¦

এইমাত্র পাওয়া

  • শাহজালাল বিমান বন্দর থেকে এক কোটি ভারতীয় রুপিসহ এক পাকিস্তানি নাগরিক আটক
কেজরির শপথে থাকছেন না মোদি

কৃষ্ণকুমার দাস, কলকাতা থেকে | প্রকাশ : ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৫

বাড়ি গিয়ে আমন্ত্রণ জানালেও আগামীকাল শনিবার দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী পদে অরবিন্দ কেজরিওয়ালের শপথ অনুষ্ঠানে যেতে পারবেন না প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বৃহস্পতিবার এএপি প্রধান কেজরিওয়ালকে এ কথা জানিয়ে দিলেন মোদি। কারণ হিসেবে জানিয়েছেন, ওইদিন মহারাষ্ট্রে বিজেপির পূর্বনির্ধারিত তিনটি অনুষ্ঠান রয়েছে। যেখানে উপস্থিত থাকতেই হবে প্রধানমন্ত্রীকে। অবশ্য বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন থেকে বেরিয়ে কেজরিওয়াল জানান, বৈঠক সফল হয়েছে। দিল্লির উন্নয়নে হাতে হাত রেখে কাজ করার প্রতিশ্র“তি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। দিল্লি নির্বাচনের ফল প্রকাশের পর কেজরিওয়ালকে অভিনন্দন জানাতে ফোন করেন প্রধানমন্ত্রী। তখনই শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ জানানোর জন্য মোদির সঙ্গে আগাম সাক্ষাতের সময় চেয়ে নিয়েছিলেন কেজরিওয়াল। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে দশটা নাগাদ নরেন্দ্র মোদির বাসভবনে যান কেজরিওয়াল। সঙ্গে ছিলেন সাবেক সাংবাদিক তথা এএপির দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ নেতা মনীষ সিসোদিয়া। প্রায় ১৫ মিনিট তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন মোদি। বৈঠকে দিল্লির ভাবী মুখ্যমন্ত্রী রাজ্যের উন্নয়নে কেন্দ্রীয় সরকারের সহযোগিতা চান। দিল্লির উন্নয়নমূলক যে কোনো কাজে রাজ্যসরকারের পাশে থাকার আশ্বাস দেন মোদি।
এদিন অবশ্য কেজরিওয়াল সামান্য অসুস্থ ছিলেন। গায়ে জ্বর ছিল তার। তাই প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন থেকে বেরিয়েই সোজা বাড়ি ফেরেন তিনি। সঙ্গে যান সিসোদিয়াও। এএপির তরফে জানানো হয়েছে, কেজরিওয়ালের বাসভবনেই বৈঠকে মন্ত্রিসভার তালিকা চূড়ান্ত করা হবে। বেশি রাতে অথবা শুক্রবার সেই তালিকা উপরাজ্যপালের হাতে তুলে দেয়া হবে বলে এএপি সূত্রে জানানো হয়েছে। মন্ত্রিসভার দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ পদটি পেতে চলেছেন মনীষ সিসোদিয়া। তালিকায় উপমুখ্যমন্ত্রী পদে থাকবে তার নাম। এছাড়াও অধ্যক্ষ পদে রামবিলাস গোয়েল ও উপ-অধ্যক্ষ পদে মনোনীত হতে পারেন বন্দনা কুমারী। এএপির ৪৯ দিনের মন্ত্রিসভায় ছিলেন এমন মাত্র একজন মন্ত্রীই নতুন এই তালিকায় থাকছেন, বাকি সব মুখই নতুন বলে এএপি সূত্রে জানানো হয়েছে।
দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনে দলের পরাজয় ঘটলেও ভারত সরকারের আর্থিক সংস্কারের গতি কমানো হবে না বলে জানিয়েছেন মোদির অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি। দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনে আম আদমি পার্টির কাছে বিজেপি প্রায় হোয়াইট ওয়াশ হয়েছে। দিল্লির ভোটে বিজেপি বিধ্বস্ত হওয়ার পর মঙ্গলবার ভোটের ফলাফল বের হওয়ার পর এদিনই প্রথম মুখ খুললেন জেটলি। জেটলি এদিন ‘৫ম ভারত-আমেরিকা ইকোনোমিক অ্যান্ড ফিন্যান্সিয়াল পার্টনারশিপ’ সম্মেলনে বক্তৃতা করেন। সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন মার্কিন অর্থমন্ত্রী জ্যাকব লিউ। ওই অনুষ্ঠানে জেটলি বলেন, ‘আর্থিক সংস্কারের যে নীতি সরকার গ্রহণ করেছে তা থেকে কোনোভাবেই পিছিয়ে আসা হবে না। চার রাজ্যে নির্বাচনে আমরা জিতেছি, হেরেছি একটি মাত্র রাজ্যে। একমাত্র পরাজয়ের পরিপ্রেক্ষিতে তাই আর্থিক সংস্কারের গতি কখনোই কমানো হবে না। সংস্কারের পথে এগিয়ে যেতে সরকার দৃঢ়প্রতিজ্ঞ।’
চলতি মাসের ২৮ তারিখে সংসদে প্রথমবার পূর্ণাঙ্গ বাজেট পেশ করবেন জেটলি। আর্থিক সংস্কারে গতি আনতে সরকারের কৌশল অনেকটাই স্পষ্ট হবে এই বাজেটে। ২০১৪-র মে মাসে ক্ষমতায় এসে নরেন্দ্র মোদি সরকার সংস্কারের পথেই হেঁটেছে। বিশেষত বিদেশী বিনিয়োগের ক্ষেত্রে বেশকিছু সাহসী পদক্ষেপ নিয়েছে। লোকসভায় ক্ষমতা দখলের পর হরিয়ানা, মহারাষ্ট্র ও ঝাড়খণ্ডে এককভাবে ক্ষমতা দখল করেছে বিজেপি। দ্বিতীয় বৃহত্তম দল হয়ে জম্মু-কাশ্মীরেও সরকার গঠনের দৌড়ে রয়েছে বিজেপি। জেটলি এদিন সেই কথাই স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন।
 

প্রথম পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close