¦
ফাইনালের আগে ফাইনাল

ইশতিয়াক সজীব | প্রকাশ : ২৬ মার্চ ২০১৫

ফাইনালে কাকে চান? কাকে পেলে সুবিধা হয়? ব্রেন্ডন ম্যাককালামের কূটনৈতিক উত্তর, ‘দেখুন, দুটি দলই শক্তিশালী। সুতরাং যে-ই ফাইনালে উঠুক, আমাদের কাজটা সহজ হবে না।’ জবাবটা গাবাঁচানো ধরনের হলেও ভুল কিছু বলেননি নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক। মেলবোর্নের মহামঞ্চে রবিবাসরীয় ফাইনালে নিশ্চিতভাবেই সহজ প্রতিপক্ষ পাচ্ছে না নিউজিল্যান্ড। মেলবোর্নগামী ট্রেনের বাকি একটি টিকিটের জন্য আজ ফাইনালের আগে আরেক ফাইনাল মঞ্চায়িত হতে যাচ্ছে সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডে। অস্ট্রেলিয়া বনাম ভারত। মুখোমুখি ওয়ানডে র‌্যাংকিংয়ের শীর্ষ দুটি দল। কাগজে-কলমে সেমিফাইনাল হলেও অগ্নিগর্ভ ম্যাচটিকে অনায়াসে ফাইনাল বলে চালিয়ে দেয়া যায়! অস্ট্রেলিয়া রেকর্ড চারবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন, ভারত বর্তমান চ্যাম্পিয়ন। দারুণ ভারসাম্যপূর্ণ দুটি দলই রয়েছে আগুনে ফর্মে। গত এক সপ্তাহ ধরে এই ম্যাচ নিয়ে উত্তেজনার পারদ যেভাবে চড়ছে, তাতে সিডনিতে আজ ‘বিগ ব্যাং’ আশা করাই যায়!
দু’দলই গর্ব করতে পারে তাদের শতভাগ জয়ের রেকর্ড নিয়ে। এই বিশ্বকাপে টানা সাত ম্যাচ জিতে সেমিতে পা রেখেছে ভারত। অস্ট্রেলিয়ার রেকর্ডটা অবশ্য অন্যরকম। এর আগে ছয়বার বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে খেলে ছয়বারই ফাইনালে উঠেছে অস্ট্রেলিয়া। নিজেদের আঙিনায় এবার সাতে সাত দেখছেন ক্লার্করা। গত আসরে ভারতের মাটিতে ভারতের কছে হেরে কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে বিদায় নিতে হয়েছিল অস্ট্রেলিয়াকে। তারপরও ইতিহাস অসিদের পক্ষে। বিশ্বকাপ মঞ্চে হেড-টু-হেডে ভারতের বিপক্ষে ৭-৩-এ এগিয়ে অস্ট্রেলিয়া। সিডনিতে গত ৩৫ বছরে অস্ট্রেলিয়াকে মাত্র একবারই হারাতে পেরেছে ভারত। এই পরিসংখ্যান যদি একপেশে ম্যাচের ইঙ্গিত দেয়, তবে মুদ্রার উল্টো দিকও আছে।
গ্রীষ্মের শুরুতে টেস্ট ও ত্রিদেশীয় ওয়ানডে সিরিজে অস্ট্রেলিয়ার কাছে নাকানি-চুবানি খাওয়া ভারত বিশ্বকাপে এসে একদম অন্য চেহারায় মেলে ধরেছে নিজেদের। কোনো বিভাগেই অস্ট্রেলিয়ার চেয়ে পিছিয়ে রাখ যাবে না তাদের। শিখর ধাওয়ান, বিরাট কোহলি, সুরেশ রায়না ও রোহিত শর্মা- ভারতের চার ব্যাটসম্যান সেঞ্চুরি করেছেন বিশ্বকাপে। অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে তিন অংক ছুঁয়েছেন তিনজন- অ্যারন ফিঞ্চ, ডেভিড ওয়ার্নার ও গ্লেন ম্যাক্সওয়েল। নিঃসন্দেহে এই বিশ্বকাপের সেরা পেস আক্রমণ অস্ট্রেলিয়ার। মিচেল স্টার্ক, মিচেল জনসন ও জশ হ্যাজলউডের একটি স্পেলই ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দিতে পারে। ভারতের বোলিংও কিন্তু কম ভয়ংকর নয়। সাত ম্যাচেই প্রতিপক্ষকে অলআউট করা একমাত্র দল ভারত। তিন পেসার সামি, যাদব ও মোহিত মিলে নিয়েছেন ৪২ উইকেট।
ভারতের জন্য আরেকটি ইতিবাচক দিক হল, খেলা হচ্ছে সিডনিতে। বরাবরের মতো স্পিনবান্ধব উইকেট হলে, রবিচন্দ্রন অশ্বিন হতে পারেন ধোনির বাজির ঘোড়া। অশ্বিনের মতো বিশ্বমানের কোনো স্পিনার নেই অস্ট্রেলিয়ার। এছাড়া পরের মাঠেও আজ ঘরের অবহে খেলবে ধোনিরা! কারণ, ৪২ হাজার টিকিটের ৭০ ভাগই কিনে নিয়েছেন ভারতীয় সমর্থকরা। তারপরও ফেভারিট কিন্তু অস্ট্রেলিয়াই। উইকেট যেমনই হোক, মিচেল স্টার্কের মতো বিধ্বংসী কোনো বোলার নেই ভারতের। ভারতের ব্যাটিং লাইনআপ যতই গভীর হোক, ম্যাক্সওয়েল, ওয়ার্নার কিংবা ফকনারের মতো ব্যাকরণ ভাঙা খুনে ব্যাটসম্যান নেই তাদের। ফেভারিট হওয়ার চাপটাকেও খুব স্বাভাবিকভাবে নিচ্ছেন অসি অধিনয়াক মাইকেল ক্লার্ক, ‘সমর্থকদের প্রত্যাশা থাকবেই। কারণ বিশ্বের একনম্বর ওয়ানডে দল আমরা। আপনি যখন ভালো পারফর্ম করবেন, প্রত্যাশা তো বাড়বেই। চাপ আর প্রত্যাশা নিয়ে অনেক কথা হচ্ছে। কিন্তু আমরা কোনো চাপ অনুভব করছি না। নিজেদের আঙিনায় খোলা মনে সেরা ক্রিকেটই আমরা খেলব।’ ক্লার্কের মতো ভারতীয় ওপেনার রোহিত শর্মাও আত্মবিশ্বাসে টগবগ করে ফুটছেন, ‘অবশ্যই আমরা অস্ট্রেলিয়াকে হারাতে পারি। এ নিয়ে কোনো সংশয় নেই। অস্ট্রেলিয়া বেশ ভালো ব্যাটিং দল, কিন্তু ভালো বোলিং লাইনআপের বিপক্ষে তাদের সংগ্রাম করতে দেখেছি আমরা। বিশেষ করে নিউজিল্যান্ড ও পাকিস্তানের বিপক্ষে। অস্ট্রেলিয়ার বোলিং ভালো, কিন্তু আমরাও খুব ভালো ব্যাটিং দল।’
 

প্রথম পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close