¦
অবৈধ ক্ষমতা রক্ষায় রাষ্ট্রীয় বাহিনীকে ব্যবহার করা হচ্ছে

যুগান্তর রিপোর্ট | প্রকাশ : ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৫

জনগণের ভোটাধিকার কেড়ে নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতাহীন এক নির্বাচনী প্রহসনে ক্ষমতাসীন বর্তমান অবৈধ সরকার গণতন্ত্র হত্যা করেছে বলে অভিযোগ করেছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট। শুক্রবার এক বিবৃতিতে বলা হয়, তারা এখন মানুষের সব অধিকার কেড়ে নিয়ে দমন-পীড়ন ও হত্যা-রক্তপাতের মাধ্যমে ক্ষমতায় টিকে থাকতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। গণবিচ্ছিন্ন শাসকগোষ্ঠী এ আইনশৃংখলা রক্ষার দায়িত্বে নিয়োজিত রাষ্ট্রীয় বাহিনীগুলোর ওপর সম্পূর্ণ নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে। এ বাহিনীগুলোকে অবৈধ ক্ষমতা রক্ষার পাহারাদার বা লাঠিয়াল হিসেবে অপব্যবহার করছে। এ উদ্দেশ্যে ক্ষমতাসীনরা আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোর নিয়ন্ত্রণের ভার দলবাজ, বিতর্কিত, স্বার্থান্বেষী ও সুবিধাভোগী কিছু কর্মকর্তার হাতে তুলে দিয়েছে। জোটের পক্ষে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান এ বিবৃতি দেন। এতে বলা হয়, পক্ষপাতদুষ্ট কতিপয় অতি উৎসাহী কর্মকর্তা এখন আইন, নিরপেক্ষতা ও মানবাধিকার ভঙ্গ করে আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর সুনাম, ঐতিহ্য ও নিরপেক্ষতা নষ্ট করছে এবং দেশে-বিদেশে প্রশ্নবিদ্ধ করছে। এতে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাহিনীগুলোর সদস্যদের গৌরবময় অংশগ্রহণের ধারাবাহিকতাও অনিশ্চয়তার মুখে পড়ছে। এ পটভূমিতে পুলিশ, বিজিবি, র‌্যাব ও আনসার বাহিনীসহ আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোর সব স্তরের সদস্যদের পুরো পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে বিবৃতিতে। নিজ বিবেকের কাছে প্রশ্ন করে সুবিবেচনা অনুযায়ী কাজ করার অনুরোধও জানিয়েছে জোট। বিচারবহির্ভূত হত্যা সম্পূর্ণ বন্ধ করার আহ্বান জানিয়ে বিবৃতিতে বলা হয়, বিরোধী দলের নেতাকর্মী ও জনগণের ওপর জুলুম-নির্যাতন, গুলি করে আহত করা, পাইকারী গ্রেফতার, বাড়িঘরে হানা দেয়া বন্ধ করুন। শাসকদের মদতপুষ্ট সন্ত্রাসীদের নিরাপত্তা না দিয়ে তাদের গ্রেফতার করুন। ন্যায়ের পথে থাকার কারণে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার কোনো সদস্যকে এখন যদি বেআইনিভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করা হয় তবে ভবিষ্যতে তাকে যথাযথ মর্যাদায় পুনর্বাসিত করা হবে। বিবৃতিতে বলা হয়, এ আহ্বানের পরেও আর যদি একটি বিচারবহির্ভূত হত্যার ঘটনা ঘটে, অন্যায়ভাবে জুলুম-নির্যাতন, গুম-অপহরণ বন্ধ না হয়, তাহলে এর সঙ্গে জড়িতদের আমরা আগামীতে কঠোর শাস্তির মুখোমুখি হওয়ার জন্য প্রস্তুত থাকতে বলব। এ বিষয়ে মানবাধিকার প্রতিষ্ঠান ও আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোরও দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয় বিবৃতিতে। বলা হয়, ২০ দলীয় জোট দেশে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার, ভোটের অধিকারসহ জনগণের সব অধিকার ফিরিয়ে আনা এবং আইনের শাসন ও মানবাধিকার পুনঃপ্রতিষ্ঠার জন্য আন্দোলন করছে।
বিবৃতিতে বলা হয়, ২০ দলের আন্দোলন মানুষের জীবন নাশের আন্দোলন নয়। যানবাহনে বোমা হামলা চালিয়ে নিরপরাধ মানুষকে হত্যা করে এ সবের দায় আন্দোলনকারীদের ওপর চাপিয়ে বিরোধী দলকে নিষ্ঠুর পন্থায় দমন করাই ক্ষমতাসীনদের ঘৃণ্য অপকৌশল। আমাদের আহ্বান, আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্য ভাই-বোনরা, আপনারা এ অপকৌশল বাস্তবায়নের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহৃত হবেন না।
খবর পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close