logo
সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশে কার্যক্রমের যত উদ্যোগ
জানুয়ারি ১ জানুয়ারি : দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের জন্য ব্যবহার উপযোগী পাঠ্যপুস্তক বিতরণ কার্যক্রম উদ্বোধন। এই প্রথমবার প্রাথমিক শিক্ষাস্তরের সব দৃষ্টি প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীরা পেয়েছে বিনামূল্যে তাদের ব্যবহার উপযোগী ডেইজি মাল্টিমিডিয়া বই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শিক্ষার্থীদের হাতে বিনামূল্যে বই বিতরণ কর্মসূচির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রাথমিক স্তরের সকল ডিজিটাল বই এবং ব্রেইল বই দৃষ্টি-প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দেন। এই সফটওয়্যার সিডি কিংবা জাতীয় তথ্যকোষ http://www.infokosh.gov.bd/infokosh-talking-books থেকে ডাউনলোড করা সম্ভব। ১-৩১ জানুয়ারি : ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলা শুরু। ই-সেবা বিষয়ে নাগরিক সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রতি বছর বিভাগীয় ও জেলা পর্যায়ে ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলা আয়োজিত হয়ে আসছে। ফেব্রুয়ারি ১ ফেব্রুয়ারি : বইমেলায় ডিজিটাল লাইব্রেরি ও বাংলা ওসিআর উদ্বোধন। পাবলিক লাইব্রেরির ডিজিটাল সংস্করণ এর মাধ্যমে এখন অনলাইনেই গ্রন্থাগারে কি বই রয়েছে, এর প্রকাশক ও প্রকাশকাল স¤পর্কিত তথ্যাদি, নতুন বই, সর্বাধিক পঠিত বই, ই-বুক এবং জনপ্রিয় বইয়ের তালিকা পাওয়া যাবে। এছাড়া এখানে রয়েছে আন্তর্জাতিক পর্যায়ের লাইব্রেরি এবং এর সহযোগী প্রতিষ্ঠানের লিংকসমূহ। স্বত্বাধিকার সংরক্ষণের বাইরে মোট ১১৭৮টি ই-বুক যা অনলাইনে যে কোনো পাঠক যে কোনো স্থান থেকে পড়তে বা সংরক্ষণ করতে পারবেন। ৫ ফেব্রুয়ারি : গুগল ম্যাপে বাংলাদেশের স্ট্রিট ভিউ উদ্বোধন। গুগল ম্যাপে এখন থেকে বাংলাদেশের বিভিন্ন এলাকার রাস্তার চিত্র (স্ট্রিট ভিউ) দেখা যাবে। ৬৫তম দেশ হিসেবে বাংলাদেশে গুগলের এ সেবা চালু হলো। ১২ ফেব্রুয়ারি : ডিজিটাল বাংলাদেশের আদলে এবার ডিজিটাল মালদ্বীপ। এটুআই প্রোগ্রাম মালদ্বীপ সরকারকে ডিজিটাল সেন্টার স্থাপন ও পরিচালনা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম স্থাপন, হজ ব্যবস্থাপনা সিস্টেম, কাস্টমস ক্লিয়ারেন্স প্রসেস, বিদ্যমান সরকারি সেবাকে ই-সেবায় রূপান্তর, ন্যাশনাল পোর্টাল ও ডেটা সেন্টার স্থাপন বিষয়ে সহযোগিতা করবে। মার্চ ৯ মার্চ : ২৯ জন অগ্রগামী নারীদের সম্মাননা। ‘নারীর ক্ষমতায়ন, মানবতার উন্নয়ন : তৈরি করুন চিত্ররূপ’ এই প্রতিপাদ্য নিয়ে পালিত হয়েছে আন্তর্জাতিক নারী দিবস-২০১৫। অনুষ্ঠানে একসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রামের জেন্ডার সংক্রান্ত রূপরেখা উদ্বোধন করা হয়। এপ্রিল ৫ এপ্রিল : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এটুআই প্রকল্প যৌথভাবে গবেষণা, প্রশিক্ষণ ও মূল্যায়ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন এবং কৌশল নির্ধারণ করবে যা সরকারের বিভিন্ন বিভাগ ও অধিদফতরের সেবাসমূহ জনগণের কাছে সহজে ও দ্রুত পৌঁছে দিতে সহায়ক ভূমিকা রাখতে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে। ৮ এপ্রিল : এটুআই প্রোগ্রামের সার্ভিস ইনোভেশন ফান্ডের সহায়তায় পরিবেশ অধিদফতর পরিবেশগত ছাড়পত্র সহজীকরণ ও গতিশীল করার লক্ষ্যে একটি সফটওয়্যার ডেভেলপ করেছে। ছাড়পত্রের আবেদনের জটিলতা এবং দীর্ঘসূত্রতা কমাতে অনলাইনে আবেদনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। শুধু তাই নয় একজন আবেদনকারী তার আবেদনের সর্বশেষ অবস্থান সম্পর্কে অনলাইনে জানতে পারবেন এবং আবেদন করা ছাড়াও কেন্দ্রীয় তথ্যভাণ্ডার প্রস্তুত ও পুরো কার্যক্রম মনিটরিং করা সম্ভব হবে। ২৩ এপ্রিল : প্রাথমিকভাবে ৩৩টি ডিজিটাল সেন্টারের মাধ্যমে শুরু হলেও পর্যায়ক্রমে দেশের ৫০০০-এর অধিক ডিজিটাল সেন্টারে সম্প্রসারণের পরিকল্পনা রয়েছে সুন্দরবন ও এটুআই কর্তৃপক্ষের যৌথ উদ্যোগে। মে ২৬ মে : আন্তর্জাতিক অঙ্গনে আবারও স্বীকৃতি লাভ করেছে প্রধানমন্ত্রীর ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নকারী প্রকল্প একসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রাম। ‘একসেস টু ইনফরমেশন অ্যান্ড নলেজ ক্যাটাগরিতে’ মনোনীত এটুআই প্রোগ্রামের জাতীয় তথ্য বাতায়ন ওয়ার্ল্ড সামিট অন ইনফরমেশন সোসাইটি (WSIS) পুরস্কার ২০১৫ অর্জন করেছে। জুন ২ জুন : ৪র্থ বছরে পদার্পণ করল মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম। মাল্টিমিডিয়া কনটেন্ট প্রতিযোগিতা-২০১৪-এর বিজয়ী ৩৪ জন শিক্ষক এবং মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম সফলভাবে পরিচালনার জন্য জেলা পর্যায়ের ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলায় ১ম পুরস্কারপ্রাপ্ত ৬৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানকে বর্ষসেরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ২০১৫ হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান করা হয়। ৩ জুন : রূপকল্প ২০২১ বাস্তবায়নে বাংলাদেশের Better Than Cash Alliance এ যোগদান। বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন সেবা গ্রহণের ফি ইলেকট্রনিক উপায়ে প্রদান করা সম্ভব হলে তা আর্থিক সেবাভুক্তির কার্যক্রমকে ত্বরান্বিত করবে এবং দেশের অর্থনৈতিক ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করার ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখবে। ১৬ জুন : রূপকল্প ২০২১ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে আজ ১৬ জুন ২০১৫ তারিখে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এসএসএফ প্রেস ব্রিফিং কক্ষে একসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রামের উদ্যোগে পরিচালিত সার্ভিস ইনোভেশন ফান্ডের ৪র্থ ও ৫ম পর্বের বিজয়ী প্রকল্পগুলোর সঙ্গে পৃথকভাবে এটুআই প্রোগ্রামের চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। ১৮ জুন : ভূমি ব্যবস্থাপনা কার্যক্রমে অনলাইন সিস্টেম চালুর সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের মাধ্যমে ভূমি সংক্রান্ত বিভিন্ন ই-সেবা তৈরি, বিশেষভাবে ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদফতরে সংরক্ষিত খতিয়ান, মৌজা ম্যাপের ইলেকট্রনিক রেকর্ড অনলাইনে প্রদর্শন করা সম্ভব হবে। বর্তমানে ২০,৮০৫টি মৌজার ১,২১,৭২,৪৩৮টি খতিয়ান, ৭১ হাজার মৌজা ম্যাপের ইলেক্ট্রনিক রেকর্ড সংরক্ষিত আছে ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদফতরের কাছে এবং আরও ১৮ হাজার মৌজা ম্যাপের ইলেকট্রনিক রেকর্ড প্রস্তুতের কাজ চলছে। ২১ জুন : সাধারণ মানুষের সমস্যা তাদের মুখ থেকে শোনা