¦
বন্দুকযুদ্ধে রাজধানীতে শিবির নেতাসহ তিন জেলায় নিহত ৩

যুগান্তর ডেস্ক | প্রকাশ : ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৫

রাজধানীতে নিখোঁজ শিবির নেতা জসিম উদ্দিন পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন। রোববার ভোরে রাজধানীর শেরেবাংলা নগর এলাকার তালতলা নতুন রাস্তা থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। পুলিশ বলছে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে জসিম। অন্যদিকে পরিবার ও শিবিরের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে জসিমকে আটকের পর পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে। এদিকে কুমিল্লায় পুলিশের সঙ্গে ও যশোরে র‌্যাবের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে দুজন নিহত হয়েছে। তারা যুবলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিল বলে জানা গেছে।
রাজধানীতে শিবির নেতা নিহতের ব্যাপারে শেরেবাংলা নগর থানার ওসি গণেশ গোপাল বিশ্বাস স্বাক্ষরিত একটি প্রতিবেদন পাঠানো হয় সংবাদমাধ্যমে। এতে বলা হয়, শনিবার সকালে শেরেবাংলা নগর থানাধীন শিশু মেলা ক্রসিং সংলগ্ন ট্রাফিক বক্সের সামনে কর্তবর‌্যত সার্জেন্ট গোলাম মাওলার ওপর ককটেল নিক্ষেপ করা হয়। এ সময় পুলিশ আবদুল্লাহ, বায়েজিদ, সজিব, শাহাদাত, ইসমাইল ও জসিমসহ ৬ জনকে আটক করে। পরে গভীর রাতে জসিমকে নিয়ে অভিযানে গেলে সন্ত্রাসীরা গুলি চালায়। একপর্যায় সন্ত্রাসীরা পুলিশের হাত থেকে জসিমকে ছিনিয়ে নেয়। এর কিছুক্ষণ পর খোঁজ নিয়ে দেখা যায় জসিম গুলিবিদ্ধ অবস্থায় তালতলা নতুন রাস্তায় পড়ে আছে। এসআই আবদুর রউফ গুলিবিদ্ধ জসিমকে হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় ডিবির এসআই রশিদুল হক জখম হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে দুটি অবিস্ফোরিত তাজা ককটেল ও চারটি পেট্রলবোমা উদ্ধার করা হয়।
জসিমের পরিবার বলেছে, শনিবার মোবাইল ফোনে জানানো হয়েছিল, জসিম আটক রয়েছে থানায়। এরপর শেরেবাংলা নগর থানাসহ আশপাশের সব থানায় খোঁজ নিয়ে কোথাও তাকে পাওয়া যায়নি। রোববার আবারও শেরেবাংলা নগর থানায় পরিবারের সদস্যরা খোঁজ করতে গেলে পুলিশের পক্ষে বলা হয়, একটি লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে গিয়ে জসিমের লাশ শনাক্ত করে তার পরিবার। এর আগে শনিবার বিবৃতিতে ছাত্রশিবির জানায়, সকালে বাসায় ফেরার পথে শেরেবাংলা নগর থানা পুলিশ রাজধানীর শ্যামলীতে লেগুনা গাড়ি থেকে শিবির নেতা ও কাজীপাড়া মাদ্রাসার ছাত্র জসিম উদ্দিন, ঢাকা পলিটেকনিকের প্রথম বর্ষের ছাত্র সজিব, ঢাকা সিটি কলেজের ছাত্র আবদুল মান্নান ও আবদুল্লাহকে আটক করেছে। কিন্তু থানা পুলিশ আটকের বিষয়টি অস্বীকার করছে।
কুমিল্লা জেলা প্রতিনিধি জানান, পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে শীর্ষ সন্ত্রসী স্বপন (৩৯) নিহত হয়েছে। শনিবার দিবাগত রাত আড়াইটার কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলার সুয়াগাজীর ভাটপাড়ায় এলাকায় এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পর পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি পিস্তলসহ কয়েক রাউন্ড গুলি উদ্ধার করেছে। রাত ৩টার পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। নিহত স্বপন কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলার পদুয়ারবাজার বিশ্বরোড এলাকার উত্তর রামপুর গ্রামের আবদুল কাইউম ওরফে কালা মিয়ার ছেলে।
এলাকাবাসী জানিয়েছেন, স্বপন বিভিন্ন দলের রাজনৈতিক দলের ছত্রছায়ায় ছিলেন। বর্তমানে তিনি যুবলীগের সঙ্গে জড়িত ছিলেন বলে এলাকাবাসী জানিয়েছেন। তার বিরুদ্ধে যুবলীগ নেতা মোস্তাক হত্যাসহ ২৮টি মামলা রয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।
যশোর ব্যুরো জানায়, যশোরে র‌্যাবের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে রাজু নামে এক চিহ্নিত সন্ত্রাসী নিহত হয়েছে। শনিবার দিবাগত রাত ১টার দিকে যশোর-খুলনা মহাসড়কের মুড়লি রেলক্রসিং এলাকার ইশমাম পেট্রল পাম্পের কাছে ওই বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। রাজুর বিরুদ্ধে একাধিক হত্যাসহ মোট ৬টি মামলা রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। সে শহরের গাড়িখানা সড়কের আজিবর রহমানের ছেলে। তিনি যুবলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন বলে জানা গেছে।
র‌্যাব-৬ যশোর ক্যাম্পের অধিনায়ক মেজর আশরাফ উদ্দিন জানান, শনিবার রাত ৯টার দিকে শহরের গাড়িখানা এলাকা থেকে চিহ্নিত সন্ত্রাসী রাজু ওরফে ভাইপো রাজুকে আটক করে র‌্যার। রাত ১টার দিকে তারা রাজুকে নিয়ে যশোর-খুলনা মহাসড়কের মুড়লি মোড় এলাকার ইশমাম পেট্রল পাম্পের পাশে অবস্থিত একটি ইটভাটার কাছে যান। এ সময় রাজুর সহযোগীরা র‌্যাবকে লক্ষ্র করে গুলি ছুড়তে শুরু করে। পরে রাজুকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। এ সময় একটি বিদেশী রিভলবার, একটি পিস্তল, দুটি দেশী অস্ত্র ও কিছু মাদকদ্রব্য উদ্ধার করা হয়েছে। রাজুকে উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
শেষ পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close