jugantor
একই যোগ্যতায় নিয়োগে অভিন্ন বিধিমালা হচ্ছে
শিগগিরই উঠছে সচিব কমিটিতে

  উবায়দুল্লাহ বাদল  

১০ ডিসেম্বর ২০১৫, ০০:০০:০০  | 

বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও সরকারি দফতরের তৃতীয় এবেং চতুর্থ শ্রেণীর পদে (নিুমান সহকারী, সাঁটলিপিকার, অফিস সহকারী, ডেসপাস রাইডার, দফতরি ও এমএলএসএস ইত্যাদি) জনবল নিয়োগে অভিন্ন বিধিমালা হচ্ছে। বর্তমানে এসব পদের জন্য ভিন্ন ভিন্ন নিয়োগবিধি রয়েছে- যা একটির সঙ্গে অন্যটির মিল নেই, সামঞ্জস্যহীন। এতে বিভিন্ন সংস্থায় একই সময়ে একই পদে নিয়োগ পাওয়া ব্যক্তির চাকরি স্থায়ীকরণ, নিয়মিতকরণ এবং পদোন্নতিতে নানা জটিলতার সৃষ্টি হচ্ছে। এই জটিলতা দূর করতে ‘মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও এর সংযুক্ত অধিদফতর, পরিদফতর, দফতর এবং সংবিধিবদ্ধ সংস্থা ও কর্পোরেশনের কমন পদের নিয়োগ বিধিমালা, ২০১৫’ চূড়ান্ত করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। প্রস্তাবিত বিধিমালাটি ২০ ডিসেম্বর প্রশাসনিক উন্নয়নসংক্রান্ত সচিব কমিটিতে উপস্থাপন করা হতে পারে। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে এসব তথ্য।

জানতে চাইলে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিবের চলতি দায়িত্বে থাকা অতিরিক্ত সচিব মো. ইব্রাহিম হোসেন খান যুগান্তরকে বলেন, সরকারি চাকরিতে একই ধরনের পদের নিয়োগের যোগ্যতা অভিন্ন করা হচ্ছে। বর্তমানে একই পদের নিয়োগে আলাদা বিধিমালা থাকায় নানা ধরনের প্রশাসনিক জটিলতা পোহাতে হচ্ছে। এসব জটিলতা দূর করতে কমন পদের অভিন্ন নিয়োগ বিধিমালা প্রণয়ন করছে সরকার। অনুমোদনের জন্য প্রস্তাবটি প্রশাসনিক উন্নয়নসংক্রান্ত সচিব কমিটিতে পাঠানো হয়েছে।

জানা গেছে, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও সংযুক্ত অধিদফতরের কমন ক্যাটাগরির পদের আলাদা একাধিক নিয়োগ বিধিমালা রয়েছে। বর্তমানে এ সংক্রান্ত ৫টি বিধিমালা ছাড়াও সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের অফিস স্বারক/পরিপত্রও রয়েছে। এসব পদের নাম ও বেতন স্কেল একই হলেও কোনো কোনো ক্ষেত্রে নিয়োগ পদ্ধতি ও শিক্ষাগত যোগ্যতার ভিন্নতা রয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা বলেন, রাজউকে ইউডি পদে ৮ বছর চাকরি করলে অফিস সুপার পদে পদোন্নতি পাওয়া যায়। একই পদে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরে ১২ বছর চাকরি করার পর ওই পদে পদোন্নতি পাওয়া যায়। এ ধরনের নজির রয়েছে বহু সরকারি দফতরে। আর এসব নিয়ে বিশৃংখলার পাশাপাশি সরকারের বিরুদ্ধে অসংখ্য মামলা হচ্ছে। ভবিষ্যতে এ ধরনের অনাকাঙ্ক্ষিত ঝামেলা এড়াতে কমন পদের জন্য অভিন্ন নিয়োগ বিধিমালা প্রণয়নের উদ্যোগ নেয়া হয়। এ লক্ষ্যে ২০১৩ সালের ১৪ জানুয়ারি একটি কমিটি গঠন করে সরকার। কমিটি কয়েক দফায় বৈঠক করে বিধিমালার খসড়া চূড়ান্ত করেছে, যা অনুমোদনের জন্য সচিব কমিটিতে পাঠানো হয়েছে।

