¦

এইমাত্র পাওয়া

  • রাজধানী থেকে কোকেনসহ আন্তর্জাতিক মাদক পাচারকারী চক্রের ৩ সদস্য আটক
ব্যাংকের সার্ভিস চার্জ

| প্রকাশ : ৩১ ডিসেম্বর ২০১৫

সব ব্যাংকের মূল লক্ষ্য থাকে গ্রাহকের আস্থা অর্জন করা। সেবা প্রদানের মধ্য দিয়ে ব্যাংকগুলোকে লক্ষ্যে পৌঁছাতে হয়। মঙ্গলবার রাজধানীর বিআইবিএম ও ক্যাব আয়োজিত এক সেমিনারে বক্তারা ব্যাংকিং কার্যক্রমে সেবার মান বাড়ানোর আহ্বান জানিয়েছেন। সেবার বিপরীতে ব্যাংকগুলো গ্রাহকের কাছ থেকে সার্ভিস চার্জ নেবে এটাই স্বাভাবিক। ব্যাংকের কোন খাতে কী পরিমাণ সার্ভিস চার্জ কর্তন করা হয় তা ব্যাংকিং বিষয়ে যারা বিস্তারিত খোঁজখবর রাখেন, তাদের বাইরে অন্য কেউ জানেন না। কাজেই কোনো ব্যাংক বিস্তারিত ব্যাখ্যা না দিয়ে যখন সার্ভিস চার্জ কর্তন করে, তখন গ্রাহকের মনে নানা প্রশ্ন দেখা দেয়। গ্রাহক নিজ উদ্যোগে ব্যাংকে যোগাযোগ করলে সার্ভিস চার্জ কর্তন বিষয়ে সদুত্তর পেয়ে থাকেন। তবে সব ক্ষেত্রে যথাসময়ে সদুত্তর পাওয়া যায় না। আজকাল সার্ভিস চার্জ কর্তনের পর বিষয়টি মোবাইল ফোনে মেসেজের মাধ্যমে গ্রাহককে জানিয়ে দেয়া হয়। কিন্তু ওই মেসেজেও সার্ভিস চার্জ কর্তন বিষয়ে বিস্তারিত কোনো তথ্য থাকে না। ব্যাংক কর্তৃপক্ষ বরাবরই এসব বিষয়ে উদাসীন।
আজকাল ব্যাংকগুলো নতুন প্রযুক্তিসমৃদ্ধ নানা ধরনের সেবা চালু করেছে। এসব সেবা গ্রহণের জন্য গ্রাহককে নানাভাবে প্রভাবিত করা হয়। নতুন প্রযুক্তিসেবা গ্রহণের সময় আকর্ষণীয় বিভিন্ন সুবিধাপ্রাপ্তির কথা বলা হলেও অল্প সময়ের ব্যবধানে যুক্ত হয় নতুন নতুন শর্ত। এতে অনেক গ্রাহক বিব্রত ও বিভ্রান্ত হন। একজন গ্রাহক ব্যাংকের কাছ থেকে যে পরিমাণ সেবা গ্রহণ করবেন সে অনুপাতে সার্ভিস চার্জ নির্ধারণ করা হলে গ্রাহকের কোনো অভিযোগ থাকত না। কিন্তু বিভিন্ন ব্যাংকে বর্তমানে এমন কিছু নিয়ম চালু করা হয়েছে যে, গ্রাহক ওই সেবা গ্রহণে অনিচ্ছুক হলেও তার অ্যাকাউন্ট থেকে নির্ধারিত পরিমাণ সার্ভিস চার্জ কর্তন করা হয়। এ রকম ঢালাও সার্ভিস চার্জ কর্তনে অনেক গ্রাহকের ব্যাংকিং কার্যক্রমে আগ্রহ কমে যায়। এভাবে গ্রাহকের আগ্রহ কমতে থাকলে সার্বিক ব্যাংকিং কার্যক্রমে এর নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে। যৌক্তিক পরিমাণ সার্ভিস চার্জ নির্ধারণের পাশাপাশি সার্ভিস চার্জ কর্তনের বিস্তারিত তথ্য সময়মতো তুলে ধরলে গ্রাহকের বিভ্রান্তি দূর হবে। দেশে সীমিত ও নিুআয়ের মানুষের সংখ্যাই বেশি। এই বিপুলসংখ্যক জনগোষ্ঠীকে ব্যাংকিং কার্যক্রমের আওতায় আনার জন্যও প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে হবে।
সম্পাদকীয় পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close