jugantor
খাগড়াছড়িতে স্বতন্ত্র প্রার্থীর আচরণবিধি লংঘন

  খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি  

১০ ডিসেম্বর ২০১৫, ০০:০০:০০  | 

খাগড়াছড়িতে প্রচারণার প্রথমদিনেই স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মো. রফিকুল আলম বিধিলংঘন করে শহরে বিশাল নির্বাচনী শোডাউন করেছে। বুধবার সকাল সাড়ে ১০টায় স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. রফিকুল আলমের নেতৃত্বে পানখাইয়া পাড়া বাসা থেকে শোডাউন বের করে শহরের বিভিন্ন সড়ক পদক্ষিণ করেন। শোডাউনে রফিকুল আলমের পক্ষে সমর্থকরা স্লোগান দেন। এ সময় শহরজুড়ে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। এদিকে স্বতন্ত্র প্রার্থীর নির্বাচনী আইন লংঘন করে প্রকাশ্যে শোডাউনে স্থানীয় প্রশাসনে তোলপাড় শুরু হয়েছে। প্রধান রাজনৈতিক দল বিএনপি ও আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা নির্বাচনী আচরণবিধি সুস্পষ্ট লংঘনের শাস্তি দাবি করেছেন। এদিকে বিএনপির প্রার্থী মো. আবদুল মালেক প্রেস ব্রিফিংয়ে অভিযোগ করেন, স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. রফিকুল আলম নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার পর থেকে নির্বাচনী আচরণবিধি লংঘন করে চলেছে। তিনি বলেন, বুধবার শহরে বিশাল শোডাউন করেন। এ ছাড়া তিনি নির্বাচনী কাজে, মেয়রের ক্ষমতার অপব্যবহার করে পৌরসভার সরকারি গাড়ি ব্যবহার, পৌরসভার কর্মকর্তা কর্মচারীদের তার নির্বাচনী কাজে ব্যবহার করছেন। খাগড়াছড়ি শালবাগান এলাকার ভোটার আছিয়া আক্তার জানান, রফিকের ক্যাডাররা ২০-২৫টি হোন্ডা নিয়ে এলাকায় বর্তমান মেয়রকে ভোট না দিলে প্রত্যেককে দেখে নেয়া হবে বলে হুমকি দিচ্ছেন।



সাবমিট

খাগড়াছড়িতে স্বতন্ত্র প্রার্থীর আচরণবিধি লংঘন

 খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি 
১০ ডিসেম্বর ২০১৫, ১২:০০ এএম  | 
খাগড়াছড়িতে প্রচারণার প্রথমদিনেই স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মো. রফিকুল আলম বিধিলংঘন করে শহরে বিশাল নির্বাচনী শোডাউন করেছে। বুধবার সকাল সাড়ে ১০টায় স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. রফিকুল আলমের নেতৃত্বে পানখাইয়া পাড়া বাসা থেকে শোডাউন বের করে শহরের বিভিন্ন সড়ক পদক্ষিণ করেন। শোডাউনে রফিকুল আলমের পক্ষে সমর্থকরা স্লোগান দেন। এ সময় শহরজুড়ে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়। এদিকে স্বতন্ত্র প্রার্থীর নির্বাচনী আইন লংঘন করে প্রকাশ্যে শোডাউনে স্থানীয় প্রশাসনে তোলপাড় শুরু হয়েছে। প্রধান রাজনৈতিক দল বিএনপি ও আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা নির্বাচনী আচরণবিধি সুস্পষ্ট লংঘনের শাস্তি দাবি করেছেন। এদিকে বিএনপির প্রার্থী মো. আবদুল মালেক প্রেস ব্রিফিংয়ে অভিযোগ করেন, স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. রফিকুল আলম নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার পর থেকে নির্বাচনী আচরণবিধি লংঘন করে চলেছে। তিনি বলেন, বুধবার শহরে বিশাল শোডাউন করেন। এ ছাড়া তিনি নির্বাচনী কাজে, মেয়রের ক্ষমতার অপব্যবহার করে পৌরসভার সরকারি গাড়ি ব্যবহার, পৌরসভার কর্মকর্তা কর্মচারীদের তার নির্বাচনী কাজে ব্যবহার করছেন। খাগড়াছড়ি শালবাগান এলাকার ভোটার আছিয়া আক্তার জানান, রফিকের ক্যাডাররা ২০-২৫টি হোন্ডা নিয়ে এলাকায় বর্তমান মেয়রকে ভোট না দিলে প্রত্যেককে দেখে নেয়া হবে বলে হুমকি দিচ্ছেন।



 
শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র