¦
যেমন দেখেছেন রুনা লায়লাকে

| প্রকাশ : ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৫

তার সম্পর্কে শুধু এটুকুই বলতে চাই বিশেষ করে একজন শিল্পী যেমন হওয়া উচিত রুনা লায়লা ঠিক তাই। একজন শিল্পীর যেসব গুণাবলী থাকা প্রয়োজন তার সবই আছে রুনার মাঝে। প্রতিটি গানেই তিনি সিরিয়াস থাকার চেষ্টা করতেন। তার সময়-জ্ঞান অত্যন্ত বেশি। যদি কখনও এক মিনিটও দেরি হয়ে যায়, তৎক্ষণাৎ দুঃখিত বলে ক্ষমা চেয়ে নেন যা সত্যিই বিরল। রুনা লায়লা এমনই একজন কণ্ঠশিল্পী যার সম্পর্কে অল্প কথায় বলে শেষ করা যাবে না।
আলম খান, সঙ্গীতজ্ঞ
রুনা অত্যন্ত বড় মাপের একজন শিল্পী। শুধু এ দেশেরই নয়, উপমহাদেশের শ্রেষ্ঠ কয়েকজন শিল্পীর মধ্যে তিনি একজন। কিন্তু দুঃখ এখানেই যে, তাকে যেভাবে ব্যবহার করা যেত সেভাবে বাংলাদেশে তাকে ব্যবহার করা হয়নি। যতদূর মনে পড়ে তারসঙ্গে আমি প্রথম প্লে-ব্যাক করি রাজা-শ্যামের সুর সঙ্গীতে সাধু শয়তান চলচ্চিত্রে। এরপর আরও বহু চলচ্চিত্রে আমরা একসঙ্গে গেয়েছি। রুনা লায়লা খুব উঁচু মাপের একজন শিল্পী হয়েও খুব সাধারণ একজন মানুষ।
সৈয়দ আবদুল হাদী,সঙ্গীতজ্ঞ
পাকিস্তানেই প্রথম প্লে-ব্যাক করেছেন রুনা লায়লা। আমার অভিনীত বহু চলচ্চিত্রে তিনি গেয়েছেন। তার গানে আমি লিপসিং করেছি অনেক চলচ্চিত্রে। তার পিকআপ সেন্স ছিল প্রখর। একবার শুনলেই তিনি খুব সহজেই গাইতে পারতেন। ৭৪ সালে যখন তিনি পাকিস্তান ছেড়ে বাংলাদেশে চলে এলেন তখন পাকিস্তানের প্লে-ব্যাকে হঠাৎ যেন এক শূন্যতা তৈরি হয়। রুনাবিহীন প্লে-ব্যাক যেন ভাবাই যায়নি সে সময়। সত্যিই রুনা লায়লা অত্যন্ত গুণী একজন শিল্পী।
শবনম, চিত্রনায়িকা
এদেশে রুনা লায়লা প্রথম প্লে-ব্যাক করেন সত্য সাহার সুরে। এর পরপরই তিনি আমার এবং রাজা ভাইয়ের সুর সঙ্গীতে প্লে-ব্যাক করেন। রুনা লায়লা এমনই একজন শিল্পী যাকে মাইক্রোফোনের সামনে সবসময়ই সঠিকভাবে পেয়েছি। তার কণ্ঠ ঈশ্বরের নিজের দান। আগে হয়তো নিয়মিত দেখা হতো, এখন আর হয় না। কিন্তু তবুও তার সঙ্গে ভাই-বোনের সম্পর্ক বিদ্যমান। এত গুণী, নম্র, ভদ্র শিল্পী খুব কমই চোখে পড়ে।
সুজেয় শ্যাম, সঙ্গীতজ্ঞ
আমার এখনও স্পষ্ট মনে আছে বাংলাদেশ টেলিভিশনে তিনি যখন প্রথম কয়েকটি গান টানা গেয়েছিলেন সে গান শুনে মুগ্ধ হয়ে গিয়েছিলাম। প্রতিটি গানই আমি আমার কণ্ঠে তুলে নিয়েছিলাম। রুনা লায়লা বাংলাদেশের একজন আইকন। ক্ল্যাসিক্যাল জেনেই তিনি গানের ভুবনে এসেছেন। গান গাওয়ার ক্ষেত্রে রাগকে যথাযথভাবে ব্যবহার করার এবং উচ্চারণের যথাযথ প্রয়োগ তিনি করেন-এ বিষয়টা আমাকে সত্যিই খুব মুগ্ধ করে।
ফেরদৌস আরা, সঙ্গীতশিল্পী
রুনা লায়লা এমনই একজন কণ্ঠশিল্পী যার কারণে এ দেশ, এ দেশের সংস্কৃতি বহির্বিশ্বে বিশেষ পরিচিত লাভ করেছে। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বাংলা গানকে পৌঁছানোর ক্ষেত্রে তার অবদানকে অস্বীকার করার কোনো উপায় নেই। গুণী এ সঙ্গীতশিল্পীর কাছে আমার প্রত্যাশা থাকবে, তিনি যেন অন্তত মাসে একদিন নতুন প্রজšে§র শিল্পীদের গান শেখানোর পাশাপাশি মাইক্রোফোনে থ্রোয়িংটা অন্তত শেখান। তাতে অন্তত আমাদের সঙ্গীতাঙ্গনের উপকার হবে।
কুমার বিশ্বজিৎ, সঙ্গীতশিল্পী
পেশাদারিত্ব মনোভাব নিয়ে কাজ করার যে বিষয়টা এখনও আমার মাঝে কাজ করে এটা আমি শিখেছি রুনা আপার কাছেই। এক কথায় রুনা আপা এ দেশেরই শুধু নয় এ উপমহাদেশের একজন অনবদ্য সঙ্গীতশিল্পী। যার কাছ থেকে নতুন প্রজন্মের অনেক কিছু শেখার রয়েছে। তার কাছে আমার বিশেষ অনুরোধ তিনি যেন এমন আরও কিছু গান করে যান যা থেকে নতুন প্রজন্ম শিখতে পারে, জানতে পারে সর্বোপরি গান সম্পর্কে অনুধাবন করতে পারে।
এ্যান্ড্রু কিশোর, সঙ্গীতশিল্পী
তারাঝিলমিল পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close