¦
যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সম্পর্ক ফেরাতে চায় বাংলাদেশ

কূটনৈতিক রিপোর্টার | প্রকাশ : ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৫

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে রাজনৈতিক পর্যায়ে সম্পর্কের আস্থা ফেরাতে আজ ওয়াশিংটন সফরে রওনা হচ্ছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী। সেখানে আগামী ১৯ ফেব্রুয়ারি তিনি মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরির সঙ্গে বৈঠক করবেন বলে সোমবার ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করেছে। যুক্তরাষ্ট্র সফরকালে হোয়াইট হাউস কাউন্টারিং ভায়োলেন্ট এক্সট্রিমিজম সামিটেও যোগ দেবেন মাহমুদ আলী।
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সম্পর্কের ক্ষেত্রে বেশ কিছু দিন ধরেই বাংলাদেশের রাজনৈতিক পর্যায়ে একটা টানাপোড়েন চলছে। গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা নোবেল বিজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূসের সঙ্গে সরকারের দূরত্ব, যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে বাংলাদেশের পণ্যের জিএসপি সুবিধা স্থগিত করা, গত বছরের ৫ জানুয়ারির নির্বাচন নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের হতাশা প্রকাশ এবং মার্কিন সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী নিশা দেশাই বিসওয়ালকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের দুই আনার মন্ত্রী বলে কটাক্ষ করাসহ বেশ কিছু ইস্যুতেই শীতল সম্পর্কের প্রকাশ ঘটে।
ঢাকার কূটনীতিকরা দাবি করছেন, এই শীতল অবস্থা মূলত দুই দেশের রাজনৈতিক পর্যায়ে প্রকট। এর ফলে উভয় দেশের মধ্যে বিদ্যমান সহযোগিতা জোরদারে আমলাতন্ত্রকে অনেকটা বেগ পেতে হচ্ছে। কেননা বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় রাজনীতিবিদদের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে মার্কিন কংগ্রেসেও বাংলাদেশ সম্পর্কে বিভিন্ন ধরনের সমালোচনা করা হচ্ছে। এ বাস্তবতায় যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে রাজনৈতিক পর্যায়ে সম্পর্ক উন্নয়নে উদ্যোগী হয়েছে বাংলাদেশ। এ ছাড়াও বাংলাদেশে চলমান সহিংস রাজনৈতিক পরিস্থিতির কারণেও মাহমুদ আলীর এই যুক্তরাষ্ট্র সফরকে খুবই তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে।
পররাষ্ট্রমন্ত্রীর আসন্ন যুক্তরাষ্ট্র সফরকে সামনে রেখে মার্কিন প্রশাসনকে আস্থায় আনতে বাংলাদেশ বেশ কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। বিশেষ করে দ্রুততম সময়ের মধ্যে নতুন মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা বার্নিকাটকে সৌজন্য সাক্ষাতে সময় দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গত ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে যুক্তরাষ্ট্রের হতাশা প্রকাশের জন্য সরকারের পক্ষ থেকে তৎকালীন রাষ্ট্রদূত ড্যান মজীনাকে দায়ী করা হয়ে থাকে। মজীনা নির্বাচনের পূর্বে দিল্লি সফর করে ভারতকে তাদের অবস্থানের পক্ষে আনার চেষ্টা করেছিলেন বলেও সরকারি মহলে ধারণা রয়েছে। জিএসপি স্থগিতের সিদ্ধান্তও তার সময়েই হয়েছে। এ কারণে মজীনাকে বিদায়ী সাক্ষাতের জন্য সময় দেননি শেখ হাসিনা। যদিও মজীনার আন্তরিক চেষ্টাতেই বাংলাদেশ সফর করেন তদানীন্তন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটন।
পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ঘোষণায় বলা হয়েছে, মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরির আমন্ত্রণে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমুদ আলী তিন সদস্যের প্রতিনিধি দল নিয়ে ওয়াশিংটনে মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরে অনুষ্ঠেয় হোয়াইট হাউস কাউন্টারিং ভায়োলেন্ট এক্সট্রিমিজম সামিটে ১৯ ফেব্র“য়ারি মন্ত্রী পর্যায়ের অংশে যোগ দেবেন। সম্মেলনে যোগ দেয়ার লক্ষ্যে পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হক এরই মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র চলে গেছেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পর মাহমুদ আলীর এটাই প্রথম যুক্তরাষ্ট্র সফর।
জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন এ সম্মেলনের আয়োজন করেছেন। বিশ্বের ৫০টির বেশি দেশ থেকে মন্ত্রী, উচ্চপর্যায়ের কর্মকর্তা, বেসরকারি খাত ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা এতে যোগ দিচ্ছেন। সন্ত্রাস মোকাবেলায় বিশ্বের বিভিন্ন দেশের অভিজ্ঞতা বিনিময় করাই এ আয়োজনের লক্ষ্য। যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লড়াই পরিচালনা করা হলেও বিশ্বব্যাপী এ মুহূর্তে সামরিক পদক্ষেপের পরিবর্তে আলোচিত হচ্ছে সন্ত্রাস মোকাবেলায় স্থানীয় জনগণকে সম্পৃক্ত করার বিষয়।
এ সম্মেলনের লক্ষ্য অনেকটাই সে রকম। বাংলাদেশ এ উদ্যোগের সঙ্গে ইতিমধ্যে যুক্ত হয়েছে এবং উগ্র জঙ্গিবাদ মোকাবেলায় স্থানীয় জনগোষ্ঠীকে সম্পৃক্ত করতে বৈশ্বিক এ উদ্যোগ থেকে তহবিলও পাবে।
কূটনৈতিক সূত্রগুলো অবশ্য বলছে, জঙ্গিবাদবিরোধী বহুজাতিক এ সম্মেলনের চেয়ে মাহমুদ আলীর সফরে বেশি দৃষ্টি থাকবে জন কেরির সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের প্রতি। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ঘোষণায় বলা হয়, বৈঠকে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক এবং আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক ইস্যুর সামগ্রিক বিষয়েই আলোচনা হবে।
তবে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ সহিংস রাজনৈতিক পরিস্থিতি সম্পর্কে যুক্তরাষ্ট্র কী অভিমত ব্যক্ত করে সেটাই দেখার বিষয়। মার্কিন রাষ্ট্রদূত বার্নিকাট অবশ্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করে বলেছেন, বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার পক্ষে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান রয়েছে।
এদিকে আগামী ১৯ ফেব্রুয়ারি রাতে ঢাকায় আসছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। তিনি একুশে ফেব্রুয়ারির বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশ নেয়ার পর কলকাতা ফিরে যাবেন বিধায় তার সঙ্গে দেখা করতে ২০ ফেব্রুয়ারি ওয়াশিংটন থেকে ঢাকায় ফিরছেন মাহমুদ আলী।
প্রথম পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close