jugantor
উপভোগের মন্ত্র আফ্রিদির দুই ছয়ে বড় জয়

  স্পোর্টস রিপোর্টার  

১০ ডিসেম্বর ২০১৫, ০০:০০:০০  | 

শেষ ওভারে টানা দুই বলে ছক্কা মেরে অবশেষে শহীদ আফ্রিদি নিজের জাত চেনালেন। ঢাকা ডায়নামাইটসের বিপক্ষে দল যখন হারের শংকায় ঠিক তখনই জোড়া ছক্কায় বাজিতমাত করে সিলেট সুপার স্টারসের শেষ চারের আশা বাঁচিয়ে রাখলেন পাকিস্তানি অলরাউন্ডার। শেষ তিন বলে প্রয়োজন ছিল ৮ রান। আফ্রিদি এক বল বাকি থাকতেই জয় এনে দিলেন সিলেটকে। স্বস্তি নেই তাতেও।

আফ্রিদি ও তার দলের বিপিএল শেষ হয়ে যেতে পারে আজই। কুমিল্লার বিপক্ষে শেষ ম্যাচে আজ তাদের শুধু জিতলেই হবে না, সেটা হতে হবে বড় ব্যবধানে। একই সঙ্গে

কামনা করতে হবে বরিশালের বিপক্ষে ঢাকা যেন বড় ব্যবধানে হারে। শেষ চারের পথে সিলেটের লড়াইটা ঢাকার সঙ্গেই। তবে এত হিসাব-নিকাশের জটিল ভাবনায় যেতে চান না সিলেট অধিনায়ক আফ্রিদি। শেষ ম্যাচটা সে ফ উপভোগ করতে চান তিনি।

কাল ম্যাচ শেষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে এই অলরাউন্ডার বলেন, ‘আমাদের এখনও সামান্য সম্ভাবনা আছে। আজকে (কাল) রাতে আমরা বসব, পরিকল্পনা ঠিক করব।

আমাদের জিততে হবে। শুধু জিতলেই চলবে না, বড় ব্যবধানে জিততে হবে। ঢাকাকেও হারতে হবে।’ তিনি বলেন, ‘পুরোটা আমাদের হাতে নেই। পরের রাউন্ড নিয়ে না ভেবে আমরা তাই চেষ্টা করব মাঠে নেমে খেলাটা উপভোগ করতে।’ এদিকে কাল হাফ সেঞ্চুরি করা জুনায়েদ সিদ্দিকীর বিশ্বাস ছিল আফ্রিদি উইকেটে থাকলেই জয় আসবে। জুনায়েদ বলেন, ‘শেষ ওভারের আগের ওভার খুবই গুরুত্বপূর্ণ মনে হয়েছে। বোলিংয়ে ছিল মুস্তাফিজ। সে এখন বিশ্বমানের বোলার। আমি তাকে খেলেছি। খুব ভালো জায়গায় বল করে। অনেক বৈচিত্র্য আছে। তাই ভয় হচ্ছিল। আফ্রিদি ডট বল দিয়ে ফেলতে পারে বলে ভয় পাচ্ছিলাম। তারপরও বিশ্বাস ছিল। সে অভিজ্ঞ ক্রিকেটার। মনে হয়েছিল সে শেষ পর্যন্ত থাকতে পারলে ফল আমাদের দিকেই আসবে।’ শেষ ওভারে ফরহাদ রেজার বোলিং নিয়ে তিনি বলেন, ‘ফরহাদ খুবই কার্যকর একজন খেলোয়াড়। ঘরোয়া ক্রিকেটে সে সব সময় ভালো দলে খেলে। পারফর্মও করছে। শেষ ওভারে অবশ্য ওর ওপর চাপ ছিল। সে ইয়র্কার দেয়ার চেষ্টা করছিল। এতে একটা-দুইটা ফুলটস হয়ে গেলে আফ্রিদি সেগুলো বাইরে পাঠাতে পারবে বলে বিশ্বাস ছিল। শেষ পর্যন্ত সেটাই হয়েছে।’



