¦
পিন্টুর চিকিৎসায় ত্রুটি ছিল না

যুগান্তর রিপোর্ট | প্রকাশ : ২০ মে ২০১৫

কারাভ্যন্তরে সাবেক ছাত্রদল সভাপতি ও এমপি নাসির উদ্দিন আহাম্মেদ পিন্টুর মৃত্যুতে পুলিশ, কারা কর্তৃপক্ষ বা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের (রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল) কোনো ত্র“টি বা গাফিলতির প্রমাণ পায়নি তদন্ত কমিটি। পিন্টুর চিকিৎসার জন্য কারাগারে গেলেও কারা কর্তৃপক্ষ রামেক হাসপাতালের চিকিৎসক রইচ উদ্দীনকে চিকিৎসা করতে দেননি এমন অভিযোগও তদন্ত কমিটির রিপোর্টে মিথ্যা প্রমাণিত হয়েছে বলে জানা গেছে। কারা অধিদফতরের ডিআইজি (ঢাকা) গোলাম হায়দারের নেতৃত্বে করা তদন্ত কমিটি মঙ্গলবার আইজি প্রিজনের কাছে রিপোর্ট জমা দেয়। তাতে এসব কথা বলা হয়েছে।
৩ মে পিন্টুর মৃত্যুর পর কারাভ্যন্তরে চিকিৎসা সম্পর্কে পরিবার ও বিএনপির পক্ষ থেকে অভিযোগ তদন্তে গঠিত কমিটির রিপোর্টে এমন সব তথ্য উঠে এসেছে। কারা মহাপরিদর্শক তদন্ত রিপোর্ট পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। রিপোর্টে বলা হয় পিন্টুর মৃত্যুতে কারা ও রামেক কর্তৃপক্ষের কোনো ত্র“টি নেই। সব ধরনের নিয়ম সঠিকভাবে মেনেই পিন্টুকে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। কারাগার ও রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসাসংক্রান্ত নির্ধারিত ডাক্তারসহ সংশ্লিষ্ট সবার লিখিত বক্তব্য গ্রহণ ও মৌখিক সাক্ষাৎকার গ্রহণ শেষে সার্বিক পর্যালোচনার পর তদন্ত কমিটি এ রিপোর্ট প্রদান করে।
কারা সূত্র জানায়, বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক নাসির উদ্দিন পিন্টু মৃত্যুর দিন সুস্থ ছিলেন। সকালে তিনি স্বাভাবিক খাবার গ্রহণ করেন ও সবার সঙ্গে স্বাভাবিকভাবেই কথা বলেন। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তিনি তার চুলে কলপ লাগাচ্ছিলেন। এমন সময় হঠাৎ করে তার বুকে ব্যথা অনুভূত হয়। সঙ্গে সঙ্গেই পাশে থাকা একজন বন্দিকে তিনি বুকে ব্যথার কথা জানালে সংশ্লিষ্ট এলাকার দায়িত্বরত কারারক্ষী ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানান। কর্তৃপক্ষ সঙ্গে সঙ্গেই রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারা হাসপাতালের বন্দির চিকিৎসায় নিয়োজিত কার্ডিওলজি বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের কাছে নিয়ে যান। কারা কর্তৃপক্ষ উক্ত ডাক্তারের পরামর্শক্রমে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। এরপর রামেক হাসপাতালের চিকিৎসকরা তাকে দুপুর ১২টা ১২ মিনিটে মৃত ঘোষণা করেন। পিন্টু দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন।
দ্বিতীয় সংস্করণ পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close