¦
শফিকুলসহ গ্রেফতার ৪

লোহাগড়া (নড়াইল) প্রতিনিধি | প্রকাশ : ১৩ মে ২০১৫

নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার শালবরাত গ্রামে গৃহবধূকে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন মামলার প্রধান আসামি নির্যাতিত ববিতার স্বামী সেনা সদস্য শফিকুল শেখসহ ৪ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এর মধ্যে সোমবার সন্ধ্যায় সিলেট থেকে শফিকুলকে গ্রেফতার করা হয়। এছাড়া রাত ১টার দিকে লোহাগড়া থানা পুলিশ গোপালগঞ্জ জেলা থেকে তিনজনকে গ্রেফতার করে। এ নিয়ে এ মামলায় গ্রেফতারকৃত আসামির সংখ্যা ৬ জন। এর আগে শফিকুলের চাচা হিরু মিয়া ও ভাই হাসানকে গ্রেফতার করা হয়। তবে মামলার এজহারভুক্ত দুই আসামিকে এখনও গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। গ্রেফতার শফিকুল নড়াইল উপজেলার কাশিপুর ইউনিয়ন পরিষদের শালবরাত গ্রামের ছালাম শেখের ছেলে। লোহাগড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. লুৎফর রহমান জানান, মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা (আইও) উপ-পরিদর্শক (এসআই) নজরুল ইসলাম সিলেট সেনানিবাস এলাকা থেকে সন্ধ্যায় তাকে গ্রেফতার করে। মঙ্গলবার সকালে তাকে লোহাগড়া থানায় নিয়ে আসা হয়।
গোপালগঞ্জের ভাটিয়াপাড়া বাসস্ট্যান্ড থেকে ববিতার শ্বশুর ছালাম শেখ, ভাসুর আবুল হাসান শেখ ও প্রতিবেশী নান্নু মোল্যাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সকালে তাদেরকে আদালতে সোপর্দ করা হলে আদালত তাদের জামিন না মঞ্জুর করে জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।
মামলার এজহারভুক্ত আসামি ববিতার শাশুড়ি জিরিন আক্তার ও আওয়ামী লীগ নেতা আজিজুর রহমান আরজুকে এখনও গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। গৃহবধূ নির্যাতনের ঘটনায় দায়ের করা মামলার আসামিদের রোববার ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে গ্রেফতারের নির্দেশ দেন হাইকোর্ট।
৩০ এপ্রিল সকালে শালবরাত গ্রামে গৃহবধূ ববিতাকে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন করে তার শ্বশুরবাড়ির লোকজন। ববিতা জানান, গ্রামের বহু মানুষের সামনে তারা তাকে গাছের সঙ্গে বেঁধে বেধড়ক লাঠিপেটা করে। নড়াইল সদর হাসপাতালে চারদিন চিকিৎসার পর নির্যাতিত ববিতাকে রোববার লোহাগড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।
লোহাগড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ লুৎফর রহমান জানান, গৃহবধূকে নির্যাতনের ঘটনায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ববিতার স্বামী শফিকুল শেখসহ সাতজনকে আসামি করে থানায় মামলা করেন তার মা খাদিজা বেগম।
খবর পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close