¦
বাংলা ভাষা, কেমন আছো?

আন্দালিব রাশদী | প্রকাশ : ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৫

বছরে তো দু’একবারই জিজ্ঞেস করি, ফেব্রুয়ারি মাসেই। ফেব্রুয়ারি যে ভাষার মাস এটাও আবার বাংলার কারণেই ঘটেছে।
বাংলার প্রেরণাতে আধমরা ভাষাগুলোর ওপর গোটা পৃথিবীর বিশেষ নজর পড়ছে। গরু মোটাতাজাকরণ প্রকল্পের মতন ভাষা সতেজকরণের কাজও শুরু হয়েছে। গোটা পৃথিবীতে দু’একটি আধমরা ভাষার জেগে ওঠার ঘটনা ছাড়া আর কোনো সাফল্য নেই। এর প্রধান কারণ (একটু একপেশে শোনালেও একমাত্র কারণ) সেসব ভাষার আর্থিক গুরুত্ব কমে যাওয়া।
আর্থিক গুরুত্ব কমতে কমতে শূন্যের কাছাকাছি চলে যাওয়ায় ঈশ্বরও রক্ষা করতে পারেননি তার স্নেহলালিত ডিভাইন ল্যাঙ্গুয়েজেস-ঐশ্বরিক ভাষাসমূহ : ল্যাটিন, হিব্রু, সংস্কৃত ও পালি। সোজা কথায় আর্থিক গুরুত্ব মানে, ভাষা বেচে খাওয়া। উপাসনালয়ে চাকরি আর কিছু পাঠদান ও গবেষণার কাজ ছাড়া ঐশ্বরিক ভাষাসমূহের আর কোনো আর্থিক অবদান নেই।
‘মোদের গরব মোদের আশা’ যত দরদ দিয়েই গাই না কেন, মায়াকান্নায় সাগরে যত জলোচ্ছ্বাসই উঠুক না কেন চরম সত্য কথাটি হচ্ছে- ১৯৫২ থেকে শুরু করে এই ২০১৫- তেষট্টি বছর বাংলার আর্থিক গুরুত্ব বাড়ানোর জন্য বাস্তবসম্মত কোনো পদক্ষেপই গ্রহণ করা হয়নি।
ভালো বাংলা জানলে ভালো বেতনের চাকরি পাওয়া যায়, ভালো বাংলা জানলে ব্যবসা-বাণিজ্যে সুবিধা পাওয়া যায়, ভালো বাংলা জানলে বিদেশ যাওয়া যায়- গত ৬৪ বছরে এমন কথা কেউ শুনেছেন? মোটাদাগের সূচক এটাই। যদি না শুনে থাকেন, আপনিই জোর দিয়ে বলতে পারেন, বাংলা ভাষার অর্থনৈতিক মূল্য একটুও বাড়েনি। চাকরির সাক্ষাৎকারে যখন মন্দ ইংরেজি বলিয়ে ও লিখিয়ের কাছে ভালো বাংলা বলিয়ে লিখিয়ে হেরে যান, আপনি নিঃসংকোচে বলতে পারেন, বাংলা ভাষার অর্থনৈতিক চাহিদা অনেক কমে গেছে।
প্রেম নিবেদনের জন্য বাংলা একটি উত্তম ভাষা, কিন্তু রুটি-রুজির যে বাজার সেখানে বাংলা নৈবেদ্যের গুরুত্ব নেই। মধ্যবিত্তের সন্তান বাংলা থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে। অশনি সংকেত কি শুনতে পাচ্ছেন?
ভালো খবরও আছে। ফেব্রুয়ারির বইমেলাটির যদি আর্থিক গুরুত্ব না থাকত পুরো এক মাস প্রাণের সঞ্চার করতে পারত না। লিখে টাকাও মিলছে। ম্যান-আওয়ার শ্রম মজুরির হিসেবে তা উল্লেখযোগ্য নয় সত্য, তবুও ধারাটি তো তৈরি হচ্ছে।
এবারের বইমেলায় আমার ৪টি নতুন বই রয়েছে। গল্পের বই শিমুর বিয়ের গল্প আর হুমায়ুন অন্বেষা থেকে। উপন্যাস টুইংকল টুইংকল, সময়, সাতাশ বছর পরে, জয়তী। বিদেশির চোখে ১৯৭১ ও প্রিন্সেস পরিবর্ধিত সংস্করণ, নালন্দায়। গ্রন্থনা : শুচি সৈয়দ
 

প্রথম পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close