jugantor
জমি নিয়ে বিরোধ
গুরুদাসপুরে ভাইয়ের হাতে ভাই খুন

  গুরুদাসপুর প্রতিনিধি  

১০ ডিসেম্বর ২০১৫, ০০:০০:০০  | 

নাটোরের গুরুদাসপুরে পারিবারিক বিরোধের জের ধরে ছোট ভাইয়ের হাতে বড় ভাই খুন হয়েছেন। নিহতের নাম মোজাম প্রামাণিক (৫০)। মঙ্গলবার রাতেই হাসপাতালে লাশ ফেলে অভিযুক্তরা পালিয়ে যায়। বুধবার বেলা দেড়টা পর্যন্ত হাসপাতালের বারান্দায় বেওয়ারিশ অবস্থায় পড়েছিল লাশ।

দুপুর ২টার দিকে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়।

হাসপাতাল, পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নিহতের বাড়ি উপজেলার বিয়াঘাট ইউনিয়নের হরদমা গ্রামে। তার বাবার নাম মো. আব্বাস আলী। তবে পারিবারিক বিবাদের কারণে মোজাম পাশের সিংড়া উপজেলার মহিষমারী গ্রামে শ্বশুরবাড়িতে প্রায় একযুগ ধরে পরিবার-পরিজন নিয়ে থাকতেন। মঙ্গলবার নিজ বাড়িতে বেড়াতে এসে খুন হন তিনি। মিলন (২০) ও মিনু (১৮) নামে তার দুই সন্তান রয়েছে।

হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক সারমিন সুলতানা বলেন, মঙ্গলবার রাত ১০টার দিকে আশরাফুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তি মোজামকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে আসেন। এ কারণে তাকে ভর্তি করা হয়নি। কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগেই তারা সটকে পড়েন। তবে রোগীর গলায় ও শরীরের বিভিন্ন জায়গায় ক্ষতচিহ্ন রয়েছে।

নিহতের দুই ছেলের তথ্য মতে, দাদার বাড়ির দেড় বিঘা জায়গা নিয়ে তাদের চাচা জলিলের সঙ্গে মোজামের বিরোধ ছিল। মঙ্গলবার দাদার বাড়িতে বেড়াতে এসে তাদের বাবা মোজাম খুন হন। সম্পত্তির লোভেই এ খুন করা হয়েছে।

মোজামের বাবা আব্বাস আলী জানান, তিনি পাশের গ্রামে বিয়ের দাওয়াত খেতে যাওয়ায় ছেলের সঙ্গে কথা হয়নি। এখন হাসপাতালে এসে লাশ দেখতে হচ্ছে।

নিহতের ছেলে মিলন জানান, ৭নং ওয়ার্ড মেম্বর মো. বেলাল হোসেনের নেতৃত্বে স্বজনদের নিয়ে এক সমঝোতা বৈঠক হয়েছে। গুরুদাসপুর থানার ওসি মো. ইব্রাহিম হোসেন বলেন, অভিযোগ পেলেই পুলিশ ব্যবস্থা নেবে।



সাবমিট
জমি নিয়ে বিরোধ

গুরুদাসপুরে ভাইয়ের হাতে ভাই খুন

 গুরুদাসপুর প্রতিনিধি 
১০ ডিসেম্বর ২০১৫, ১২:০০ এএম  | 
নাটোরের গুরুদাসপুরে পারিবারিক বিরোধের জের ধরে ছোট ভাইয়ের হাতে বড় ভাই খুন হয়েছেন। নিহতের নাম মোজাম প্রামাণিক (৫০)। মঙ্গলবার রাতেই হাসপাতালে লাশ ফেলে অভিযুক্তরা পালিয়ে যায়। বুধবার বেলা দেড়টা পর্যন্ত হাসপাতালের বারান্দায় বেওয়ারিশ অবস্থায় পড়েছিল লাশ।

দুপুর ২টার দিকে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়।

হাসপাতাল, পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নিহতের বাড়ি উপজেলার বিয়াঘাট ইউনিয়নের হরদমা গ্রামে। তার বাবার নাম মো. আব্বাস আলী। তবে পারিবারিক বিবাদের কারণে মোজাম পাশের সিংড়া উপজেলার মহিষমারী গ্রামে শ্বশুরবাড়িতে প্রায় একযুগ ধরে পরিবার-পরিজন নিয়ে থাকতেন। মঙ্গলবার নিজ বাড়িতে বেড়াতে এসে খুন হন তিনি। মিলন (২০) ও মিনু (১৮) নামে তার দুই সন্তান রয়েছে।

হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক সারমিন সুলতানা বলেন, মঙ্গলবার রাত ১০টার দিকে আশরাফুল ইসলাম নামে এক ব্যক্তি মোজামকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে আসেন। এ কারণে তাকে ভর্তি করা হয়নি। কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগেই তারা সটকে পড়েন। তবে রোগীর গলায় ও শরীরের বিভিন্ন জায়গায় ক্ষতচিহ্ন রয়েছে।

নিহতের দুই ছেলের তথ্য মতে, দাদার বাড়ির দেড় বিঘা জায়গা নিয়ে তাদের চাচা জলিলের সঙ্গে মোজামের বিরোধ ছিল। মঙ্গলবার দাদার বাড়িতে বেড়াতে এসে তাদের বাবা মোজাম খুন হন। সম্পত্তির লোভেই এ খুন করা হয়েছে।

মোজামের বাবা আব্বাস আলী জানান, তিনি পাশের গ্রামে বিয়ের দাওয়াত খেতে যাওয়ায় ছেলের সঙ্গে কথা হয়নি। এখন হাসপাতালে এসে লাশ দেখতে হচ্ছে।

নিহতের ছেলে মিলন জানান, ৭নং ওয়ার্ড মেম্বর মো. বেলাল হোসেনের নেতৃত্বে স্বজনদের নিয়ে এক সমঝোতা বৈঠক হয়েছে। গুরুদাসপুর থানার ওসি মো. ইব্রাহিম হোসেন বলেন, অভিযোগ পেলেই পুলিশ ব্যবস্থা নেবে।



 
শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র