jugantor
আদালতে সোনিয়া রাহুলের জামিন বিজেপির পরাজয়

  যুগান্তর ডেস্ক  

২০ ডিসেম্বর ২০১৫, ০০:০০:০০  | 

ন্যাশনাল হেরাল্ড দুর্নীতি মামলায় আদালতে হাজির হয়ে জামিন পেয়েছেন ভারতের প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসের সভানেত্রী ও তার ছেলে দলের সহসভাপতি রাহুল গান্ধী। শনিবার পাতিয়ালা হাউস আদালতে শুনানি শুরুর পাঁচ মিনিটের মধ্যে জামিন পাওয়ায় একে ক্ষমতাসীন বিজেপির পরাজয় হিসেবে দেখা হচ্ছে। বিরোধী দমনের কৌশল হিসেবেই এমন মামলা দেয়া হয়েছিল বলে মন্তব্য করে আসছিলেন কংগ্রেস নেতারা। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়া ও এনডিটিভি।

সোনিয়া ও রাহুল আদালতে পৌঁছানোর এক মিনিট পরেই ২টা ৫২ মিনিটে শুনানি শুরু হয়। গান্ধী পরিবারের পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন আইনজীবী কপিল সিবাল। এ সময় বাইরে বেশ কয়েকজন আইনজীবী সোনিয়া ও রাহুলের পক্ষে স্লোগান দেন। শুনানি শেষে এক মিনিটের মধ্যেই আদালত ৫০ হাজার টাকা জামানতের বিনিময়ে দু’জনের জামিন মঞ্জুর করেন। মামলার পরবর্তী শুনানি আগামী ২০ ফেব্র“য়ারি দিন ধার্য করেছেন আদালত। তবে পরবর্তী শুনানিতে আসামিদের আদালতে সশরীরে হাজিরা থেকে অব্যাহতির আবেদন নাকচ করে দিয়েছেন। এ সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং, কংগ্রেস নেতা গোলাম নবি আজাদ, আহমেদ প্যাটেল, সোনিয়ার মেয়ে প্রিয়াংকা গান্ধী, তার স্বামী রবার্ট ভদ্রসহ কংগ্রেস নেতারা।

বিজেপির নেতা সুব্রামানিয়াম স্বামীর করা এ মামলায় শীর্ষ কংগ্রেস নেতা ও গান্ধী পরিবারের সহযোগীসহ আরও চারজনকে জামিন দিয়েছেন আদালত। ২০১৩ সালের জানুয়ারিতে দিল্লির আদালতে সোনিয়া ও রাহুল গান্ধীসহ তাদের কোম্পানি ও সহযোগীদের বিরুদ্ধে তিনি মামলাটি করেন। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তারা দলীয় তহবিল তছরুপ করে জওহরলাল নেহরুর প্রতিষ্ঠিত ন্যাশনাল হেরাল্ড নামের ওই ইংরেজি পত্রিকাটির সম্পত্তি কিনে মুনাফা করেছেন এবং আয়কর আইন ভেঙেছেন।

১৯৩৮ সালে ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরু ন্যাশনাল হেরাল্ড পত্রিকা চালু করেন। কয়েক দশক ধরে অব্যবস্থাপনা ও ক্ষতির মধ্যে থাকায় ২০০৮ সালে পত্রিকাটি বন্ধ করে দেয়া হয়।

এক বিবৃতিতে সোনিয়া গান্ধী বলেন, ‘নির্ভেজাল বিবেক নিয়ে আমি আদালতে হাজির হয়েছি। আমরা ভয় পাব না, আমাদের লড়াই চলবে।


 

সাবমিট

আদালতে সোনিয়া রাহুলের জামিন বিজেপির পরাজয়

 যুগান্তর ডেস্ক 
২০ ডিসেম্বর ২০১৫, ১২:০০ এএম  | 

ন্যাশনাল হেরাল্ড দুর্নীতি মামলায় আদালতে হাজির হয়ে জামিন পেয়েছেন ভারতের প্রধান বিরোধী দল কংগ্রেসের সভানেত্রী ও তার ছেলে দলের সহসভাপতি রাহুল গান্ধী। শনিবার পাতিয়ালা হাউস আদালতে শুনানি শুরুর পাঁচ মিনিটের মধ্যে জামিন পাওয়ায় একে ক্ষমতাসীন বিজেপির পরাজয় হিসেবে দেখা হচ্ছে। বিরোধী দমনের কৌশল হিসেবেই এমন মামলা দেয়া হয়েছিল বলে মন্তব্য করে আসছিলেন কংগ্রেস নেতারা। খবর টাইমস অব ইন্ডিয়া ও এনডিটিভি।

সোনিয়া ও রাহুল আদালতে পৌঁছানোর এক মিনিট পরেই ২টা ৫২ মিনিটে শুনানি শুরু হয়। গান্ধী পরিবারের পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন আইনজীবী কপিল সিবাল। এ সময় বাইরে বেশ কয়েকজন আইনজীবী সোনিয়া ও রাহুলের পক্ষে স্লোগান দেন। শুনানি শেষে এক মিনিটের মধ্যেই আদালত ৫০ হাজার টাকা জামানতের বিনিময়ে দু’জনের জামিন মঞ্জুর করেন। মামলার পরবর্তী শুনানি আগামী ২০ ফেব্র“য়ারি দিন ধার্য করেছেন আদালত। তবে পরবর্তী শুনানিতে আসামিদের আদালতে সশরীরে হাজিরা থেকে অব্যাহতির আবেদন নাকচ করে দিয়েছেন। এ সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং, কংগ্রেস নেতা গোলাম নবি আজাদ, আহমেদ প্যাটেল, সোনিয়ার মেয়ে প্রিয়াংকা গান্ধী, তার স্বামী রবার্ট ভদ্রসহ কংগ্রেস নেতারা।

বিজেপির নেতা সুব্রামানিয়াম স্বামীর করা এ মামলায় শীর্ষ কংগ্রেস নেতা ও গান্ধী পরিবারের সহযোগীসহ আরও চারজনকে জামিন দিয়েছেন আদালত। ২০১৩ সালের জানুয়ারিতে দিল্লির আদালতে সোনিয়া ও রাহুল গান্ধীসহ তাদের কোম্পানি ও সহযোগীদের বিরুদ্ধে তিনি মামলাটি করেন। তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তারা দলীয় তহবিল তছরুপ করে জওহরলাল নেহরুর প্রতিষ্ঠিত ন্যাশনাল হেরাল্ড নামের ওই ইংরেজি পত্রিকাটির সম্পত্তি কিনে মুনাফা করেছেন এবং আয়কর আইন ভেঙেছেন।

১৯৩৮ সালে ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরু ন্যাশনাল হেরাল্ড পত্রিকা চালু করেন। কয়েক দশক ধরে অব্যবস্থাপনা ও ক্ষতির মধ্যে থাকায় ২০০৮ সালে পত্রিকাটি বন্ধ করে দেয়া হয়।

এক বিবৃতিতে সোনিয়া গান্ধী বলেন, ‘নির্ভেজাল বিবেক নিয়ে আমি আদালতে হাজির হয়েছি। আমরা ভয় পাব না, আমাদের লড়াই চলবে।


 

 
শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র