¦
বগুড়ায় কারাগারে বিএনপি জামায়াতের ছয় প্রার্থী

বগুড়া ব্যুরো | প্রকাশ : ২৩ ডিসেম্বর ২০১৫

বগুড়ায় আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপি ও জামায়াতের ৬ মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থী জেলে এবং বেশ কয়েকজন আত্মগোপনে থেকে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। তাদের পক্ষে স্ত্রী ও স্বজনরা প্রচারণায় রয়েছেন। এদের কেউ কেউ সরকারদলীয় প্রার্থীর বিরুদ্ধে প্রচারণায় বাধা ও কর্মীদের মারধর করার অভিযোগ করেছেন। এতে সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে প্রার্থী ও তাদের স্বজনরা সংশয় প্রকাশ করেছেন।
জানা গেছে, নাশকতা, বিস্ফোরণসহ বিভিন্ন মামলায় বগুড়া পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শাহ্ মেহেদী হাসান হিমু, ৮নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী জামায়াত নেতা এরশাদুল বারী এরশাদ, জেলা যুবদল সভাপতি ১১নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী সিপার আল বখতিয়ার, শহর যুবদল সভাপতি ১৫নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী মাসুদ রানা মাসুদ, ১৭নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী বিএনপি নেতা গোলাম মোস্তফা এবং কাহালু পৌরসভার স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী পৌর জামায়াতের সাংগঠনিক সম্পাদক জহরুল ইসলাম বাদশা জেলে আছেন।
অপরদিকে গ্রেফতার এড়িয়ে কৌশলে প্রচারণায় রয়েছেন, বগুড়া পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী বিএনপি নেতা পরিমল চন্দ্র দাস, জেলা জাসাসের সাধারণ সম্পাদক ৭নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী দেলোয়ার হোসেন পশারী হিরু, ১২নং ওয়ার্ডের জামায়াত নেতা জুলফিকার আলী বাবু, ১৬নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী বিএনপি নেতা হারুন-উর-রশিদ সাজু, ২১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী জামায়াত নেতা রুহুল কুদ্দুস ডিলু। তাদের পরিবর্তে স্ত্রী, সন্তান, পরিবারের সদস্যরা মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। তারাই প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন।
কাহালু পৌরসভার স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী পৌর জামায়াতের সাংগঠনিক সম্পাদক জহরুল ইসলাম বাদশা জেলে থাকায় তার স্ত্রী মর্জিনা বেগম ও বোন মৌসুমী খাতুন প্রচারণা চালাচ্ছেন। বাবা সাগাটিয়া গ্রামের আবদুর রশিদ ২-৩ জন কর্মী নিয়ে পোস্টারিং করছেন। এখন পর্যন্ত তাদের কোনো অভিযোগ নেই। কারারুদ্ধ জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শাহ্ মেহেদী হাসান হিমুর স্ত্রী জিনাত পারভিন স্নিগ্ধা জানান, ভোটারদের প্রচুর সহানুভূতি পাচ্ছেন। তার বিশ্বাস তার স্বামী হিমু তৃতীয়বারের মতো বিপুল ভোটে ১নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নির্বাচিত হবেন। আর এ জয়লাভের মাধ্যমেই তাকে (স্বামী) মুক্ত করবেন। ১৫নং ওয়ার্ডের কারারুদ্ধ কাউন্সিলর প্রার্থী শহর যুবদল সভাপতি মাসুদ রানা মাসুদের স্ত্রী রেহেনা বেগম সরকারদলীয় প্রার্থী আমিনুল ইসলামের বিরুদ্ধে প্রচার-প্রচারণায় বাধা, মহিলা কর্মীদের মারধর, ফোনে হুমকি, প্রচারণার রিকশা ভাংচুর ও পোস্টারে আগুন দেয়ার অভিযোগ করেন। রেহেনা বেগম সুষ্ঠু ও সুন্দর পরিবেশে নির্বাচন সম্পন্ন করতে এ ওয়ার্ডে সাত কেন্দ্রে সেনাবাহিনী মোতায়েনের দাবি জানিয়েছেন।
খবর পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close