¦
ভ্যালেন্টাইনের লাল গোলাপ

এফ আই দীপু ও অভি মঈনুদ্দীন | প্রকাশ : ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৫

অনন্ত-বর্ষা: ভালোবাসা দিবস নিয়ে বিশেষ কোনো পরিকল্পনা নেই। তবে বর্ষাকে যেহেতু ভালোবেসে বিয়ে করেছি, তাই প্রথম শুভেচ্ছাটা তাকেই জানাব। বর্ষাকে নিয়ে প্রতিদিনই আমার ভালোবাসা দিবস কাটে। কোনো দিন আলাদাভাবে ভেবে দেখেনি- জানালেন অনন্ত। ভালোবাসা দিবস নিয়ে বর্ষার মন্তব্য ছিল এমনই। শুধু পর্দায় নয়, পর্দার বাইরেও ভালোবাসার জুটি হিসেবে ভক্তদের কাছে বিশেষ গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে এ জুটির। ভালোবাসার ফসল হিসেবে তাদের সংসার আলোকিত করে এসেছে একমাত্র সন্তান আরিজ। তাই তাদের ভালোবাসা এখন আর দুজনের মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই। তিনজনে মিলেই বেশ সুখে-শান্তিতে ভালোবাসাময় দিন কাটাচ্ছেন তারা- জানালেন অনন্ত ও বর্ষা।
হৃদয়-সুজানা : সবাইকে ভালোবাসা দিবসের শুভেচ্ছা। এবারের ভালোবাসা দিবসে যে যেখানেই থাকুক না কেন সবাই যেন আল্লাহর রহমতে ভালো থাকেন সুস্থ থাকেন এ দোয়া করি। এবারের ভালোবাসা দিবসকে ঘিরে এখনও কোনো পরিকল্পনা নেই। কারণ কিছুদিন আগে রহমতুল্লাহ তুহিনের নির্দেশনায় ‘গন্তব্য নিরুদ্দেশ’ নাটকের শুটিং করতে আমরা দু’জনই গিয়েছিলাম ব্যাংককে। সেখানে শুটিংয়ের ফাঁকে ফাঁকে আমরা ইচ্ছামতো ঘুরে বেড়িয়েছি। দেশে ফিরে আমরা যে যে যার যার কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়েছি। যে কারণে ভালোবাসা দিবসে কী করব তার এখনও চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে সারা দিন একসঙ্গে কাটাব এতটুকু বলতে পারি। বছরের বিশেষ এই দিনে আমরা একেবারেই আমাদের মতো সময় কাটাব। হয়তো এমনও হতে পারে সমাজের দুঃখী মানুষের পাশে কিছুটা সময় কাটাব- এমনটাই জানালেন হৃদয় ও সুজানা।
ফারুকী-তিশা : তিশা জানালেন- ভালোবাসা এমনই একটি বিষয়, যাদের মধ্য থেকে এ ভালোবাসা উঠে যায় তাদের জীবনে অনেক কষ্ট নেমে আসে। তাই ভালোবাসাকে বুকে আগলে রেখে যারা যুগের পর যুগ একে অপরের সঙ্গে বন্ধনে জড়িয়ে থাকে তারাই সুখে থাকে, থাকতে পারে। আমি ও ফারুকী দু’জন সেই ভালোবাসাকে সঙ্গী করেই ভালো আছি, সুখে আছি।’ ফারুকী বলেন- বছরের বিশেষ এ দিনটিতে সাধারণত চেষ্টা করি কোনো কাজ না রাখার। তারপরও যদি জরুরি কাজ পড়ে যায় তখন আসলে আর কিছু করার থাকে না। তবে আমরা দু’জনই চেষ্টা করি কাজ না রাখতে। হয়তো এবারের ভালোবাসা দিবসেও আমরা দু’জন একে অন্যকে বেশ ভালো সময় দিতে পারব। কারণ এখন পর্যন্ত নিজেদের সময় দেয়া ছাড়া আর তেমন কোনো ব্যস্ততা রাখিনি। আমরা বছরের বিশেষ বিশেষ সময়গুলোতেই শুধু নয় সবসময়ই দু’জন দু’জনকে বিশেষভাবে সময় দেয়ার চেষ্টা করি। কারণ আমরা মনেকরি দাম্পত্য জীবনে স্বামী স্ত্রীকে কিংবা স্ত্রী স্বামীকে সময়টা দিলে জীবন হয়ে ওঠে অনেক সুন্দর। সেই সুন্দর জীবনের প্রত্যাশা সবসময়ই ছিল, আছে এবং থাকবে।
হিল্লোল-নওশীন : ভালোবাসা দিবস কীভাবে কাটাবেন এমন প্রশ্নে নওশীন বলেন, ‘রাজধানীর উত্তরায় আমরা আমাদের সুখের সংসারের দিনগুলো পার করছি। দু’জনই নাটকের কাজ নিয়ে বলা যায় একটু ব্যস্ত সময় পার করছি। তবে দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি অনুকূলে না থাকায় বেশ ক’দিন ধরে মনেরমতো ঘুরে বেড়ানো হচ্ছে না। এটা আসলে একটা কষ্টেরই বিষয়। কারণ শুধু টানা কাজ করলেই হয় না মাঝে মাঝে নিজেদেরও একটু সময় দিতে হয়। তো সেই সময়টা আসলে বিগত বেশ ক’দিন ধরে দেয়া হচ্ছে না। এবারের ভালোবাসা দিবস তো শনিবার। জানি না ওইদিন দেশের সার্বিক পরিস্থিতি কেমন থাকে। যদি ভালো থাকে তাহলে সময়টা বেশ ভালো কাটবে আশাকরি।’ হিল্লোল বলেন- আমরা আসলে দু’জনেই দু’জনকে সবসময় যথেষ্ট সময় দেয়ার চেষ্টা করি। জীবন তো একটাই, তাই এ জীবনের প্রতিটি মুহূর্ত বেশ ভালোভাবে উপভোগ করতে চাই। পৃথিবীর সব মানুষ যেন সবসময় ভালো থাকে আমরা এ প্রার্থনা করি। বিশেষ করে আসছে ভালোবাসা দিবসে প্রতিটি মানুষকে ভালোবাসা ঘিরে থাকুক এটা কামনা করি। এবারের ভালোবাসা দিবসে ইচ্ছা ছিল সিলেট যাওয়ার কিন্তু হয়তো সেটা আর সম্ভব হয়ে উঠছে না। রাজধানীতেই আমাদের সময়টা যেন ভালো কাটে এই দোয়া চাই সবার কাছে।’
 

তারাঝিলমিল পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close