এবং তাদের কাছ থেকে এসব সমস্যার সমাধান চেয়ে এটুআই প্রোগ্রামের উদ্যোগে ‘জীবন থেকে নিয়ে’ নামে একটি ক্যাম্পেইনের আয়োজন করা হয়। জুলাই ৫ জুলাই : ওপেন ওয়েব টুল ব্যবহারের মাধ্যমে ই-সেবা প্রদান বিষয়ক উদ্যোগ। বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি ই-সেবা জনগণের কাছে সহজলভ্য ও ব্যবহার উপযোগী করে তোলার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের বাস্তবায়নাধীন একসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রাম এবং মজিলা ফাউন্ডেশন একসঙ্গে কাজ করার যৌথ উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। ৮ জুলাই : ডিজিটাল বাংলাদেশ বিষয়ে রিপোর্ট ও ফিচার লেখায় চলতি বছর পিআইবি-এটুআই গণমাধ্যম পুরস্কার-২০১৫ বাংলাদেশ প্রেস ইন্সটিটিউট এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একসেস টু ইনফরমেশন প্রকল্পের (এটুআই) উদ্যোগে এ পুরস্কার দেয়া হয়েছে। এবার মোট ৫টি ক্যাটাগরিতে ৬ সাংবাদিক বিজয়ী হন। আগস্ট ৬ আগস্ট : এইচডি মিডিয়া কন্টেন্ট মেকিং ট্রেইনিং অ্যান্ড সার্টিফিকেট গিভিং সিরেমনি। ১৬ আগস্ট : তথ্যপ্রযুক্তি ও ইনোভেশন নিয়ে যৌথভাবে কাজ করার লক্ষ্যে এটুআই প্রোগ্রাম এবং গ্রিফিত বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর। বাংলাদেশে ই-লার্নিং, ই-ওয়েস্ট ম্যানেজমেন্ট, ই-লিডারশিপসহ তথ্য-প্রযুক্তি এবং ইনোভেশন নিয়ে এটুআই প্রোগ্রাম ও গ্রিফিত বিশ্ববিদ্যালয় যৌথভাবে কাজ করার উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। এই লক্ষ্যে অস্ট্রেলিয়ার গ্রিফিত বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রামের সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে। ২৩ আগস্ট : তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে জনগণের কাছে সরকারি বিভিন্ন প্রয়োজনীয় তথ্য সহজলভ্য করার লক্ষ্যে ওপেন গভর্নমেন্ট ডাটার (ওজিডি) উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। সেপ্টেম্বর ৬ সেপ্টেম্বর : রাজউকের অটোমেশন কার্যক্রম সম্প্রসারণের লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রাম, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় এবং রাজউকের যৌথ উদ্যোগে রাজউকের অডিটোরিয়ামে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে। ১৬ সেপ্টেম্বর : বাংলাদেশ বিমানের অভ্যন্তরীণ ফ্লাইটের টিকিট এখন ডিজিটাল সেন্টারে। এই সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের ফলে পরীক্ষামূলকভাবে ১১টি জেলার ১০০টি ডিজিটাল সেন্টারের মাধ্যমে বাংলাদেশ বিমানের অভ্যন্তরীণ ফ্লাইটের টিকিট বিক্রয়ের সুযোগ তৈরি হবে। ফলে বাংলাদেশ বিমানের টিকিট ক্রয় সুবিধা জনগণের দোরগোড়ায় নিয়ে যাওয়া সম্ভব হবে। ২০ সেপ্টেম্বর : টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যমাত্রার (এসডিজি) মনিটরিং টুলের উদ্বোধন। জাতিসংঘ ঘোষিত টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (২০১৬-২০৩০) অর্জনে দেশের সংসদীয় আসনভিত্তিক সরকারি উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের অগ্রগতি মনিটর করার জন্য একটি বিশেষ অনলাইন টুল তৈরি করা হয়েছে। অক্টোবর ২১ অক্টোবর : স্থানীয় সরকার বিভাগ এবং একসেস টু ইনফরমেশন প্রোগ্রামের উদ্যোগে স্থাপিত ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার এবং