¦

এইমাত্র পাওয়া

  • বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম পার্শ্বে কোনাবাড়ি এলাকায় বাসে পেট্রোল বোমা হামলা: ৬ যাত্রী দগ্ধ ২ জনের অবস্থা আশংকাজনক
অবশেষে ঘোষণা তবে বিয়ে কবে?

পিয়াস রায় | প্রকাশ : ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৫

কথায় আছে ধর্মের কল বাতাসে নড়ে। তেমনি সত্যের পাল হাওয়ায় উড়বেই একদিন না একদিন। সে যত দেরি কিংবা আগেই হোক না কেন। শাক দিয়ে যেমন মাছ ঢাকা যায় না তেমনি মিথ্যা দিয়ে সত্যকে আর কতটাই বা আড়াল রাখা যায়? আর সেই সত্যটা যদি হয় মিলা কুনিস ও অ্যাস্টন কুশারের মতো কোনো তারকা দম্পতির বিষয়ে তবে তো কথাই নেই। সাবেক প্রেমিক জিমির কাছ থেকে আলাদ হওয়ার পর বিরহের বেদনটা কুরে কুরে খাচ্ছিল মিলাকে। অন্যদিকে ডেমি মুরের সঙ্গে আট বছরের অসম বৈবাহিক জীবন কাটিয়ে আসা অ্যাস্টন কুচার তখন গুনছিলেন বিদায়ের মুহূর্ত। যদিও মতভেদ আছে মিলার আগমনই নাকি অ্যাস্টনের জীবনে মূল্যহীন করে তোলে ডেমি মুরকে। থাক সে কথা, ধীরে ধীরে মিলা ও অ্যাস্টনের বন্ধুত্ব কাছে আসতে আসতে রূপ নেয় প্রণয়ে। যদিও আজ অব্দি সেই সময়ের প্রেমের বিষয়টি অস্বীকারই করেছেন দুজনে। দুজনের এক হওয়ার পথে দূরত্ব ছিল শুধু ডেমির সঙ্গে অ্যাস্টনের আইনিভাবে পৃথক হওয়ার বিষয়টি। ২০১৪ সালে সেটি চূড়ান্ত হলে বিয়ের পিঁড়িতে বসেন দুজন। কিন্তু তাও একান্ত গোপনীয়তার সঙ্গেই। তবে গেল বছরের সেপ্টেম্বরে যখন মা হন মিলা তখন আর ওপেন সিক্রেটটিকে সিক্রেট হিসেবে রাখতে পারলেন না কেউই। মিলাকে নিজের সন্তানের মা বলে স্বীকার করে নিলেও নিজের বাগদত্তা কিংবা স্ত্রী হিসেবে ঘোষণা দিতে তখনও পিছপা অ্যাস্টন। তবে সেই ঘোষণাই এল সম্প্রতি। অস্ট্রেলিয়া লেনোভোর কিছু প্রযুক্তি পণ্য সংক্রান্ত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির আসনে উপস্থিত ছিলেন অ্যাস্টন। আর সেখানেই ফাটালেন বোমা। একেবারে হাটে হাঁড়ি ভাঙার মতো জাহির করলেন মিলার সঙ্গে তার শরীরী সম্পর্কের বিষয়গুলো। তবে ভোলেননি প্রথমবারের মতো মেয়ের বাবা হওয়ার অভূতপূর্ব অভিজ্ঞতার বিষয়টিকে ভাগ করে নিতে। তবে সেখানে এখনও মিলাকে তার বাগদত্তা বলেই কাজ চালালেন অ্যাস্টন। সহসাই অ্যাস্টনের এমন কথায় হাসির রোল উঠলেও বিয়েটা কবে তা বলতে আগ্রহ বোধ করেননি অ্যাস্টন। শুধু তাই নয়, রথ দেখা আর কলার বেচার মতো করে লেনোভোর অনুষ্ঠানে এসে মিলার পরবর্তী ছবি ‘জুপিটার অ্যাসেন্ডিং’-এর খানিকটা প্রচারণাও করে গেছেন বীরদর্পে।
 

তারাঝিলমিল পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close