¦
কর্মী নিয়োগের পাঁচ পথ

মিল্লাত হোসেন | প্রকাশ : ১৬ এপ্রিল ২০১৫

মুঠোফোন সেটে ইন্টারনেট সেবার পথ যত প্রশস্ত হচ্ছে, ততই কমছে ডেস্কটপ আর ল্যাপটপ কম্পিউটার নির্ভরতা। আজকাল অনেক প্রতিষ্ঠানই কর্মী নিয়োগ প্রক্রিয়া মুঠোফোনেই করে থাকে। যারা এ প্রক্রিয়ার বাইরে আছেন, তারা মেধাবীদের নিয়োগ দিতে ব্যর্থ হন। কারণ বেকারদের ৭০ শতাংশ চাকরির সন্ধানে মুঠোফোন ঘাটাঘাটি করেন। চাকরিজীবীদের ৮১ শতাংশ কাজ সারতে মুঠোফোনের আশ্রয় নেন। ‘জব’- শব্দ ইন্টারনেটে খোঁজাখুঁজিতে ২৩ শতাংশ মানুষ মুঠোফোন ব্যবহার করে থাকেন। এটা স্পষ্ট যে, জনবল নিয়োগ ও ব্যবস্থাপনায় নতুন ধারার বিকাশে এগিয়ে আছে মুঠোফোন। বড় বড় প্রতিষ্ঠানে এর মাধ্যমেই দক্ষ কর্মীদের নিয়োগ দিতে সক্ষম হয়। আসুন দেখে নেই মুঠোফোনে সেরা কর্মী বাছাইয়ের পাঁচটি পন্থা।
* সেরা ইন্টারফেসে বিনিয়োগ করুন
আপনার প্রতিষ্ঠানের পেশাবিষয়ক ওয়েবসাইট অবশ্যই মুঠোফোনে ব্যবহারের উপযোগী হতে হবে। এটা আপনার প্রতিষ্ঠানের অবস্থান ও সংস্কৃতি তুলে ধরবে। এতে আবেদনকারীরা শুরুতেই একটি ভালো ধারণা পাবে। কারণ অনেক চাকরিপ্রার্থী মুঠোফোন উপযোগী ইন্টারফেস থেকে প্রথমে আপনার প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে তথ্য নিবে। তাই আপনার প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইটের ইন্টারফেসটিকে আকর্ষণীয়, বস্তুনিষ্ঠ ও সহজবোধ্য করে নিন। এর জন্য চাকরির আবেদন অনেক অনেক বাড়বে।
* চাকরির আবেদন প্রক্রিয়া
চাকরির আবেদন প্রক্রিয়া এমনভাবে করতে হবে, যা একজন চাকরিপ্রার্থী সহজেই মুঠোফোনের মাধ্যমে করতে পারবেন। প্রার্থী সংগ্রহ ও যাচাইয়ের প্রাথমিক পর্যায়ে কোনো কঠোর প্রক্রিয়ায় না গিয়ে তুলনামূলক আকর্ষণীয় আবেদন প্রক্রিয়া রাখতে হবে। আরোপিত কোনো কিছু না করে, আপনার কর্মস্থলে সংস্কৃতির সঙ্গে মানানসই প্রক্রিয়া নিন। এতে পুরো নিয়োগ প্রক্রিয়া সহজ ও অংশগ্রহণমূলক হবে।
* সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের ব্যবহার
মানবসম্পদের বিশাল ভাণ্ডার হচ্ছে ইন্টারনেটভিত্তিক সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলো। আবার এগুলো চাকরির খবরা-খবরেও ভরপুর। এক ফেসবুকের সোশ্যাল জব পার্টনারশিপ এপ্লিকেশনে দুই মিলিয়ন চাকরির একটা দীর্ঘ তালিকা আছে। এখন যারা আইফোন ও অ্যানড্রয়েড ব্যবহার করেন, তাদের ৭০ শতাংশ নিয়মিত ফেসবুক ব্যবহার করেন। টুইটারের মাধ্যমেও চাকরির খবরগুলো দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। সবমিলিয়ে ইন্টারনেটভিত্তিক সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম চাকরিদাতা ও প্রার্থীর প্রাথমিক যোগাযোগের বড় এক মঞ্চ। তাই মেধাবী কর্মী সংগ্রহে এই মাধ্যম ব্যবহার জরুরি।
* মুঠোফোন টুলের ব্যবহার
গেম খেলা, ভিডিও দেখা ও বিভিন্ন পুরস্কার জেতার জন্য মুঠোফোন এখন কার্যকর ক্ষেত্র। এটা একই সঙ্গে মানুষকে যুক্ত করে, আবার একান্তে রাখে। তাই নিয়োগ প্রক্রিয়ায় মুঠোফোন টুল বড় একটি উৎস। এর জন্য সবচেয়ে উপযোগী মাধ্যম হতে পারে ভিডিও। চাকরি সম্পর্কিত এক হাজার শব্দের একটি বর্ণনা যদি ভিডিও করে আপনার প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইটে দিয়ে দেয়া হয়, তবে আবেদনকারীরা আগে থেকেই কাজটি সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা পাবেন। এতে আবেদনকারীর সংখ্যা বাড়বে, সেই নিশ্চয়তা দেয়া যায়।
* মুঠোফোনের সীমাবদ্ধতা
নিয়োগ বিষয়ক প্রচার ও যোগাযোগ প্রক্রিয়ায় মুঠোফোনের ব্যবহারে প্রতিষ্ঠানের তেমন কোনো খরচ নেই। কিন্তু এর ওপর নির্ভর করে কাউকে চূড়ান্ত নিয়োগ দেয়া ঠিক হবে না। যাচাই-বাছাইয়ের জন্য একজন আবেদন প্রার্থীকে অবশ্যই প্রতিষ্ঠানে ডেকে আনতে হবে। কারণ সরাসরি কথা না হলে তার দক্ষতা সম্পর্কে পুরোপুরি জানা যাবে না। তাই নিয়োগ প্রক্রিয়ায় মুঠোফোনকে একটি সহায়তাকারী মাধ্যম হিসেবে ভাবতে হবে, মুঠোফোন যোগাযোগের ওপর পুরোটা নির্ভর করা যাবে না।
ব্যবহারকারীর সংখ্যা বলুন, আর সেবার পরিধি বলুন, সবদিক দিয়েই মুঠোফোনের গতি ঊর্ধ্বমুখী। এটা দারুণ এক প্রযুক্তি, তাই লাখো-কোটি মানুষের দিনযাপনের অন্যতম অনুষঙ্গ এখন মুঠোফোন। এর মাধ্যমে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে গিয়ে কর্মী যাচাই-বাছাইয়ের প্রচলিত কিছু কৌশল বাদ দিলে হবে না। তবে দক্ষ কর্মী নিয়োগে প্রতিষ্ঠানের চাহিদা সবার আগে বুঝতে হবে। আর সেই চাহিদার বিপরীতে সত্যিকারের মেধাবী খুঁজতে হবে। এভাবেই একটি প্রতিষ্ঠান উন্নতির দিকে এগিয়ে যাবে। ফোর্বস অবলম্বনে
 

চাকরির খোঁজ পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close