¦
বিএনপির শেষ পর্যন্ত থাকা নিয়ে সন্দেহ সৈয়দ আশরাফের

যুগান্তর রিপোর্ট | প্রকাশ : ২৯ ডিসেম্বর ২০১৫

পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপি শেষ পর্যন্ত থাকবে কিনা, তা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জনপ্রশাসনমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। তিনি বলেন, অতীত অভিজ্ঞতা থেকেই বোঝা যায়, বিএনপি শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে নাও থাকতে পারে। তাদের নির্বাচন বয়কটের অভ্যাস আছে। সোমবার সন্ধ্যায় ধানমণ্ডিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এমন সন্দেহ প্রকাশ করেন তিনি।
নির্বাচন গ্রহণযোগ্য হবে আশা রেখে সৈয়দ আশরাফ বলেন, আমি কোনো শংকা দেখছি না। সরকার তার দায়িত্ব শতভাগ পালন করবে। আশা করি, নির্বাচন কমিশনও তাদের সাংবিধানিক দায়িত্ব পালন করবে। নির্বাচন উৎসবমুখর করতে তিনি খালেদা জিয়ার সহযোগিতা কামনা করেন।
বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বক্তব্যের জবাবে আয়োজিত এ সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ, ডা. দীপু মনি, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, দফতর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, কৃষি সম্পাদক ডা. আবদুর রাজ্জাক, দুর্যোগ ও ত্রাণ সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী, স্বাস্থ্য সম্পাদক ডা. বদিউজ্জামান ভূঁইয়া ডাবলু, কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য এনামুল হক শামীম, সুজিত রায় নন্দী প্রমুখ। ভোট গণনা পর্যন্ত নির্বাচনে থাকতে খালেদা জিয়ার প্রতি আহ্বান জানিয়ে সৈয়দ আশরাফ বলেন, নির্বাচন বয়কটের মতো কিছু করবেন না। নির্বাচন বিতর্কিত হলে খালেদা জিয়ার লাভ কী? নির্বাচন বিতর্কিত হলে গণতন্ত্র ক্ষতিগ্রস্ত হবে। নির্বাচন বিতর্কিত হলে খালেদা জিয়ার কিছু হবে না। আমাদের নেত্রী শেখ হাসিনারও কিছু হবে না। আমরা গণতন্ত্রকে বিতর্কিত করতে দিতে পারি না। গণমাধ্যমের প্রতি অভিযোগ করে তিনি বলেন, বিএনপি জিতলে নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে। আওয়ামী লীগ জিতলে নির্বাচন সুষ্ঠু হয়নি। নির্বাচনের সুষ্ঠুতা নির্ণয়ে রেফারি হল গণমাধ্যম।
এ নির্বাচনে সরকার পরিবর্তন হবে না উল্লেখ করে জনপ্রশাসনমন্ত্রী বলেন, স্থানীয় সরকার নির্বাচনে প্রতিটি পৌরসভায় আওয়ামী লীগ জয়লাভ করলে কিছু হবে না। একটিতেও জয়লাভ না করতে পারলে কিছু হবে না। বিএনপি শুরু থেকেই নির্বাচনকে বিতর্কিত করার চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।
নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়েনের খালেদা জিয়ার দাবি প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, বাংলাদেশে অতীতে কোনো দিন স্থানীয় সরকার নির্বাচনে সেনা মোতায়েন প্রয়োজন হয়নি। আগামীতেও স্থানীয় সরকার নির্বাচনে সেনা মোতায়েনের প্রয়োজন নেই।
আশরাফ বলেন, উনি (খালেদা) শহীদদের সংখ্যা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন, বুদ্ধিজীবীদের কটাক্ষ করে কথা বলছেন। এগুলো তো স্থানীয় সরকার নির্বাচনের ইস্যু না। ৪৪ বছর আগে শহীদ হয়েছে। উনি এগুলো বলেন, কারণ উনি দেশকে ভালোবাসেন না। বাংলাদেশের স্বাধীনতা বিশ্বাস করেন না। তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার যে মানসিক অবস্থা উনি কিন্তু একলাইন লিখতে পারেন না। সুস্থভাবে চিন্তা করতে পারেন না।
পৌর নির্বাচনের পর সরকার পতনের আন্দোলন-বিএনপি চেয়ারপরসন খালেদা জিয়ার এমন বক্তব্য প্রসঙ্গে তিনি বলেন, উনি (খালেদা) এটা ১৯৯৬ সাল থেকে দিচ্ছেন। পৌরসভা নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও উৎসবমুখর পরিবেশে হবে দাবি করে দেশবাসীকে স্বাধীনতার প্রতীক, বঙ্গবন্ধুর প্রতীক, শেখ হাসিনার মার্কা এবং মুক্তিযুদ্ধের মার্কা ‘নৌকা’ প্রতীকে ভোট দেয়ার আহ্বান জানান সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম।
প্রথম পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close