সচিব কমিটির প্রস্তাবে বলা হয়, সরকারি বিভিন্ন দফতরের কমন পদের মধ্যে রয়েছে নিুমান সহকারী, প্লেইন পেপার কপিয়ার, ডুপ্লিকেটিং মেশিন অপারেটর, সাঁটলিপিকার, সাঁটমুদ্রাক্ষরিক, অফিস সহকারী কাম মুদ্রাক্ষরিক, মুদ্রাক্ষরিক কাম অফিস সহকারী, ডেসপাস রাইডার, দফতরি ও এমএলএসএস। সচিবালয়ে উল্লিখিত পদের জন্য বিশেষ নিয়োগ বিধিমালা ২০১০ অনুসরণ করা হয়। এছাড়া সচিবালয়ের ভেতরের ক্যাডারবহির্ভূত গেজেটেড কর্মকর্তা ও নন-গেজেটেড কর্মচারী নিয়োগ বিধিমালা ২০১৪ অনুসরণ করা হয়। এক সংস্থার নিয়োগবিধির সঙ্গে অন্য সংস্থার নিয়োগবিধির কোনো মিল নেই। বরং বিপরীতধর্মী। ফলে বিভিন্ন সংস্থায় একই সময়ে একই পদে নিয়োগ পাওয়া ব্যক্তির চাকরি স্থায়ীকরণ, নিয়মিতকরণ এবং পদোন্নতিতে কেউ এগিয়ে কেউবা পিছিয়ে পড়ছেন। ব্রিটিশ আমলের বেশ কিছু পদের নাম ও পদবি পরিবর্তন হওয়ায় কোনো কোনো ক্ষেত্রে জটিলতার সৃষ্টি হয়েছে বলে প্রস্তাবে উল্লেখ করা হয়। উদাহরণ দিয়ে বলা হয়, গত বছরের ৪ ফেব্রুয়ারি এক পরিপত্রে এমএলএসএস এবং দফতরি উভয় পদকে ‘অফিস সহায়ক’ পদে পরিবর্তন করা হয়। কিন্তু দফতরি পদের বেতন স্কেল উচ্চতর হওয়ায় প্রস্তাবিত নিয়োগ বিধিমালায় পদটিকে ‘অফিস সহায়ক (উচ্চ স্কেল) হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।


 

সাবমিট

একই যোগ্যতায় নিয়োগে অভিন্ন বিধিমালা হচ্ছে

শিগগিরই উঠছে সচিব কমিটিতে
 উবায়দুল্লাহ বাদল 
১০ ডিসেম্বর ২০১৫, ১২:০০ এএম  | 

বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও সরকারি দফতরের তৃতীয় এবেং চতুর্থ শ্রেণীর পদে (নিুমান সহকারী, সাঁটলিপিকার, অফিস সহকারী, ডেসপাস রাইডার, দফতরি ও এমএলএসএস ইত্যাদি) জনবল নিয়োগে অভিন্ন বিধিমালা হচ্ছে। বর্তমানে এসব পদের জন্য ভিন্ন ভিন্ন নিয়োগবিধি রয়েছে- যা একটির সঙ্গে অন্যটির মিল নেই, সামঞ্জস্যহীন। এতে বিভিন্ন সংস্থায় একই সময়ে একই পদে নিয়োগ পাওয়া ব্যক্তির চাকরি স্থায়ীকরণ, নিয়মিতকরণ এবং পদোন্নতিতে নানা জটিলতার সৃষ্টি হচ্ছে। এই জটিলতা দূর করতে ‘মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও এর সংযুক্ত অধিদফতর, পরিদফতর, দফতর এবং সংবিধিবদ্ধ সংস্থা ও কর্পোরেশনের কমন পদের নিয়োগ বিধিমালা, ২০১৫’ চূড়ান্ত করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। প্রস্তাবিত বিধিমালাটি ২০ ডিসেম্বর প্রশাসনিক উন্নয়নসংক্রান্ত সচিব কমিটিতে উপস্থাপন করা হতে পারে। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে এসব তথ্য।

জানতে চাইলে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিবের চলতি দায়িত্বে থাকা অতিরিক্ত সচিব মো. ইব্রাহিম হোসেন খান যুগান্তরকে বলেন, সরকারি চাকরিতে একই ধরনের পদের নিয়োগের যোগ্যতা অভিন্ন করা হচ্ছে। বর্তমানে একই পদের নিয়োগে আলাদা বিধিমালা থাকায় নানা ধরনের প্রশাসনিক জটিলতা পোহাতে হচ্ছে। এসব জটিলতা দূর করতে কমন পদের অভিন্ন নিয়োগ বিধিমালা প্রণয়ন করছে সরকার। অনুমোদনের জন্য প্রস্তাবটি প্রশাসনিক উন্নয়নসংক্রান্ত সচিব কমিটিতে পাঠানো হয়েছে।