সাবমিট

উপভোগের মন্ত্র আফ্রিদির দুই ছয়ে বড় জয়

 স্পোর্টস রিপোর্টার 
১০ ডিসেম্বর ২০১৫, ১২:০০ এএম  | 
শেষ ওভারে টানা দুই বলে ছক্কা মেরে অবশেষে শহীদ আফ্রিদি নিজের জাত চেনালেন। ঢাকা ডায়নামাইটসের বিপক্ষে দল যখন হারের শংকায় ঠিক তখনই জোড়া ছক্কায় বাজিতমাত করে সিলেট সুপার স্টারসের শেষ চারের আশা বাঁচিয়ে রাখলেন পাকিস্তানি অলরাউন্ডার। শেষ তিন বলে প্রয়োজন ছিল ৮ রান। আফ্রিদি এক বল বাকি থাকতেই জয় এনে দিলেন সিলেটকে। স্বস্তি নেই তাতেও।

আফ্রিদি ও তার দলের বিপিএল শেষ হয়ে যেতে পারে আজই। কুমিল্লার বিপক্ষে শেষ ম্যাচে আজ তাদের শুধু জিতলেই হবে না, সেটা হতে হবে বড় ব্যবধানে। একই সঙ্গে

কামনা করতে হবে বরিশালের বিপক্ষে ঢাকা যেন বড় ব্যবধানে হারে। শেষ চারের পথে সিলেটের লড়াইটা ঢাকার সঙ্গেই। তবে এত হিসাব-নিকাশের জটিল ভাবনায় যেতে চান না সিলেট অধিনায়ক আফ্রিদি। শেষ ম্যাচটা সে ফ উপভোগ করতে চান তিনি।

কাল ম্যাচ শেষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে এই অলরাউন্ডার বলেন, ‘আমাদের এখনও সামান্য সম্ভাবনা আছে। আজকে (কাল) রাতে আমরা বসব, পরিকল্পনা ঠিক করব।

আমাদের জিততে হবে। শুধু জিতলেই চলবে না, বড় ব্যবধানে জিততে হবে। ঢাকাকেও হারতে হবে।’ তিনি বলেন, ‘পুরোটা আমাদের হাতে নেই। পরের রাউন্ড নিয়ে না ভেবে আমরা তাই চেষ্টা করব মাঠে নেমে খেলাটা উপভোগ করতে।’ এদিকে কাল হাফ সেঞ্চুরি করা জুনায়েদ সিদ্দিকীর বিশ্বাস ছিল আফ্রিদি উইকেটে থাকলেই জয় আসবে। জুনায়েদ বলেন, ‘শেষ ওভারের আগের ওভার খুবই গুরুত্বপূর্ণ মনে হয়েছে। বোলিংয়ে ছিল মুস্তাফিজ। সে এখন বিশ্বমানের বোলার। আমি তাকে খেলেছি। খুব ভালো জায়গায় বল করে। অনেক বৈচিত্র্য আছে। তাই ভয় হচ্ছিল। আফ্রিদি ডট বল দিয়ে ফেলতে পারে বলে ভয় পাচ্ছিলাম। তারপরও বিশ্বাস ছিল। সে অভিজ্ঞ ক্রিকেটার। মনে হয়েছিল সে শেষ পর্যন্ত থাকতে পারলে ফল আমাদের দিকেই আসবে।’ শেষ ওভারে ফরহাদ রেজার বোলিং নিয়ে তিনি বলেন, ‘ফরহাদ খুবই কার্যকর একজন খেলোয়াড়। ঘরোয়া ক্রিকেটে সে সব সময় ভালো দলে খেলে। পারফর্মও করছে। শেষ ওভারে অবশ্য ওর ওপর চাপ ছিল। সে ইয়র্কার দেয়ার চেষ্টা করছিল। এতে একটা-দুইটা ফুলটস হয়ে গেলে আফ্রিদি সেগুলো বাইরে পাঠাতে পারবে বলে বিশ্বাস ছিল। শেষ পর্যন্ত সেটাই হয়েছে।’



 
শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র