¦
রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন প্রধানমন্ত্রী

খুলনা ব্যুরো/সিরাজগঞ্জ/শাহজাদপুর প্রতিনিধি | প্রকাশ : ০৮ মে ২০১৫

আজ শুক্রবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের স্মৃতিবিজড়িত সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে আসছেন। বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৫৪তম জন্মজয়ন্তীর জাতীয় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে তিনি শাহজাদপুরে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনসহ পাঁচটি প্রতিষ্ঠানের উদ্বোধন করবেন।
প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে শাহজাদপুরে সাজ সাজ রব বিরাজ করছে। তাকে স্বাগত জানাতে নগরবাড়ি-বগুড়া মহাসড়কে এবং পৌর শহরে ১৪২টি বড় বড় তোরণ নির্মাণ করা হয়েছে। মহাসড়কসহ অভ্যন্তরীণ সড়কগুলো প্রধানমন্ত্রী, রবীন্দ্রনাথসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ব্যক্তির ছবিসংবলিত হাজার হাজার ব্যানার-ফেস্টুন দিয়ে সাজানো হয়েছে। পুরো পৌর শহরের সড়কে আলোকসজ্জা করা হয়েছে। শাহজাদপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে নির্মাণ করা হয়েছে বিশাল প্যান্ডেল। এ প্যান্ডেলে ১০ হাজার মানুষের বসার ব্যবস্থাও করা হয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে খানা-খন্দে ভরা দিলরুবা বাসস্ট্যান্ড থেকে থানাঘাট পর্যন্ত সড়কটির মেরামতকাজ সম্পন্ন হয়েছে। পৌর শহরের সব বাড়িঘর-স্থাপনা নিজ উদ্যোগে রং করা হয়েছে। এটি রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠান হলেও বৃহত্তম জনসমাবেশ করার লক্ষ্যে স্থানীয় আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে গত এক সপ্তাহ ধরে ব্যাপক প্রচার চালানো হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশের ভিত্তিপ্রস্তর এবং নবনির্মিত সিরাজগঞ্জ আঞ্চলিক পাসপোর্ট কার্যালয়, সিরাজগঞ্জ ৭৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্রের সম্প্রসারিত কার্যক্রম, ইন্সটিটিউট অব মেরিন টেকনোলজি, সিরাজগঞ্জ জেলা রেজিস্ট্রারের কার্যালয় ও শেখ রাসেল পৌর শিশুপার্ক- এই পাঁচটি প্রতিষ্ঠানের উদ্বোধনী ফলক ওই মাঠ চত্বরে নির্মাণ করা হয়েছে।
এ উপলক্ষে শাহজাদপুরে জাতীয় পর্যায়ের তিন দিনব্যাপী নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। ২৫, ২৬ ও ২৭ বৈশাখ (৮, ৯ ও ১০ মে) শাহজাদপুরে তিন দিনব্যাপী নাটক, গীতি আলেখ্য, সঙ্গীতানুষ্ঠান, আবৃত্তি, আলোচনা, প্রবন্ধ পাঠ বৈশাখী মেলা প্রভৃতি অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করা হয়েছে। এখন কুঠিবাড়িসহ আশপাশে চলছে ধোয়া-মোছার কাজ। সে সঙ্গে শাহজাদপুরে অনুষ্ঠিত হবে তিন দিনব্যাপী রবীন্দ্র মেলা।
