¦

এইমাত্র পাওয়া

  • নারায়ণগঞ্জ রেলস্টেশনে একটি ট্রেনের ২ বগিতে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা
সংকট নিরসনে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় সক্রিয়

মাসুদ করিম | প্রকাশ : ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৫

সহিংস রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে উদ্বিগ্ন আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় সংকট নিরসনে সক্রিয় হয়ে উঠেছে। তাদের প্রতিনিধিরা দেশে ও বিদেশে শুরু করেছেন নানামুখী তৎপরতা। এসব তৎপরতায় বাংলাদেশের ওপর বহির্বিশ্বের চাপ ক্রমেই বাড়ছে। এ পরিস্থিতিতে বর্তমান অবস্থা পর্যবেক্ষণ, সরকার ও বিভিন্ন পক্ষের সঙ্গে আলোচনা করতে ইউরোপীয় পার্লামেন্টসহ বিভিন্ন পর্যায়ের প্রতিনিধি দল বাংলাদেশ সফরে আসতে শুরু করেছে। ইতিমধ্যেই পশ্চিমা বিশ্ব বর্তমান পরিস্থিতিতে তাদের উদ্বেগের কথা জানিয়ে সহিংসতা বন্ধে আহ্বান জানিয়েছে।
চলতি সপ্তাহেই ইউরোপীয় পার্লামেন্টের মানবাধিকার সংক্রান্ত একটি প্রতিনিধি দল বাংলাদেশ সফরে আসছে। ইউরোপীয় পার্লামেন্টের মানবাধিকার সংক্রান্ত কমিটির ভাইস প্রেসিডেন্ট রোমানিয়ার ক্রিস্টিয়ান ড্যান প্রেদার নেতৃত্বে তিন সদস্যের প্রতিনিধি দলটি আগামী কাল রাতে ঢাকায় পৌঁছানোর কথা। বর্তমানে দেশে মানবাধিকার পরিস্থিতি ও পোশাক শিল্পের অবস্থা দেখার জন্য এই সফর হলেও তাদের আলোচনায় রাজনৈতিক পরিস্থিতিই প্রাধান্য পেতে পারে। বিশ্বব্যাপী নির্বাচন নিয়ে কাজ করে থাকে যুক্তরাষ্ট্রের বেসরকারি সংস্থা ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক ইন্সটিটিউট (এনডিআই) বাংলাদেশে সংকট নিরসনে আহ্বান জানিয়েছে। জানা গেছে, জাতিসংঘের পিসবিল্ডিং বিভাগের প্রধান অস্কার ফার্নান্দেস তারানকো তার দাফতরিক কাজে বাংলাদেশ ও পাকিস্তান সফর করতে চান। সফরে এলে তিনি রাজনীতি সংক্রান্ত ইস্যুতে আলোচনার সুযোগ পাবেন। জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন ইতিমধ্যেই তারানকোকে বর্তমান সংকটের শান্তিপূর্ণ সমাধানের লক্ষ্যে বাংলাদেশের সরকার ও বিরোধী দলগুলোর সঙ্গে লিয়াজোঁ করার জন্য দায়িত্ব অর্পণ করেছেন।
বর্তমান পরিস্থিতি সম্পর্কে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের করণীয় বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকায় সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত ক্রিস্টিয়ান মার্টিন ফুশেখ যুগান্তরকে বলেন, ‘বর্তমান সংকট বাংলাদেশকে অভ্যন্তরীণভাবেই সমাধান করতে হবে। আমরা বাংলাদেশের বন্ধু হিসেবে বর্তমান পরিস্থিতিতে উদ্বিগ্ন। আমরা এটাও মনে করি, সংলাপের মাধ্যমে সমঝোতা প্রতিষ্ঠা করে সমস্যার সমাধান করা প্রয়োজন। এতে দেশের উন্নয়ন ধারা বহাল রাখতে সুবিধা হবে।’