জানা গেছে, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়/বিভাগ ও সংযুক্ত অধিদফতরের কমন ক্যাটাগরির পদের আলাদা একাধিক নিয়োগ বিধিমালা রয়েছে। বর্তমানে এ সংক্রান্ত ৫টি বিধিমালা ছাড়াও সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের অফিস স্বারক/পরিপত্রও রয়েছে। এসব পদের নাম ও বেতন স্কেল একই হলেও কোনো কোনো ক্ষেত্রে নিয়োগ পদ্ধতি ও শিক্ষাগত যোগ্যতার ভিন্নতা রয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা বলেন, রাজউকে ইউডি পদে ৮ বছর চাকরি করলে অফিস সুপার পদে পদোন্নতি পাওয়া যায়। একই পদে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরে ১২ বছর চাকরি করার পর ওই পদে পদোন্নতি পাওয়া যায়। এ ধরনের নজির রয়েছে বহু সরকারি দফতরে। আর এসব নিয়ে বিশৃংখলার পাশাপাশি সরকারের বিরুদ্ধে অসংখ্য মামলা হচ্ছে। ভবিষ্যতে এ ধরনের অনাকাঙ্ক্ষিত ঝামেলা এড়াতে কমন পদের জন্য অভিন্ন নিয়োগ বিধিমালা প্রণয়নের উদ্যোগ নেয়া হয়। এ লক্ষ্যে ২০১৩ সালের ১৪ জানুয়ারি একটি কমিটি গঠন করে সরকার। কমিটি কয়েক দফায় বৈঠক করে বিধিমালার খসড়া চূড়ান্ত করেছে, যা অনুমোদনের জন্য সচিব কমিটিতে পাঠানো হয়েছে।

সচিব কমিটির প্রস্তাবে বলা হয়, সরকারি বিভিন্ন দফতরের কমন পদের মধ্যে রয়েছে নিুমান সহকারী, প্লেইন পেপার কপিয়ার, ডুপ্লিকেটিং মেশিন অপারেটর, সাঁটলিপিকার, সাঁটমুদ্রাক্ষরিক, অফিস সহকারী কাম মুদ্রাক্ষরিক, মুদ্রাক্ষরিক কাম অফিস সহকারী, ডেসপাস রাইডার, দফতরি ও এমএলএসএস। সচিবালয়ে উল্লিখিত পদের জন্য বিশেষ নিয়োগ বিধিমালা ২০১০ অনুসরণ করা হয়। এছাড়া সচিবালয়ের ভেতরের ক্যাডারবহির্ভূত গেজেটেড কর্মকর্তা ও নন-গেজেটেড কর্মচারী নিয়োগ বিধিমালা ২০১৪ অনুসরণ করা হয়। এক সংস্থার নিয়োগবিধির সঙ্গে অন্য সংস্থার নিয়োগবিধির কোনো মিল নেই। বরং বিপরীতধর্মী। ফলে বিভিন্ন সংস্থায় একই সময়ে একই পদে নিয়োগ পাওয়া ব্যক্তির চাকরি স্থায়ীকরণ, নিয়মিতকরণ এবং পদোন্নতিতে কেউ এগিয়ে কেউবা পিছিয়ে পড়ছেন। ব্রিটিশ আমলের বেশ কিছু পদের নাম ও পদবি পরিবর্তন হওয়ায় কোনো কোনো ক্ষেত্রে জটিলতার সৃষ্টি হয়েছে বলে প্রস্তাবে উল্লেখ করা হয়। উদাহরণ দিয়ে বলা হয়, গত বছরের ৪ ফেব্রুয়ারি এক পরিপত্রে এমএলএসএস এবং দফতরি উভয় পদকে ‘অফিস সহায়ক’ পদে পরিবর্তন করা হয়। কিন্তু দফতরি পদের বেতন স্কেল উচ্চতর হওয়ায় প্রস্তাবিত নিয়োগ বিধিমালায় পদটিকে ‘অফিস সহায়ক (উচ্চ স্কেল) হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।


 

 
শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র