জানা যায়, বিগত ১৯৯২ সালে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জন্মজয়ন্তী জাতীয়ভাবে অয়োজিত অনুষ্ঠানে যোগদান করেছিলেন। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের সাংস্কৃতিক মন্ত্রণালয় রবীন্দ্র স্মৃতিবিজড়িত শাহজাদপুরে এবার জাতীয় অনুষ্ঠানের আয়োজন করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যোগ দিচ্ছেন। ১২ বছর আগে তিনি একটি বেসরকারি বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ও জনসভায় শাহজাদপুরের বাঘাবাড়িতে এসেছিলেন। প্রধানমন্ত্রীর এই আগমনে শাহজাদপুরবাসী উল্লসিত হয়ে পড়েছেন। প্রধানমন্ত্রী হেলিকপ্টারযোগে সকাল সাড়ে ৯টায় গঙ্গাপ্রসাদ এলাকায় অবতরণ করার পর সড়কপথে শাহজাদপুর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আসবেন। ১০টার সময় ভিত্তিপ্রস্তর ও উদ্বোধনী ফলক উন্মোচনের পর রবীন্দ্র জন্মজয়ন্তী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেবেন। এরপর বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তিনি ঢাকার উদ্দেশে রওনা হবেন।
খুলনার রবীন্দ্র কমপ্লেক্স ২০ বছরেও পূর্ণাঙ্গ হয়নি : খুলনার ফুলতলার দক্ষিণডিহিতে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের শ্বশুরবাড়ি ঘিরে ‘দক্ষিণডিহি রবীন্দ্র কমপ্লেক্স ভবন’ গড়ে উঠলেও প্রায় ২০ বছরেও পূর্ণাঙ্গ রূপ পায়নি। ভগ্নদশায় থাকা দ্বিতল ভবনটি আগের আদলে ফেরাতে উল্লেখযোগ্য মেরামত হয়নি। সীমানাপ্রাচীর তৈরি ও কমপ্লেক্স ভবনের অন্যান্য কার্যক্রমও হয়নি।
বিভিন্ন সময়ে এর উন্নয়নে সরকারের দেয়া আশ্বাসের কোনো বাস্তবায়ন নেই। ফলে সংস্কারের অভাবে বাড়ির দ্বিতল ভবনের ইট, কাঠ আনুষঙ্গিক জিনিসপত্র এখন ভগ্নদশায় রয়েছে। নেই রবীন্দ্র সংগ্রহশালাও। গড়ে উঠেনি লাইব্রেরি। দোতলায় রেলিং না থাকায় দর্শকদের চলাচলে ঝুঁকি থাকে। ভবনে ফাটল রয়েছে। নেই নিরাপত্তা ব্যবস্থা। অবহেলা আর অব্যবস্থাপনার মধ্যেই ভবনটি কালের সাক্ষী হয়ে আজও সমহিমায় দাঁড়িয়ে আছে। আজ ২৫ বৈশাখ এখানে বসবে তিন দিনব্যাপী উৎসব। হবে আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং লোকমেলা।
প্রত্নতত্ত্ব অধিদফতরের খুলনা আঞ্চলিক (খুলনা ও বরিশাল বিভাগীয়) পরিচালক মো. আমিরুজ্জামান বলেন, ইতিপূর্বে গৃহীত প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। নতুন করে প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। প্রোগ্রাম প্রোগ্রেস নন-ডেভেলপমেন্ট বাজেট (পিপিএনবি) প্রকল্পের আওতায় দক্ষিণডিহি রবীন্দ্র কমপ্লেক্সের উন্নয়ন, সংস্কার ও সংরক্ষণের জন্য নতুন বরাদ্দ হচ্ছে। এ প্রকল্পে ৩.৭৩ একর জমির সীমানায় আরসিসি গ্রিল প্রাচীর, প্রতœতাত্ত্বিক সংস্কার সংরক্ষণ, রবীন্দ্রনাথের ওপর ডকুমেন্টারি তৈরি, রবীন্দ্রনাথের ওপর বইয়ের সংগ্রহ ও লাইব্রেরি গড়ে তোলা, কমপ্লেক্সে দর্শক বহির্গমনের জন্য এক্সটারনাল সিঁড়ি সংযোজন, দোতলায় রেলিং দেয়া, ভবনের ফাটল নিরসন, স্থায়ী টিকিট কাউন্টার, কমপ্লেক্সের ওপর ব্র“শিয়ার তৈরি করা হবে। যা ২০১৭ সালের মধ্যে সম্পন্ন হবে। তিনি বলেন, নিরাপত্তার জন্য রাজস্ব খাত থেকে আনসার শেড স্থাপন ও ১০ জন আনসার নিযুক্ত করার পরিকল্পনা রয়েছে। তিনি বলেন, রবীন্দ্র কমপ্লেক্সের জন্য কোনো জনবল না থাকার পরও মাস্টাররোলে ৪ জন ও প্রেষণে ২ জনকে দায়িত্বে রাখা হয়েছে।
 

শেষ পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close