এদিকে বাংলাদেশে বর্তমান পরিস্থিতি নিবিড় পর্যবেক্ষণ করছে প্রতিবেশী ভারত। সম্প্রতি ঢাকায় নিযুক্ত ভারতের হাইকমিশনার পঙ্কজ শরণ দিল্লি সফরে গিয়ে বর্তমান বিজেপি প্রশাসনকে অবহিত করেছেন, বাংলাদেশের বর্তমান সরকার পরিস্থিতি সামাল দিতে পারবে। গত বছরের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে ও পরে একই রকমের পরিস্থিতি সফলভাবে নিয়ন্ত্রণ করেছে সরকার। জানা গেছে, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির আসন্ন বাংলাদেশ সফর নির্ধারিত সময়ে অনুষ্ঠানের ব্যাপারে ভারতীয় হাইকমিশনার সুপারিশ করেছেন। কেননা সফরটি নির্ধারিত সময়ে না হলে বাংলাদেশে বর্তমান সরকারের বিরোধীরা লাভবান হতে পারে। সহিংস পরিস্থিতির কারণে নিরাপত্তা ইস্যুতে মমতার সফর নিয়ে দ্বিধার সৃষ্টি হওয়ায় বাংলাদেশ সরকার স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্স (এসএসএফ) দিয়ে মমতা ব্যানার্জির নিরাপত্তার ব্যবস্থা করবে বলে জানা গেছে।
ইউরোপীয় পার্লামেন্টের মানবাধিকার সংক্রান্ত কমিটির ভাইস প্রেসিডেন্ট রোমানিয়ার ক্রিস্টিয়ান ড্যান প্রেদার নেতৃত্বে তিন সদস্যবিশিষ্ট প্রতিনিধি দলে আরও থাকবেন অস্ট্রিয়ার সদস্য জোশেফ উইডেনহোলজার এবং পোল্যান্ডের ক্যারল কার্ফ। এই তিন এমপি ছাড়াও প্রতিনিধি দলকে সহায়তার জন্য কর্মকর্তারা অন্তর্ভুক্ত থাকবেন। প্রতিনিধি দলটি ১৬ ফেব্র“য়ারি রাতে ঢাকায় পৌঁছবে বলে আশা করা হচ্ছে। আগামী ২০ ফেব্র“য়ারি পর্যন্ত ঢাকায় অবস্থানকালে দলটি পোশাক শিল্পের কারখানা পরিদর্শনসহ বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করবে। প্রতিনিধি দলের সদস্যরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে পারেন। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গেও তাদের সাক্ষাতের কথা রয়েছে। এছাড়া সরকারি কর্মকর্তা, নাগরিক সমাজ, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতিনিধি, পোশাক শিল্পের মালিক, শ্রমিক, সাংবাদিকসহ বিভিন্ন পর্যায়ে মতবিনিময় করবে প্রতিনিধি দল। সফর শেষে এই প্রতিনিধি দল ইউরোপীয় পার্লামেন্টে বাংলাদেশে মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে একটি প্রতিবেদন পেশ করবে।
সূত্র জানায়, ইউরোপীয় পার্লামেন্টের প্রতিনিধি দলকে মানবাধিকার পরিস্থিতি অবহিত করার পাশাপাশি সরকারের পক্ষ থেকে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের সহিংস তৎপরতা বিশেষ করে পেট্রলবোমা নিক্ষেপ করে মানুষকে পুড়িয়ে মারার ঘটনাগুলো তাদের সামনে তুলে ধরা হতে পারে। প্রতিনিধি দলের সদস্যদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিট পরিদর্শনের ব্যবস্থাও করার সম্ভাবনা আছে। পেট্রলবোমায় মানুষ মারার ঘটনাকে সবচেয়ে বড় মানবাধিকার লংঘন বলে সরকারের পক্ষ থেকে বলা হবে। ইতিমধ্যেই ইউরোপীয় ইউনিয়ন পেট্রলবোমায় দগ্ধ লোকের চিকিৎসায় সহায়তা করছে। তাদের অর্থায়নে ‘ডক্টরস উইদাউট বর্ডার’ নামের চিকিৎসকদের একটি আন্তর্জাতিক গ্র“পকে বার্ন ইউনিটে দগ্ধ মানুষের চিকিৎসায় নিয়োজিত করা হয়েছে।
যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক এনডিআই ইতিপূর্বে বাংলাদেশে বিভিন্ন নির্বাচনে পর্যবেক্ষক পাঠানোসহ নির্বাচনী কর্মকর্তা, পোলিং এজেন্ট এবং রাজনীতিবিদদের জন্য প্রশিক্ষণ ও ওরিয়েন্টেশনের আয়োজন করে থাকে। বেসরকারি এই সংস্থাটি বিভিন্ন ধরনের পলিসি পরামর্শও দেয়। ওয়াশিংটনে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এম জিয়াউদ্দিন এনডিআই প্রেসিডেন্ট ক্যানেথ ওয়ালেকের সঙ্গে সম্প্রতি বৈঠক করেছেন। এ বৈঠকে এনডিআই প্রেসিডেন্ট বাংলাদেশে রাজনৈতিক সংকটের সমাধান