¦

এইমাত্র পাওয়া

  • রাজধানী থেকে কোকেনসহ আন্তর্জাতিক মাদক পাচারকারী চক্রের ৩ সদস্য আটক
‘মুক্তিযুদ্ধ অস্বীকার অপরাধ আইন’ করার পরামর্শ নির্মূল কমিটির

যুগান্তর রিপোর্ট | প্রকাশ : ৩১ ডিসেম্বর ২০১৫

মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতি ও বাংলাদেশের অস্তিত্ব বিনাশী চক্রান্তের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ‘মুক্তিযুদ্ধ অস্বীকার অপরাধ আইন’ তৈরির জন্য আইন কমিশনকে পরামর্শ দিয়েছে একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি।
এছাড়া কমিটি ‘মুক্তিযুদ্ধের ভিকটিমদের ক্ষতিপূরণ আইন’ প্রণয়ন বিষয়েও প্রস্তাব করেছে। বুধবার বিকালে এ দুটি আইন প্রণয়নে আইন কমিশনের সঙ্গে ঘণ্টাব্যাপী আলোচনা করেন নির্মূল কমিটির নেতারা।
আইন কমিশনের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এ আলোচনায় কমিশনের চেয়ারম্যান ও সাবেক প্রধান বিচারপতি এবিএম খায়রুল হক, সদস্য সাবেক বিচারপতি এটিএম ফজলে কবীর ও সদস্য অধ্যাপক এমশাহ আলম অংশ নেন। আর নির্মূল কমিটির পক্ষে সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শাহরিয়ার কবির, উপদেষ্টা ও আপিল বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি এএইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক, সহ-সভাপতি শহীদ জায়া শ্যামলী নাসরিন চৌধুরী, অধ্যাপক ড. মুনতাসীর মামুন, ভাস্কর ফেরদৌসী প্রিয়ভাষিণী, ব্যারিস্টার ড. তুরিন আফরোজ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
আলোচনা প্রসঙ্গে শাহরিয়ার কবির বলেন, ইউরোপে একটি আইন আছে ‘হলোকস্ট ডিনায়েল অ্যাক্ট’। এটি হল গণহত্যাকে চ্যালেঞ্জ করলে তাকে শাস্তি পেতে হবে। আমাদের এখানে শুধু গণহত্যা না, মুক্তিযুদ্ধকে অস্বীকার করা হয়েছে; স্বাধীনতার ঘোষণাপত্রকে অস্বীকার করা হয়েছে। সেজন্য আমরা বলছি, মুক্তিযুদ্ধ অস্বীকার অপরাধ আইন নিয়ে ভাবার জন্য। অপর যে আইন প্রণয়ন নিয়ে কথা হয়েছে সেটি হল, মুক্তিযুদ্ধে ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণ দেয়ার প্রসঙ্গ।
সেজন্য আমরা বলেছি গণহত্যাকারী যাদের বিচার হয়েছে তাদের স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি সবকিছু বাজেয়াপ্ত করতে হবে এবং ভিকটিমদের দিতে হবে। বাংলাদেশ সরকার ৪৪ বছরেও পাকিস্তানের কাছে একাত্তরের গণহত্যার জন্য কোনো ক্ষতিপূরণ দাবি করেনি বলেও জানান শাহরিয়ার কবির।
বৈঠক শেষে বিচারপতি এএইচএম শামসুদ্দিন চৌধুরীর কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল ১৯৭৩ সালের আইনে ক্ষতিপূরণের বিধান যুক্ত করা, নাকি নতুন করে আইন করার প্রস্তাব করেছেন? জবাবে তিনি বলেন, ‘আমরা যেটা সুপারিশ করেছি, আলাদা আইন হলে ভালো হয়।’
দ্বিতীয় সংস্করণ পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close