jugantor
এনবিআরের সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম হোসেনকে অব্যাহতি

  যুগান্তর রিপোর্ট  

১০ ডিসেম্বর ২০১৫, ০০:০০:০০  | 

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম হোসেনকে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। অব্যাহতি প্রদানের বিষয়টি দুদক মন্ত্রিপরিষদ বিভাগকে অবহিত করে ২ ডিসেম্বর। দুদকের ভারপ্রাপ্ত সচিব আবু মো. মোস্তফা কামালের স্বাক্ষরে পাঠানো অবহিতকরণ চিঠিতে বলা হয়, এনবিআরের সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম হোসেনের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগটি অনুসন্ধানে প্রমাণিত না হওয়ায় দুদক কর্তৃক নথিভুক্তির (অব্যাহতি) মাধ্যমে নিষ্পত্তি করা হয়েছে।

দুদক সূত্র জানায়, ২০১৩ সালের ডিসেম্বরে এনবিআরের সাবেক চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনসহ বিভিন্ন দুর্নীতির অভিযোগ আসে। তাতে উল্লেখ করা হয়, গোলাম হোসেন এনবিআর চেয়ারম্যান থাকাকালীন রিকন্ডিশন্ড গাড়ি আমদানিতে ৪৫ শতাংশ অবচয় সুবিধা দিয়ে প্রজ্ঞাপন (এসআরও) জারি করেন। এ অবচয় সুবিধা ৬ জুন ২০১৩ সালের আগে আমদানি করা বিল অব এন্ট্রি নেটিং করা গাড়ির ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে না- মর্মে প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়। গাড়ি অবচয় সুবিধার বিদ্যমান ১৪৯ নম্বর প্রজ্ঞাপনটি সংশোধন করে নতুন ৩৫৩ নম্বর প্রজ্ঞাপন জারি করে এনবিআর। এর ফলে ৬ জুন ২০১৩ সালের আগে আমদানি করা ও নেটিংকৃত সাড়ে ৩ হাজার গাড়ি ৪৫ শতাংশ অবচয় সুবিধায় খালাসের সুযোগ পায়। গাড়ি অবচয় সুবিধাসংক্রান্ত সংশোধিত এসআরওর কারণে সরকার ২৪ কোটি ৮৯ লাখ টাকার রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হবে। এছাড়া বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও এনবিআরের নিয়োগ এবং বদলিতেও দুর্নীতির অভিযোগ আনা হয় গোলাম হোসেনের বিরুদ্ধে।

কিন্তু দুদকের অনুসন্ধান এবং পুনঃঅনুসন্ধানে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাকে অব্যাহতি দেয়া হয়। দুদকের উপপরিচালক মো. নাসিরউদ্দিন অনুসন্ধান শেষে অভিযোগ নথিভুক্তির মাধ্যমে নিষ্পত্তির সুপারিশ করেন। কমিশন সেটি মঞ্জুর করে।



সাবমিট

এনবিআরের সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম হোসেনকে অব্যাহতি

 যুগান্তর রিপোর্ট 
১০ ডিসেম্বর ২০১৫, ১২:০০ এএম  | 
জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম হোসেনকে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। অব্যাহতি প্রদানের বিষয়টি দুদক মন্ত্রিপরিষদ বিভাগকে অবহিত করে ২ ডিসেম্বর। দুদকের ভারপ্রাপ্ত সচিব আবু মো. মোস্তফা কামালের স্বাক্ষরে পাঠানো অবহিতকরণ চিঠিতে বলা হয়, এনবিআরের সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম হোসেনের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগটি অনুসন্ধানে প্রমাণিত না হওয়ায় দুদক কর্তৃক নথিভুক্তির (অব্যাহতি) মাধ্যমে নিষ্পত্তি করা হয়েছে।

দুদক সূত্র জানায়, ২০১৩ সালের ডিসেম্বরে এনবিআরের সাবেক চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনসহ বিভিন্ন দুর্নীতির অভিযোগ আসে। তাতে উল্লেখ করা হয়, গোলাম হোসেন এনবিআর চেয়ারম্যান থাকাকালীন রিকন্ডিশন্ড গাড়ি আমদানিতে ৪৫ শতাংশ অবচয় সুবিধা দিয়ে প্রজ্ঞাপন (এসআরও) জারি করেন। এ অবচয় সুবিধা ৬ জুন ২০১৩ সালের আগে আমদানি করা বিল অব এন্ট্রি নেটিং করা গাড়ির ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে না- মর্মে প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়। গাড়ি অবচয় সুবিধার বিদ্যমান ১৪৯ নম্বর প্রজ্ঞাপনটি সংশোধন করে নতুন ৩৫৩ নম্বর প্রজ্ঞাপন জারি করে এনবিআর। এর ফলে ৬ জুন ২০১৩ সালের আগে আমদানি করা ও নেটিংকৃত সাড়ে ৩ হাজার গাড়ি ৪৫ শতাংশ অবচয় সুবিধায় খালাসের সুযোগ পায়। গাড়ি অবচয় সুবিধাসংক্রান্ত সংশোধিত এসআরওর কারণে সরকার ২৪ কোটি ৮৯ লাখ টাকার রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হবে। এছাড়া বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও এনবিআরের নিয়োগ এবং বদলিতেও দুর্নীতির অভিযোগ আনা হয় গোলাম হোসেনের বিরুদ্ধে।

কিন্তু দুদকের অনুসন্ধান এবং পুনঃঅনুসন্ধানে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাকে অব্যাহতি দেয়া হয়। দুদকের উপপরিচালক মো. নাসিরউদ্দিন অনুসন্ধান শেষে অভিযোগ নথিভুক্তির মাধ্যমে নিষ্পত্তির সুপারিশ করেন। কমিশন সেটি মঞ্জুর করে।



 
শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র