খুঁজে বের করার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন। এনডিআই প্রধান বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন এবং উন্নয়নের এই গতিধারা বজায় রাখতে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার প্রতি জোর দিয়েছেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর যুক্তরাষ্ট্র সফরের আগে রাষ্ট্রদূতের এই বৈঠক তাৎপর্যপূর্ণ বলে সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী হোয়াইট হাউস কাউন্টারিং ভায়োলেন্ট এক্সট্রিমিজম সম্মেলনে যোগ দিতে আগামীকাল সোমবার যুক্তরাষ্ট্র রওনা হচ্ছেন। সেখানে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরির সঙ্গে তার বৈঠকের কথা রয়েছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাংলাদেশের রাজনৈতিক পর্যায়ে দূরত্ব কমাতে মাহমুদ আলী চেষ্টা করবেন বলে জানা গেছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রীর যুক্তরাষ্ট্র সফরকালে বিভিন্ন পর্যায়ে বাংলাদেশে চলমান সহিংস রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হবে। পররাষ্ট্রমন্ত্রীর যাওয়ার আগেই পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল হক মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সফরে গেছেন। সচিব নিউইয়র্কে অভিবাসন বিষয়ে একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলনে যোগ দিয়েছেন। সেখান থেকে তিনি ওয়াশিংটনে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমুদ আলীর সঙ্গে বিভিন্ন বৈঠকে যোগ দেবেন। গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা নোবেল বিজয়ী অধ্যাপক ড. ইউনূসের সঙ্গে সরকারের দূরত্ব, ৫ জানুয়ারির নির্বাচন নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের হতাশা ব্যক্ত করা এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এলজিইডি মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের বিতর্কিত মন্তব্যকে ঘিরেই যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে বাংলাদেশের টানাপোড়েন দেখা দিয়েছিল। তার ওপর সাবেক মার্কিন রাষ্ট্রদূত ড্যান মজিনার তৎপরতায় অসন্তুষ্ট ছিল সরকার। এ কারণে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে মজিনা বিদায়ী সাক্ষাতের সময় পাননি। তবে নতুন রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাটকে প্রথম সৌজন্য সাক্ষাতে দ্রুতই সময় দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। ভারতের নতুন পররাষ্ট্র সচিব সুব্রামিনিয়াম জয়শঙ্কর শিগগিরই বাংলাদেশ সফরে আসবেন। তার দক্ষিণ এশিয়া সফরের অংশ হিসেবে তিনি বাংলাদেশে আসছেন। তবে তার সফরের দিনক্ষণ এখনও চূড়ান্ত হয়নি। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আস্থাভাজন জয়শঙ্কর সফরকালে তিস্তা ও সীমান্ত চুক্তির বিষয়ে ভারতের অবস্থান অবহিত করতে পারেন। রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে ভারতের সর্বশেষ অবস্থানও সফরকালে আরও ভালোভাবে জানা যাবে। পাশাপাশি মোদির সম্ভাব্য বাংলাদেশ সফরের প্রস্তুতির কাজও করতে পারেন জয়শঙ্কর।
 

প্রথম পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close