jugantor
হোমস’র পুরো নিয়ন্ত্রণ ফিরছে সিরিয়ার হাতে

  যুগান্তর ডেস্ক  

১০ ডিসেম্বর ২০১৫, ০০:০০:০০  | 

সিরিয়ার সরকারের সঙ্গে হওয়া অস্ত্রবিরতি চুক্তির অংশ হিসেবে নিজেদের নিয়ন্ত্রণে থাকা হোমস শহরের সর্বশেষ এলাকাটিও ছাড়তে শুরু করেছে সিরীয় বিদ্রোহীরা। মানবাধিকারবিষয়ক পর্যবেক্ষক সংস্থা সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটসের বরাতে খবরটি জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম বিবিসি। সরকারপক্ষ ও বিদ্রোহীদের মধ্যে হওয়া ওই চুক্তির আওতায় পুরো হোমস শহরের নিয়ন্ত্রণ আবারও সরকারকে ফিরিয়ে দেয়ার কথা রয়েছে।

সিরিয়ান অবজারভেটরির বরাতে বিবিসি জানায়, এরই মধ্যে হোমসের বিদ্রোহীবাহী প্রথম বাসটি হোমসের আল ওয়ার ছেড়েছে।

বুধবারের মধ্যেই বিদ্রোহী যোদ্ধা এবং বেসামরিকসহ অন্তত ৮শ’ মানুষের এলাকাটি ছাড়ার কথা রয়েছে। বিদ্রোহীরা হোমস ছেড়ে তাদের নিয়ন্ত্রণাধীন ইদলিব প্রদেশের দিকে যাচ্ছেন।

২০১১ সালে সিরিয়ার তৃতীয় বৃহত্তম শহর হোমসে সরকারবিরোধী বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। পরে হোমসের হাজার হাজার বাসিন্দাও বিক্ষোভে জড়িয়ে পড়ে।

২০১২ সালে শহরটির নিয়ন্ত্রণ নিতে ব্যাপক অভিযান শুরু করে সরকারি বাহিনী। বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত এলাকাগুলোতে বোমা হামলা শুরু করে তারা। সে সময় এক রকম অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে গোটা হোমস শহর।

এমন পরিস্থিতিতে দুই বছরেরও বেশি সময়ের আলোচনার পর অস্ত্রবিরতি চুক্তিতে পৌঁছায় দু’পক্ষ। চুক্তির প্রথম পর্যায় অনুযায়ী, আল কায়দা সংশ্লিষ্টরাসহ শত শত বিদ্রোহী অবরুদ্ধ এলাকাগুলো ছাড়বেন।

আর কিছু কিছু এলাকায় কিছু বিদ্রোহী গোষ্ঠী তাদের অস্ত্র বহন করতে পারবে এবং সে এলাকাগুলো তাদের নিয়ন্ত্রণে থাকবে। বিবিসি।



সাবমিট

হোমস’র পুরো নিয়ন্ত্রণ ফিরছে সিরিয়ার হাতে

 যুগান্তর ডেস্ক 
১০ ডিসেম্বর ২০১৫, ১২:০০ এএম  | 
সিরিয়ার সরকারের সঙ্গে হওয়া অস্ত্রবিরতি চুক্তির অংশ হিসেবে নিজেদের নিয়ন্ত্রণে থাকা হোমস শহরের সর্বশেষ এলাকাটিও ছাড়তে শুরু করেছে সিরীয় বিদ্রোহীরা। মানবাধিকারবিষয়ক পর্যবেক্ষক সংস্থা সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটসের বরাতে খবরটি জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম বিবিসি। সরকারপক্ষ ও বিদ্রোহীদের মধ্যে হওয়া ওই চুক্তির আওতায় পুরো হোমস শহরের নিয়ন্ত্রণ আবারও সরকারকে ফিরিয়ে দেয়ার কথা রয়েছে।

সিরিয়ান অবজারভেটরির বরাতে বিবিসি জানায়, এরই মধ্যে হোমসের বিদ্রোহীবাহী প্রথম বাসটি হোমসের আল ওয়ার ছেড়েছে।

বুধবারের মধ্যেই বিদ্রোহী যোদ্ধা এবং বেসামরিকসহ অন্তত ৮শ’ মানুষের এলাকাটি ছাড়ার কথা রয়েছে। বিদ্রোহীরা হোমস ছেড়ে তাদের নিয়ন্ত্রণাধীন ইদলিব প্রদেশের দিকে যাচ্ছেন।

২০১১ সালে সিরিয়ার তৃতীয় বৃহত্তম শহর হোমসে সরকারবিরোধী বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। পরে হোমসের হাজার হাজার বাসিন্দাও বিক্ষোভে জড়িয়ে পড়ে।

২০১২ সালে শহরটির নিয়ন্ত্রণ নিতে ব্যাপক অভিযান শুরু করে সরকারি বাহিনী। বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত এলাকাগুলোতে বোমা হামলা শুরু করে তারা। সে সময় এক রকম অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে গোটা হোমস শহর।

এমন পরিস্থিতিতে দুই বছরেরও বেশি সময়ের আলোচনার পর অস্ত্রবিরতি চুক্তিতে পৌঁছায় দু’পক্ষ। চুক্তির প্রথম পর্যায় অনুযায়ী, আল কায়দা সংশ্লিষ্টরাসহ শত শত বিদ্রোহী অবরুদ্ধ এলাকাগুলো ছাড়বেন।

আর কিছু কিছু এলাকায় কিছু বিদ্রোহী গোষ্ঠী তাদের অস্ত্র বহন করতে পারবে এবং সে এলাকাগুলো তাদের নিয়ন্ত্রণে থাকবে। বিবিসি।



 
শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র