ডাক অধিদফতরের উদ্যোগে স্থাপিত পোস্ট ই-সেন্টারের মধ্যে সমন্বয় এবং সারা দেশে আর্থিক সেবাভুক্তির সম্প্রসারণের জন্য একটি কার্যকর আর্থিক সেবাভুক্তি মডেল তৈরির উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। নভেম্বর ১১ নভেম্বর : ডিজিটাল সেন্টারের ৫ম বর্ষপূর্তি উদযাপন। ডিজিটাল সেন্টার হল ইউনিয়ন পরিষদ, পৌরসভা ও সিটি কর্পোরেশনের ওয়ার্ডে স্থাপিত তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর সেবা সমৃদ্ধ একটি আধুনিক কেন্দ্র। বর্তমানে দেশের সব (৪৫৪৭টি) ইউনিয়নে, সব (৩২১টি) পৌরসভায় এবং ১১টি সিটি কর্পোরেশনের সব ওয়ার্ডে (৪০৭টি) স্থাপিত ডিজিটাল সেন্টারগুলো গ্রামীণ জনপদের সাধারণ মানুষের জন্য সরকারি-বেসরকারি-বাণিজ্যিক তথ্য ও সেবা প্রাপ্তির এক অনন্য কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে। ১৭ নভেম্বর : বাংলাদেশে আর্থিক সেবাভুক্তি কার্যক্রম পরিদর্শন এবং সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে নেদারল্যান্ডসের রানী ম্যাক্সিমা গাজীপুর জেলার শ্রীপুর উপজেলার রাজাবাড়ী ইউনিয়নের ডিজিটাল সেন্টারের মোবাইল এবং অনলাইনে আর্থিক সেবা কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। ১৮ নভেম্বর : ‘সেবা প্রোফাইল বই’-এর মোড়ক উন্মোচন ডিজিটাল বাংলাদেশের পথে আরও এক ধাপ। উপজেলা ২২টি ও জেলা ১৪টি পর্যায়ের মোট ৩৬টি দফতর ও অধিদফতরের সেবা প্রদান পদ্ধতি, সময়-স্থান-খরচ, প্রয়োজনীয় কাগজপত্র, বিধিবিধান, দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, সেবা না পেলে প্রতিকারে কী করণীয় ইত্যাদি বিষয় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে এ প্রকাশনায়। ডিসেম্বর ৭ ডিসেম্বর : ভাইওলেন্স অ্যাগিনেস্ট উইম্যান অ্যায়ারনেস ক্যাম্পেইন। ৯ ডিসেম্বর : বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন ৭টি (সাত) প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে একসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রামের সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর অনুষ্ঠান। ১৩ ডিসেম্বর : সার্ভিস ইনোভেশন ফান্ডের ৬ষ্ঠ পর্বে এটুআই-এর সঙ্গে ৩০টি প্রতিষ্ঠানের চুক্তি স্বাক্ষর সম্পন্ন। ৬ষ্ঠ পর্বে ২৪০টি উদ্ভাবনী আইডিয়া থেকে যাচাই-বছাই শেষে ৩০টি উদ্ভাবনী আইডিয়া পাইলট বাস্তবায়নের লক্ষ্যে নির্বাচিত করা হয়। নির্বাচিত প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে ৮টি সরকারি, ১০টি বেসরকারি, ২টি এনজিও, ২টি বিশ্ববিদ্যালয় এবং ৮টি ব্যক্তি পর্যায়ের প্রকল্প রয়েছে। প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য অনুদান হিসেবে প্রায় ৬ কোটি টাকা কিস্তি আকারে প্রকল্পগুলো বরাবর প্রদান করা হবে। ২২ ডিসেম্বর : হিউম্যান ডেভেলপমেন্ট মিডিয়া লোগো কম্পিটিশন। গণমাধ্যম ব্যবহার করে সাধারণ মানুষকে উন্নয়ন প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত করে টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করতে কাজ করবে হিউম্যান ডেভেলপমেন্ট মিডিয়া বা এইচডি মিডিয়া। এইচডি মিডিয়ার লোগো তৈরির জন্য এটুআই আয়োজন করেছে HDM Logo Design Competition ‘সৃষ্টি সুখের উল্লাসে’। আগামী ৬ জানুয়ারি ২০১৬-এর মধ্যে লোগো জমা দেয়া যাবে। -এম মিজানুর রহমান সোহেল  

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০