে উঠেছে যে, কওমি মাদ্রাসার সরলপ্রাণ দরিদ্র শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন জঙ্গিগোষ্ঠী যথেচ্ছভাবে ব্যবহার করছে। ব্লগার রাজীব, অভিজিৎ, বাবুসহ বিভিন্ন হত্যাকাণ্ডে এদের ব্যবহার করা হয়েছে। নতুন জঙ্গিগোষ্ঠী হামজা ব্রিগেডও তাদের জঙ্গি সদস্য সংগ্রহ করছে কওমি মাদ্রাসা থেকেই। শান্তির ধর্ম ইসলামকে এরা অস্ত্রবলে প্রতিষ্ঠা করতে চায়। এদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে ৫টি একে ২২, একটি বিদেশী পিস্তল, একটি একনলা বন্দুক, একটি এলজি, একে ২২-এর ১০টি ম্যাগাজিন, একটি পিস্তলের ম্যাগাজিন, ২ হাজার ১৫৫ রাউন্ড পয়েন্ট টুটু বোরের গুলি, ৫০১ রাউন্ড শটগানের গুলি। এই বিপুল অস্ত্রসম্ভারসহ জব্দকৃত নথিপত্রে তাদের সন্ত্রাসী তৎপরতার প্রমাণ যে কোনো শান্তিপ্রিয় মানুষকে উদ্বিগ্ন করে তুলবে। কারা এ সংগঠনের জন্মদাতা, তাদের অর্থ ও অস্ত্রের উৎস কী, তা দ্রুত উদ্ঘাটন করতে হবে।
সরকারের জঙ্গিবিরোধী কঠোর অবস্থান সত্ত্বেও দেশে ধর্মের দোহাই দিয়ে জঙ্গিবাদ বিস্তারের ঘটনা উদ্বেগজনক। দেশের কওমি মাদ্রাসাগুলোর সহজ-সরল ছাত্রদের বিভ্রান্তির আবর্তে ফেলে যারা জঙ্গি বানানোর ট্রেনিং দিয়ে অস্ত্র ও অর্থের জোগান দিচ্ছে, তাদের আটক করে উপযুক্ত শাস্তি দিতে হবে। সেই সঙ্গে কওমি মাদ্রাসার ছাত্ররা যাতে জঙ্গিবাদে দীক্ষিত না হয়ে শান্তির ধর্ম ইসলামের প্রকৃত শান্তির শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে উঠতে পারে, সে ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে। এ দায়িত্ব পালন করতে হবে রাষ্ট্রকেই। কওমি মাদ্রাসা ভয়ংকর- শুধু এমন কথা বলে দায়িত্ব শেষ করলে চলবে না; কেন ভয়ংকর, কেন অসুস্থতায় আক্রান্ত তা খুঁজে বের করে তার উপযুক্ত চিকিৎসা প্রদান করে সুস্থ করে তুলতে হবে। তাহলেই উৎপাটন করা যাবে জঙ্গিবাদের বীজ।
সম্পাদকীয় পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close