¦
পদোন্নতির পরও আগের জায়গায়ই কাজ

যুগান্তর রিপোর্ট | প্রকাশ : ০৮ এপ্রিল ২০১৫

নিয়মিত পদ না থাকায় আগের জায়গায়ই পদায়ন করা হচ্ছে সদ্য পদোন্নতিপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের। মঙ্গলবার জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে পদোন্নতিপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক, বিভাগীয় কমিশনার ও প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সচিবদের পদায়নের আদেশ জারি করা হয়েছে। সোমবার রাতে প্রশাসনে তিন স্তরের ৮৭৩ জন কর্মকর্তার পদোন্নতি দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। এর মধ্যে যুগ্ম সচিব থেকে অতিরিক্ত সচিব পদে ২৩১ জন, উপসচিব থেকে যুগ্ম সচিব পদে ২৯৯ ও সিনিয়র সহকারী সচিব থেকে উপসচিব পদে ৩৪৩ জন কর্মকর্তা রয়েছেন।
পদোন্নতির পর কর্মকর্তাদের জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওএসডি) করা হয়েছিল। মঙ্গলবার তাদের আগের জায়গায়ই পদায়ন করা শুরু হয়েছে। এক আদেশে প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সচিব-১ সাজ্জাদুল হাসান ও একান্ত সচিব-২ নমিতা হালদারকে আগের কর্মস্থলেই পদায়ন করা হয়েছে। সোমবারই অতিরিক্ত সচিব হিসেবে পদোন্নতি পাওয়া রাজশাহীর বিভাগীয় কমিশনার হেলাল উদ্দিন আহমেদ, খুলনার বিভাগীয় কমিশনার আবদুস সামাদ, সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার মোহাম্মদ জামাল উদ্দিন আহমেদকে আগের স্থানে নিয়োগ দিয়ে আদেশ জারি করা হয়। একই দিন পদোন্নতি পেয়ে যুগ্ম সচিব হওয়া ঢাকার জেলা প্রশাসক (ডিসি) তোফাজ্জল হোসেন মিয়া, শরীয়তপুরের ডিসি রামচন্দ্র দাশ, রাজশাহীর মোহাম্মদ মেজবাহ উদ্দিন চৌধুরী, গাজীপুরের নুরুল ইসলাম, মেহেরপুরের মাহমুদ হোসেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর কবীর, বরগুনার মীর জহুরুল ইসলাম, শেরপুরের মোহাম্মদ জাকির হোসেন, ভোলার সেলিম রেজা, খুলনার মোস্তফা কামাল, সিলেটের শহিদুল ইসলাম, কুড়িগ্রামের এবিএম আজাদ, নেত্রকোনার তরুণ কান্তি শিকদার, ঝালকাঠির শাখাওয়াত হোসেন, চুয়াডাঙ্গার দেলোয়ার হোসাইন, নড়াইলের এ গফফার খান, নাটোরের মশিউর রহমান, পটুয়াখালীর অমিতাভ সরকার, গাইবান্ধার এহছান ই এলাহী ও ফেনীর ডিসি হুমায়ুন কবীর খন্দকারকে আগের জায়গায় পদায়ন করা হয়েছে।
এ ছাড়াও সদ্য পদোন্নতি পাওয়া মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীদের একান্ত সচিবদের আগের জায়গায়ই পদায়নের আদেশ জারি শুরু করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। এদের মধ্যে মঙ্গলবার ৭ মন্ত্রীর একান্ত সচিবের আদেশ জারি হয়েছে। যুগ্ম সচিব পদে পদোন্নতি পাওয়া দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রীর পিএস মোহাম্মদ আবু তাহের, শিল্পমন্ত্রীর পিএস একেএম শামসুল আরেফীন, নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খানের পিএস এমএম তারিকুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত এইচএম এরশাদের পিএস মোহাম্মদ সাঈদ নূর আলম, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রীর পিএস এটিএম নাসির মিয়া, সমাজকল্যাণমন্ত্রীর পিএস মাসুদ আহমদ এবং শিক্ষামন্ত্রীর পিএস নাজমুল হক খান।
পাশাপাশি উপসচিব পদে পদোন্নতি পাওয়া ভূমি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতির পিএস এটিএম কামরুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রীর পররাষ্ট্র বিষয়ক উপদেষ্টার পিএস আবদুল আওয়াল, খাদ্য মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতির পিএস আলমগীর হোসেন, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর সহকারী একান্ত সচিব মোহাম্মদ কামরুল ইসলাম চৌধুরী, বস্ত্র ও পাটমন্ত্রীর পিএস বিপুল চন্দ্র বিশ্বাস, এলজিআরডি প্রতিমন্ত্রীর পিএস ওয়াহেদুর রহমান, পররাষ্ট্রমন্ত্রীর পিএস আবদুল মোক্তাদের, মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রীর পিএস এসএম লতিফ এবং খাদ্যমন্ত্রীর পিএস হেলাল হোসেনের আদেশও জারি করা হয় মঙ্গলবার।
প্রশাসনে কাজে গতি আসবে : পদোন্নতি প্রশাসনের কাজে গতি আনবে বলে মন্তব্য করেছেন জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী। প্রশাসনে রেকর্ডসংখ্যক পদোন্নতির পর মঙ্গলবার নিজ দফতরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, পদোন্নতিতে আমি সন্তুষ্ট। সিভিল সার্ভিসের কর্মকর্তাদের পদোন্নতি একটি প্রত্যাশিত বিষয়। এতে কর্মস্পৃহা বাড়ে। অনেকে বহুদিন চাকরি করে এ পদোন্নতি পেয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী প্রশাসনে গতিশীলতা আনতে চান। আমি মনে করি, এ পদোন্নতি প্রশাসনে গতিশীলতা আনবে। আমরা মেধা, যোগ্যতা, দায়িত্ব পালনের ক্ষমতা বিবেচনায় নিয়ে পদোন্নতি দিয়েছি। তবে ভুলবশত কিছু ত্রুটি হতে পারে। যোগ্যতা থাকার পরও যারা পদোন্নতি পাননি তারা আবেদন করতে পারেন। পরে তা বিবেচনায় নেয়া হবে বলে জানান কামাল আবদুল নাসের। পদোন্নতিপ্রাপ্তদের উদ্দেশে তিনি বলেন, দক্ষতা ও জনগণের সেবার মনোভাব নিয়ে দায়িত্ব পালন করতে হবে। পদোন্নতি বঞ্চিতের বিষয়ে কামাল নাসের বলেন, সবাইকে তো পদোন্নতি দেয়া যায় না। অনেকের নানা সমস্যাও তো রয়েছে। সেগুলো তো আমরা জানি।
খবর পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close