¦
নরসিংদী স্বজনদের মুক্তিযোদ্ধা সংবর্ধনা

সুমন রায় | প্রকাশ : ০৭ জানুয়ারি ২০১৫

বিকেল ৪টা থেকেই স্বজনরা তাদের প্রিয় কবি আসাদ চৌধুরী, ইন্দ্রদা মানে লোকসঙ্গীত ব্যক্তিত্ব ইন্দ্রমোহন রাজবংশী এবং বরেণ্য শিশুসাহিত্যিক রফিকুল হক দাদুভাই কখন আসবেন তাই নিয়ে। উত্তেজনা, আগ্রহ আর প্রতীক্ষার সমাপ্তি ঘটল অতিথিদের আগমনের মধ্য দিয়ে। সন্ধ্যা হতেই চলে এলেন অনুষ্ঠানের মধ্যমণি নরসিংদীর জনপ্রিয় জেলা প্রশাসক আবু হেনা মোরশেদ জামান। অনুষ্ঠান সঞ্চালক জহিরুল ইসলাম মৃধার ঘোষণায় মুহুর্মুহু করতালির মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান শুরু হল। শুরুতেই ২০০৫ থেকে ২০১৪ পর্যন্ত নরসিংদী স্বজনদের দেয়া সংবর্ধিত মুক্তিযোদ্ধাদের জীবন বৃত্তান্ত নিয়ে একটি তথ্যচিত্র প্রদর্শিত হয়।
অতিথিদের আসন গ্রহণ
মঞ্চে আসন গ্রহণ করেন অনুষ্ঠানের উদ্বোধক স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শব্দসৈনিক কবি আসাদ চৌধুরী। প্রধান অতিথি হিসেবে আসন গ্রহণ করেন নরসিংদী জেলা প্রশাসক আবু হেনা মোরশেদ জামান। যুগান্তর স্বজন সমাবেশ নরসিংদী’র সভাপতি আসাদুজ্জামান খোকনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে আসন গ্রহণ করেন প্রখ্যাত শিশুসাহিত্যিক-সংগঠক ও দৈনিক যুগান্তরের ফিচার সম্পাদক রফিকুল হক দাদুভাই, স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের লোকসঙ্গীত ব্যক্তিত্ব ও কণ্ঠসৈনিক ইন্দ্রমোহন রাজবংশী, যুগান্তর স্বজন সমাবেশ জেলা শাখার প্রধান উপদেষ্টা প্রফেসর গোলাম মোস্তাফা মিয়া, যুগান্তর স্বজন সমাবেশের বিভাগীয় সম্পাদক হিমেল চৌধুরী ও জনতা ব্যাংক নরসিংদী কর্পোরেট শাখার সহকারী মহাব্যবস্থাপক শ্যামল বিশ্বাস।
জাতীয় সঙ্গীত দিয়ে শুরু করে কবি আসাদ চৌধুরীর উদ্বোধনী বক্তব্যের পর প্রতি বছরের মতো এবারও মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধা সংবর্ধনাকে ঘিরে স্বজন সাধারণ সম্পাদক সুমন চন্দ্র সরকার সম্পাদিত সংকলন ‘স্বজন’-এর মোড়ক উন্মোচন করা হয়।
মুক্তিযোদ্ধা সংবর্ধনা ও উত্তরীয় প্রদান
উদ্বোধনী বক্তব্য শেষে মুক্তিযুদ্ধে গৌরবোজ্জ্বল অবদানের জন্য আটজন মুক্তিযোদ্ধাকে সংবর্ধনা ও উত্তরীয় পরিয়ে দেন প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক আবু হেনা মোরশেদ জামান। যাদের সংবর্র্ধিত করা হয় তারা হলেন শব্দসৈনিক কবি আসাদ চৌধুরী, কণ্ঠসৈনিক ইন্দ্রমোহন রাজবংশী, মুক্তিযোদ্ধা আবদুল মোতালিব পাঠান, মুক্তিযোদ্ধা মনিরুজ্জামান খান, মুক্তিযোদ্ধা মো. আবদুল হক, মুক্তিযোদ্ধা একে নাসিম আহমেদ হিরণ, মুক্তিযোদ্ধা মীর ইমদাদুল হক (মরণোত্তর) ও মুক্তিযোদ্ধা জসিম উদ্দিন আহমেদ (মরণোত্তর)। সংবর্ধনা শেষে আমন্ত্রিত অতিথিদের লাল-সবুজের উত্তরীয় পরিয়ে দেন স্বজন সভাপতি আসাদুজ্জামান খোকন।
আলোচনা সভা
