¦
রামপুরায় যুবককে গুলি করে হত্যা

যুগান্তর রিপোর্ট | প্রকাশ : ০৯ মে ২০১৫

রাজধানীর রামপুরায় বাসা থেকে ডেকে নিয়ে এক যুবককে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। নিহতের নাম রুবেল ওরফে মিন্টু মিয়া। মামাগ্র“প বলে পরিচিত দলের শাহ আলম শুক্রবার তাকে ডেকে নেয়। এর তিন ঘণ্টা পর মিন্টুকে গুলি করে হত্যার খবর পায় পরিবার। পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল (ঢামেক) কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। রামপুরা থানা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, মাদক বাণিজ্যের আধিপত্য নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে মিন্টু খুন হতে পারেন। এ ঘটনায় শাহ আলমকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।
নিহতের মা নাসিমা বেগম যুগান্তরকে জানান, তিনি পরিবার নিয়ে ১৫-২০, রামপুরার ওয়াপদা রোডে উমর আলী লেনে থাকেন। দুপুর ২টার দিকে ফোনে শাহ আলম তার ছেলেকে ডেকে নেয়। বাসা থেকে বের হওয়ার সময় মিন্টু তাকে (মা) জানান, শাহ আলম মামা ডেকেছে, ১০০ টাকা দাও। টাকা নিয়ে বের হওয়ার ঘণ্টা তিনেক পরে গুলিবিদ্ধের খবর পায় পরিবার।
নাসিমা আরও জানান, বিকাল সোয়া ৫টার দিকে রামপুরা টিভি রোডের পানির পাম্পের পেছনে ছেলের লাশ পড়ে আছে এমন তথ্যের ভিত্তিতে তারা সেখানে গিয়ে মিন্টুকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান। সন্ধ্যা ৭টার দিকে ঢামেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থার তার মৃত্যু হয়।
নিহতের ভাই মন্টু মিয়া জানান, মিন্টু আগে পোশাক কারখানায় চাকরি করতেন। কিডনিতে সমস্যার কারণে তিনি চাকরি ছেড়ে দেন। শাহ আলমের সঙ্গে চলাফেরা শুরু করেন। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, শাহ আলম এলাকায় মাদকের ব্যবসা করে। ধারণা করা হচ্ছে, এর আধিপত্য নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে মিন্টুকে হত্যা করা হতে পারে। পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, তিন ভাই ও এক বোনের মধ্যে মিন্টু দ্বিতীয় ছিলেন। তার বাবার নাম ইসমাইল হোসেন। বরগুনার বেতাগী এলাকায় তাদের বাড়ি। রামপুরা থানার এসআই টিপু সুলতান জানান, ব্যক্তিগত দ্বন্দ্বের জের ধরে এ হত্যাকাণ্ড ঘটতে পারে। শাহ আলমকে গ্রেফতার করা গেলে খুনের আসল কারণ ও রহস্য জানা যাবে। তাকে গ্রেফতারে অভিযান চলছে।
রামপুরা থানা পুলিশ প্রাথমিকভাবে জানতে পেরেছে, শাহ আলম ওই এলাকার সবার মামা হিসেবে পরিচিত। বেকার যুবকদের বেকারত্ব ও আর্থিক সংকটকে পুঁজি করে সে তাদেরকে মাদক বাণিজ্যে জড়ায়। বেশ কিছুদিন ধরে মিন্টু শাহ আলমের হয়ে কাজ করছে। পরে হয়তো অন্য গ্র“পে চলে যাওয়ায় তাকে খুন করা হতে পারে।
খবর পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close