jugantor
নেত্রকোনায় সুবিধাজনক অবস্থানে আ’লীগ : বিএনপিও আশাবাদী

  নেত্রকোনা প্রতিনিধি  

১০ ডিসেম্বর ২০১৫, ০০:০০:০০  | 

নেত্রকোনা পৌরসভায় সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক নজরুল ইসলাম খান। অন্যদিকে বিএনপির মনোনীত প্রার্র্থী জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম মনিরুজ্জামান দুদুও নিজের জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী। তবে হামলা ও গ্রেফতারের আশংকায় অসংখ্য বিএনপি নেতাকর্মী নিজেদের নির্বাচনী কাজ থেকে দূরে রেখেছেন। আসন্ন পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন দেয়া হয়েছে পৌরসভার প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান মরহুম আব্বাছ আলী খানের ছেলে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম খানকে। পৌর শহরে এই আওয়ামী পরিবারটির রাজনৈতিক ঐতিহ্য দীর্ঘদিনের। আওয়ামী লীগ প্রার্থী নজরুল ইসলাম খান বিগত নির্বাচনে জয়ী হন। তিনি পৌরসভার রাস্তা প্রশস্তকরণ, নাগড়া-মসজিদ কোয়াটার সেতুবন্ধনে মগড়া নদীর ওপর পাকা ব্রিজ নির্মাণ, পৌর শহরে ফুটপাত নির্মাণ, ড্রেনেজ ব্যবস্থাসহ ব্যাপক উন্নয়নমূলক কাজের বাস্তবায়নের সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছেন। পৌর এলাকার ৯টি ওয়ার্ডে হিন্দু সম্প্র্রদায়ের ভোট রয়েছে প্রায় ১৮ হাজার। যা আওয়ামী লীগের পরীক্ষিত ভোট ব্যাংক। আসন্ন নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দল থেকে যোগ্য প্রার্থী হিসেবে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নৌকা প্রতীক পাওয়ায় বেশ সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন বলে স্থানীয় রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন। আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থীর দলীয় মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার সময় সঙ্গে ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জেলা পরিষদের প্রশাসক মতিয়র রহমান খান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক এমপি আশরাফ আলী খান খসরু, যুগ্ম সম্পাদক নুর খান মিঠুসহ সিনিয়র নেতারা। মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম খান বলেন, পৌরবাসী অতীতে আমাকে মেয়র হিসেবে বিশাল ভোটে জয়ী করেছে। আসন্ন নির্বাচনেও সাধারণ ভোটাররা এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে আমাকে কাজ করার সুযোগ দেবে বলে আশা করি। অন্যদিকে নির্বাচনের কয়েকদিন বাকি থাকলেও তৃনমূলে বিএনপির তেমন প্রচারণা নেই।



সাবমিট

নেত্রকোনায় সুবিধাজনক অবস্থানে আ’লীগ : বিএনপিও আশাবাদী

 নেত্রকোনা প্রতিনিধি 
১০ ডিসেম্বর ২০১৫, ১২:০০ এএম  | 
নেত্রকোনা পৌরসভায় সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক নজরুল ইসলাম খান। অন্যদিকে বিএনপির মনোনীত প্রার্র্থী জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম মনিরুজ্জামান দুদুও নিজের জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী। তবে হামলা ও গ্রেফতারের আশংকায় অসংখ্য বিএনপি নেতাকর্মী নিজেদের নির্বাচনী কাজ থেকে দূরে রেখেছেন। আসন্ন পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন দেয়া হয়েছে পৌরসভার প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান মরহুম আব্বাছ আলী খানের ছেলে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম খানকে। পৌর শহরে এই আওয়ামী পরিবারটির রাজনৈতিক ঐতিহ্য দীর্ঘদিনের। আওয়ামী লীগ প্রার্থী নজরুল ইসলাম খান বিগত নির্বাচনে জয়ী হন। তিনি পৌরসভার রাস্তা প্রশস্তকরণ, নাগড়া-মসজিদ কোয়াটার সেতুবন্ধনে মগড়া নদীর ওপর পাকা ব্রিজ নির্মাণ, পৌর শহরে ফুটপাত নির্মাণ, ড্রেনেজ ব্যবস্থাসহ ব্যাপক উন্নয়নমূলক কাজের বাস্তবায়নের সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছেন। পৌর এলাকার ৯টি ওয়ার্ডে হিন্দু সম্প্র্রদায়ের ভোট রয়েছে প্রায় ১৮ হাজার। যা আওয়ামী লীগের পরীক্ষিত ভোট ব্যাংক। আসন্ন নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দল থেকে যোগ্য প্রার্থী হিসেবে জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নৌকা প্রতীক পাওয়ায় বেশ সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন বলে স্থানীয় রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন। আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থীর দলীয় মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার সময় সঙ্গে ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জেলা পরিষদের প্রশাসক মতিয়র রহমান খান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক এমপি আশরাফ আলী খান খসরু, যুগ্ম সম্পাদক নুর খান মিঠুসহ সিনিয়র নেতারা। মেয়র প্রার্থী নজরুল ইসলাম খান বলেন, পৌরবাসী অতীতে আমাকে মেয়র হিসেবে বিশাল ভোটে জয়ী করেছে। আসন্ন নির্বাচনেও সাধারণ ভোটাররা এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে আমাকে কাজ করার সুযোগ দেবে বলে আশা করি। অন্যদিকে নির্বাচনের কয়েকদিন বাকি থাকলেও তৃনমূলে বিএনপির তেমন প্রচারণা নেই।



 
শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র