অনুষ্ঠানের উদ্বোধক ও স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শব্দসৈনিক কবি আসাদ চৌধুরী বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধে দেশকে শত্রুমুক্ত করতে যারা প্রাণ দিয়ে লড়াই করেছিলেন, যুদ্ধ করতে গিয়ে যারা অকাতরে প্রাণ দিয়েছেন সেসব বীর মুক্তিযোদ্ধাকে প্রেরণা জুগিয়ে ছিলেন শব্দসৈনিকরা। আমি বহু দেশ ঘুরেছি, বহু সংবর্ধনা পেয়েছি কিন্তু এই প্রথম মুক্তিযুদ্ধে শব্দসৈনিক হিসেবে নরসিংদীর স্বজনরা আমাকে সংবর্ধিত করেছে। এটা আমার জীবনে একটি স্মরণীয় দিন হিসেবে বেঁচে থাকবে।
প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক আবু হেনা মোরশেদ জামান বলেন, মা-বোন, ছোট-বড়, সাদা-কালো, ধনী-গরিব, কৃষক, শ্রমিক, মজুর, মুটেদের সঙ্গে নিয়ে আমরা নতুন বাংলাদেশ গড়তে চলেছি। আমরা ২০২১ সালের মধ্যে একটি মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে পরিচিতি লাভ করব। দেশের শিশু ও তরুণরা শিক্ষার দিক দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে, বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। যুগান্তর স্বজনদের এই মহতী উদ্যোগ খুবই প্রশংসনীয়।
অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি রফিকুল হক দাদুভাই তার কবিতা ও ছড়ার মধ্য দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচারণ করেন। তিনি বলেন, সত্যের সন্ধানে নির্ভীক যুগান্তর সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে এর পাঠক সংগঠন স্বজন সমাবেশের মাধ্যমে নানা জনহিতকর তৎপরতায় নিয়োজিত রয়েছে। সত্যসন্ধানী যুগান্তরের বার্তা আমরা বাংলার ঘরে ঘরে পৌঁছে দিতে চাই।
বিশেষ অতিথি ও সংবর্ধিত স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের লোকসঙ্গীত ব্যক্তিত্ব ও কণ্ঠসৈনিক ইন্দ্রমোহন রাজবংশী বলেন, আমি বিভিন্ন সময় বিভিন্ন জায়গায় ঘুরেছি, বিভিন্ন সংবর্ধনা পেয়েছি কিন্তু মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে কণ্ঠসৈনিক হিসেবে এই প্রথম নরসিংদীর স্বজনদের দ্বারা সংবর্ধিত হলাম। এ এক বড় পাওয়া। মুক্তিযুদ্ধের সময় আমরা বিভিন্ন শরণার্থী শিবিরে, বিভিন্ন অনুষ্ঠানে গিয়ে গান গেয়ে মানুষের মনোবল বাড়াতে কাজ করেছি।
স্বজন প্রধান উপদেষ্টা প্রফেসর গোলাম মোস্তাফা মিয়া স্বজনদের বিগত বছরগুলোর কর্মকাণ্ড তুলে ধরে বলেন, আমাদের স্বজনরা বিগত বছরগুলোতে বই পড়া উৎসব, জলবায়ু পরিবর্তন, বৃক্ষ রোপণ, রক্তদান কর্মসূচি, দুস্থদের মাঝে বস্ত্র বিতরণ, মুক্তিযোদ্ধা সংবর্ধনা ইত্যাদি কাজগুলো করতে পেরেছি। মুক্তিযোদ্ধাদের স্বপ্নের বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করতে আমাদের স্বজনরা কাজ করে যাচ্ছেন।
যুগান্তর স্বজন সমাবেশের বিভাগীয় সম্পাদক হিমেল চৌধুরী বলেন, নরসিংদীর স্বজনরা আমাদের গৌরবোজ্জ্বল মুক্তিযুদ্ধ এবং গর্বিত মুক্তিযোদ্ধাদের বর্তমান প্রজন্মের সামনে তুলে ধরতে নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। তিনি নরসিংদী স্বজনদের ও সৃজনশীল কর্মকাণ্ডের ধারাবাহিকতা রক্ষার আহ্বান জানান।
