¦
নেত্রকোনায় পাঁচ জনের মৃত্যুদণ্ড

নেত্রকোনা প্রতিনিধি | প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৫

১৫ বছরের এক কিশোরীকে গণধর্ষণের দায়ে ৫ ধর্ষককে মৃত্যুদণ্ড এবং একজনকে খালাস দিয়েছেন নেত্রকোনা আদালত। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতের বিচারক ড. একেএম আবুল কাশেম বুধবার দুপুরে আদালতে আসামিদের উপস্থিতিতে এ রায় দেন। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন জেলার পূর্বধলা উপজেলার কালডোয়ার গ্রামের শামীম (৩৫), ভিকন রংদি (১৭), তার বড় ভাই টিকন রংদি (২০), তাপস শেমা (১৮) ও রূপ মিয়া (পলাতক) । খালাস পাওয়া আসামি হচ্ছেন এখলাছ (২৮)।
আদালত সূত্রে জানা যায়, নেত্রকোনা সদর উপজেলার বাহাদুরপুর গ্রামের ওই কিশোরী বর্তমানে দুর্গাপুর উপজেলার কালিকাবর গ্রামে বসবাস করে আসছিল। ২০০২ সালের ২০ জুলাই ওই কিশোরী তার মা ও বোন জামাইয়ের সঙ্গে রিকশাযোগে বোন জামাইয়ের বাড়ি পূর্বধলা উপজেলার সাতপাটি গ্রামে বেড়াতে যাচ্ছিল। পথে রাত ১১টার দিকে কুমারখালী নামক স্থানে পৌঁছলে ৫ দুর্বৃত্ত ধারালো অস্ত্র উঁচিয়ে তাদের রিকশার গতিরোধ করে ভয় দেখিয়ে কিশোরীকে ছিনিয়ে নিয়ে পাশের জঙ্গলের একটি ঘরে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। পরে টহল পুলিশ এসে কিশোরীকে উদ্ধার করে। কিশোরী নিজেই বাদী হয়ে পরদিন পূর্বধলা থানায় ৬ জনকে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করে। পুলিশ তদন্ত শেষে ৮ নভেম্বর আসামিদের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করে। বিচারক ১২ সাক্ষীর সাক্ষ্য নেয়ার পর বুধবার আসামি শামীম, ভিকন, টিকন, তাপস ও রূপ মিয়ার বিরুদ্ধে অপরাধ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হওয়ায় তাদের প্রত্যেককে মৃত্যুদণ্ড এবং ২৫ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ড দেন। মামলার অপর আসামি এখলাছের বিরুদ্ধে অপরাধ প্রমাণিত না হওয়ায় তাকে বেকসুর খালা দেয়া হয়। রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন অতিরিক্ত পিপি সাইফুল আলম প্রদীপ এবং আসামিপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন অ্যাডভোকেট সুভাষ বণিক অজয় ও সমীর জোয়ার্দার বকুল।
শেষ পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close