¦
মান্নাকে টিএফআই সেলে জিজ্ঞাসাবাদের সিদ্ধান্ত

তোহুর আহমদ | প্রকাশ : ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৫

সমন্বিতভাবে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গ্রেফতারকৃত নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নাকে টিএফআই (টাস্কফোর্স ইন্টারোগেশন) সেলে নেয়া হবে। সব সংস্থার সদস্যরা যাতে তাকে নিবিড়ভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করতে পারেন সেজন্য টিএফআই সেলে নেয়া হচ্ছে। সংশ্লিষ্ট নির্ভরযোগ্য সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। সূত্র জানায়, টিএফআই সেলে মাহমুদুর রহমান মান্নাকে দীর্ঘ সময় ধরে জিজ্ঞাসাবাদ করা হতে পারে। জিজ্ঞাসাবাদের সময় নিয়ম অনুযায়ী সামরিক গোয়েন্দা পরিদফতরসহ দেশের সব গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিনিধিরা উপস্থিত থাকবেন। রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্র, জঙ্গি সম্পৃক্ততাসহ স্পর্শকাতর মামলার আসামিদের টিএফআই সেলে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়ে থাকে। আধুনিক জিজ্ঞাসাবাদ যন্ত্রপাতির সমন্বয়ে সুসজ্জিত পাঁচ কক্ষবিশিষ্ট টিএফআই সেলটি বর্তমানে র‌্যাব সদর দফতরে অবস্থিত। আগে এটি জয়েন্ট ইন্টারোগেশন সেল (জেআইসি) নামে পুলিশের বিশেষ শাখার তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হতো।
পুলিশ সূত্র জানায়, বৈধ সরকারকে উৎখাতে নানামুখী তৎপরতার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ এনে মান্নাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। একই সঙ্গে এ প্রক্রিয়ায় তার সঙ্গে গোপনে আরও কারা কারা সম্পৃক্ত রয়েছেন তাদের নাম-পরিচয়ও জানার চেষ্টা করবে টিএফআই সেল। অজ্ঞাতনামা যে ব্যক্তির সঙ্গে তিনি মোবাইল ফোনে দীর্ঘ সময় ধরে স্পর্শকাতর বিষয়ে সন্দেহজনক কথাবার্তা বলেছেন তার সম্পর্কে মান্নার কাছে বিস্তারিত জানতে চাওয়া হবে। এছাড়া এই জিজ্ঞাসবাদের সময় মাহমুদুর রহমান মান্নার সামনে একটি গোপন প্রোফাইল উপস্থাপন করা হবে। যেখানে তার বিষয়ে বিগত এক বছরের বেশি সময়কার নানা তথ্য রয়েছে। রয়েছে নানা ক্লু।
এদিকে আইনশৃংখলা বাহিনীর একটি সূত্র বলছে, মান্নার সঙ্গে কথোপকথনের সময় ফোনের অপর প্রান্তের অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিকে শনাক্ত করা গেছে। তার ডাক নাম মামুন। তিনি বর্তমানে অস্ট্রেলিয়ায় অবস্থান করছেন। তবে তার বিস্তারিত পরিচয় এখনও জানা যায়নি। গোয়েন্দা তথ্যের ওপর ভিত্তি করে এই ব্যক্তির বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য তালাশের জন্য কূটনৈতিক চ্যানেলে প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। এছাড়া পুলিশ সদর দফতরের মাধ্যমে ইন্টারপোলেরও সহযোগিতা চাওয়া হয়েছে।
মান্নার সঙ্গে ফোনালাপকারী অজ্ঞাতনামা ওই ব্যক্তির পরিচয় সম্পর্কে জানতে চাইলে র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশনস) কর্নেল জিয়াউল আহসান যুগান্তরকে বলেন, এ বিষয়ে তদন্ত চলছে। তদন্তের স্বার্থে এ সংক্রান্ত তথ্য এখনই প্রকাশ করা সমীচীন হবে না। তবে আপনাদের আশ্বস্ত করতে পারি, আমরা বসে নেই। আমরা কাজ করছি।
সূত্র জানায়, নিয়মানুযায়ী টিএফআই সেলে মান্নাকে জিজ্ঞাসাবাদের সময় ৬টি সংস্থার প্রতিনিধি উপস্থিত থাকবেন। এই ৬টি সংস্থা হল- সামরিক গোয়েন্দা পরিদফতর, ডিজিএফআই, র‌্যাব, জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থা (এনএসআই), পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) ও পুলিশের বিশেষ শাখা (এসবি)। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে প্রাপ্ত তথ্য-উপাত্ত নিয়ে এসব সংস্থা সমন্বিতভাবে কাজ করবে এবং মামলার তদন্তকারী কর্তৃপক্ষকে গোয়েন্দা সহায়তা দেয়া হবে। সূত্র জানায়, মাহমুদুর রহমান মান্না ইতিমধ্যে রিমান্ডে থাকা অবস্থায় বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছেন। টিএফআই সেলে নেয়ার আগে এসব তথ্য যাচাই-বাছাই করে দেখা হচ্ছে। জিজ্ঞাসাবাদের সূত্র ধরে বিদেশে বসে বিএনপির যেসব নেতা আন্দোলন ও চলমান সহিংসতায় অর্থের জোগান দিচ্ছেন তাদের কয়েক জনকে চিহ্নিত করা গেছে। যাদের বেশ কয়েক জনের ফোনালাপের ভয়েস রেকর্ডও গোয়েন্দাদের হাতে এসেছে। তবে মাহমুদুর রহমান মান্না গ্রেফতার হওয়ার পর তাদের অনেকে নিজেদের অবস্থান পরিবর্তন করেছেন। র‌্যাবের উচ্চ পর্যায়ের একটি সূত্র যুগান্তরকে জানিয়েছে, বিদেশে বসে দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিত সহিংস করে তোলার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে এসব ব্যক্তিকেও আইনের আওতায় আনা হবে। কূটনৈতিক যোগাযোগের মাধ্যমে তাদেরকে দ্রুততম সময়ে দেশে ফেরত আনার চেষ্টা চলছে। সরকার উৎখাতের পরিকল্পনার বিষয়ে অজ্ঞাত এক ব্যক্তির সঙ্গে ফোনালাপের অভিযোগে গত মঙ্গলবার মাহমুদুর রহমান মান্নাকে গ্রেফতার করা হয়। এর আগে তার কথোপকথনের অডিও গণমাধ্যমে প্রকাশ হয়ে পড়ে। বর্তমানে তিনি ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের হেফাজতে ১০ দিনের রিমান্ডে রয়েছেন।
প্রথম পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close