জনতা ব্যাংক নরসিংদী কর্পোরেট শাখার সহকারী মহাব্যবস্থাপক শ্যামল বিশ্বাস স্বজনদের এই কার্যক্রমের ভূয়সী প্রশংসা করেন।
স্বজন সভাপতি আসাদুজ্জামান খোকন আমন্ত্রিত অতিথিদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে নরসিংদীর স্বজনদের বিগত দিনের কার্যক্রম তুলে ধরেন। তিনি সমাজের কল্যাণে স্বজনদের তৎপরতা অব্যাহত রাখার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করে উপস্থিত সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে সভার প্রথম পর্বের সমাপ্তি ঘোষণা করেন।
সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান
সংবর্ধনা শেষে স্বজন শিল্পীরা কোরাস গান ‘জয় বাংলা বাংলার জয়’ দিয়ে অনুষ্ঠান শুরু করেন। এ পর্বে খ্যাতিমান কণ্ঠশিল্পী ও লোক সঙ্গীতের টিভি উপস্থাপক সাজেদ ফাতেমি তার দরাজ কণ্ঠের গানে দর্শকদের মাতিয়ে তোলেন। এরপর মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে স্বাধীনতার পূর্বে রচিত গান পরিবেশন করেন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের কণ্ঠশিল্পী ইন্দ্রমোহন রাজবংশী। কবিতা আবৃত্তি করেন কবি আসাদ চৌধুরী। এছাড়া গান পরিবেশন করেন স্বজন শিল্পী চামেলী দাস, বৃষ্টি সাহা, সুসান ও রোজী খান। এ সময় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রতন ধর, টিপু সুলতান, অপু, নরোত্তম।
নৃত্য পরিবেশন করেন ক্ষুদে স্বজন শিল্পী অর্পা ভৌমিক ও ইভা। সবশেষে প্রদর্শিত করা হয় আসাদুজ্জামান খোকনের রচনা ও প্রযোজনায় নাটক “ওরা ক’জন”।
অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন আন্তর্জাতিক পুরস্কারপ্রাপ্ত আলোকচিত্রী ও স্বজন উপদেষ্টা সুবিমল দাস স্বপন, দৈনিক যুগান্তরের প্রতিনিধি বিশ্বজিৎ সাহা, চ্যানেল আইয়ের প্রতিনিধি সুমন রায়, বিজয় টিভির প্রতিনিধি নজরুল ইসলাম, এটিএন বাংলার প্রতিনিধি বেনজির আহমেদ বেনু, স্বজন সহ-সভাপতি সরকার ছগির আহমেদ, সহ-সভাপতি দিলীপ সাহা, সহ-সভাপতি রতন দাস, সাধারণ সম্পাদক সুমন সরকার, সাংস্কৃতিক সম্পাদক বিদ্যুৎ ভৌমিক, সহ-সাংস্কৃতিক সম্পাদক সৈকত জামান বাবু, সহ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক রিপন মিয়া, অর্থ সম্পাদক ইব্রাহীম মিয়া, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মৃন্ময় ভৌমিক, সহ-সাধারণ সম্পাদক লক্ষ্মণ বর্মন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক বেলাল হোসাইন, পরিকল্পনা ও অনুষ্ঠান সম্পাদক একেএম ফোরকান, সাবেক সাধারণ সম্পাদক আল আমিন হোসাইন, মাধব সূত্রধর, মুনা ভৌমিক, সায়রা জামান রূপাসহ স্বজন সদস্যরা।
 

স্বজন সমাবেশ পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close