¦

এইমাত্র পাওয়া

  • চাঁদা না দেয়ায় নরসিংদীর পলাশে সন্ত্রাসীদের হামলায় সাবেক ফুটবলার নাদিরুজ্জামান খন্দকার নিহত
ইচ্ছে হলেই মুছে ফেলা যাবে স্মৃতি

যুগান্তর ডেস্ক | প্রকাশ : ২৫ মে ২০১৫

ইচ্ছে হলেই মস্তিষ্ক থেকে মুছে ফেলা যাবে স্মৃতি। আবার যখন তখন ফিরিয়েও আনা যাবে। নিজের মগজ ধোলাইয়ের রসায়ন এখন মানুষের নাগালে। মস্তিষ্কের স্মৃতি ধরে রাখার জটিল রসায়নটি আবিষ্কার করে ফেলেছেন সুইজারল্যান্ডের একদল চিকিৎসাবিজ্ঞানী। চিকিৎসাশাস্ত্রে, বিশেষ করে স্মৃতিভ্রংশ রোগে আক্রান্তদের চিকিৎ??সায় এ আবিষ্কারকে এক যুগান্তকারী সাফল্য বলেই আখ্যা দিচ্ছেন বিশ্বের তাবড় চিকিৎসকরা। ডেইলি মেইলের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ইকোলে পলিটেকনিক ফেডারেল ডি লুজানে বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক দীর্ঘদিন ধরেই মস্তিষ্কের স্মৃতি ধরে রাখা ও মুছে যাওয়ার রসায়নটি খুঁজে বের করতে গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছিলেন। তাদের মূল গবেষণার বিষয় ছিল, ঠিক কোন প্রক্রিয়ায় মস্তিষ্ক স্মৃতি জমা রাখে এবং ভুলে যায়। বিজ্ঞানীদলের প্রধান উলফার্ম গার্স্টনার জানাচ্ছেন, এটি একটি জটিল প্রক্রিয়া। নাম মেমরি অ্যাসেম্বলিজ। মস্তিষ্কে নিউরোনের প্রচুর নেটওয়ার্ক আছে। বহু সিনাপসি (এক ধরনের নার্ভাস সিস্টেম, যার মাধ্যমে নিউরোন ব্রেনে সিগন্যাল পাঠায়)-এর সঙ্গে ওই নেটওয়ার্কগুলো যুক্ত। এভাবে প্রত্যেকটি স্মৃতির অ্যাসেম্বলিজ তৈরি হয়। যখনই মস্তিষ্ক কোনো স্মৃতি মনে করে, সেই স্মৃতির নির্দিষ্ট অ্যাসেম্বলিজ গোটা বিষয়টির জোগান দেয়।
ইঁদুরের ওপর বিজ্ঞানীরা গবেষণা চালিয়ে দেখেছেন, ইঁদুর যখন ঘুমোচ্ছে, কীভাবে তার মস্তিষ্কের প্রক্রিয়াগুলোর পরিবর্তন হচ্ছে। ইঁদুরের মস্তিষ্কে সেই প্রক্রিয়া প্রয়োগ করে বিজ্ঞানীরা অভূতপূর্ব সাফল্য পেয়েছেন। তাদের বক্তব্য, ওই একই প্রক্রিয়ায় মানুষের মস্তিষ্ক থেকে স্মৃতি মুছে ফেলা যাবে, কিংবা পুরনো স্মৃতি ফিরিয়ে আনা সম্ভব হবে অদূর ভবিষ্যতেই। গাণিতিক ও বৈজ্ঞানিক প্রক্রিয়ায় এখন ডাক্তাররাই নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন মানুষের মস্তিষ্ক।
 

দশ দিগন্ত পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close