jugantor
বাংলা একাডেমি পুরস্কার নিলেন পূরবী বসু

  যুগান্তর রিপোর্ট  

১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৪, ০০:০০:০০  | 

বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার নিলেন পূরবী বসু। কথাসাহিত্যে ২০১৩ সালে তাকে এ পুরস্কার দেয়া হয়। মঙ্গলবার বাংলা একাডেমির সভাকক্ষে প্রতিষ্ঠানটির মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান তাকে এ পুরস্কার তুলে দেন। পুরস্কারের মূল্যমান এক লাখ টাকা। একই সঙ্গে ১৯৭১ সালে ছোটগল্পে বাংলা একাডেমি পুরস্কারপ্রাপ্ত জ্যোতিপ্রকাশ দত্তকে আনুষ্ঠানিকভাবে তার পুরস্কার-সনদের প্রতিলিপি প্রদান করা হয়। বাংলা একাডেমির সভাপতি অধ্যাপক আনিসুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- লেখক-গবেষক ড. হায়াৎ মামুদ এবং আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য নূহ-উল-আলম লেনিন প্রমুখ।

১ ফেব্র“য়ারি একুশে বইমেলার উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘বাংলা একাডেমি পুরস্কার’ প্রদান করেন। সে সময় পূরবী বসু উপস্থিত থাকতে পারেননি।

শামসুজ্জামান খান বলেন, দুজনই তাদের কর্মের মাধ্যমে সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করেছেন। জ্যোতিপ্রকাশ দত্ত বলেন, ১৯৭১ সালে জহির রায়হান, আনোয়ার পাশা, হাসান হাফিজুর রহমান, মোফাজ্জল হায়দার চৌধুরীর মতো বরেণ্য ব্যক্তিত্বদের সঙ্গে বাংলা একাডেমি পুরস্কার পেয়েছি। তৎকালীন পরিস্থিতিতে পুরস্কারের সনদ নিতে পারেনি।

তেতাল্লিশ বছর পর বাংলা একাডেমি আমাকে এ পুরস্কার-সনদের প্রতিলিপি দিয়ে সম্মানিত করেছে। পূরবী বসু বলেন, এই পুরস্কার জীবনের সবচেয়ে বড় স্বীকৃতি। এক সময় খেয়ালবশত সাহিত্যচর্চা শুরু করলেও এখন তাই হয়ে ওঠেছে জীবনের প্রধান নেশা। তিনি বলেন, অধিকারহীন মানুষই আমার কথাসাহিত্যের মৌল বিষয়। পুরস্কার এ বিষয়ে আমাকে আরও দায়বদ্ধ করেছে।



সাবমিট

বাংলা একাডেমি পুরস্কার নিলেন পূরবী বসু

 যুগান্তর রিপোর্ট 
১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৪, ১২:০০ এএম  | 
বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার নিলেন পূরবী বসু। কথাসাহিত্যে ২০১৩ সালে তাকে এ পুরস্কার দেয়া হয়। মঙ্গলবার বাংলা একাডেমির সভাকক্ষে প্রতিষ্ঠানটির মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান তাকে এ পুরস্কার তুলে দেন। পুরস্কারের মূল্যমান এক লাখ টাকা। একই সঙ্গে ১৯৭১ সালে ছোটগল্পে বাংলা একাডেমি পুরস্কারপ্রাপ্ত জ্যোতিপ্রকাশ দত্তকে আনুষ্ঠানিকভাবে তার পুরস্কার-সনদের প্রতিলিপি প্রদান করা হয়। বাংলা একাডেমির সভাপতি অধ্যাপক আনিসুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- লেখক-গবেষক ড. হায়াৎ মামুদ এবং আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য নূহ-উল-আলম লেনিন প্রমুখ।

১ ফেব্র“য়ারি একুশে বইমেলার উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘বাংলা একাডেমি পুরস্কার’ প্রদান করেন। সে সময় পূরবী বসু উপস্থিত থাকতে পারেননি।

শামসুজ্জামান খান বলেন, দুজনই তাদের কর্মের মাধ্যমে সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করেছেন। জ্যোতিপ্রকাশ দত্ত বলেন, ১৯৭১ সালে জহির রায়হান, আনোয়ার পাশা, হাসান হাফিজুর রহমান, মোফাজ্জল হায়দার চৌধুরীর মতো বরেণ্য ব্যক্তিত্বদের সঙ্গে বাংলা একাডেমি পুরস্কার পেয়েছি। তৎকালীন পরিস্থিতিতে পুরস্কারের সনদ নিতে পারেনি।

তেতাল্লিশ বছর পর বাংলা একাডেমি আমাকে এ পুরস্কার-সনদের প্রতিলিপি দিয়ে সম্মানিত করেছে। পূরবী বসু বলেন, এই পুরস্কার জীবনের সবচেয়ে বড় স্বীকৃতি। এক সময় খেয়ালবশত সাহিত্যচর্চা শুরু করলেও এখন তাই হয়ে ওঠেছে জীবনের প্রধান নেশা। তিনি বলেন, অধিকারহীন মানুষই আমার কথাসাহিত্যের মৌল বিষয়। পুরস্কার এ বিষয়ে আমাকে আরও দায়বদ্ধ করেছে।



 
শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র