রাজবাড়ী প্রতিনিধি    |    
প্রকাশ : ২১ এপ্রিল, ২০১৭ ২০:৩১:৫৫ | অাপডেট: ২১ এপ্রিল, ২০১৭ ২০:৩৩:৩৫ প্রিন্ট
বিয়ে না করেই পালালো প্রেমিক, অতঃপর...

রাজবাড়ীতে বিয়ের দিনে বিয়ে না করে পালিয়েছেন এক প্রেমিক। তবে বিয়ের ধার্য করা দিন বুধবার থেকে ৩ দিন ধরে তার বাড়িতে অনশন করছেন প্রেমিকা।

ওই প্রেমিকের নাম শামীম মোল্লা (২৫)। তিনি জেলা সদরের মূলঘর ইউনিয়নের বাঘিয়া গ্রামের আক্কাছ মোল্লার সন্তান। বর্তমানে তিনি কুমিল্লা সেনাক্যাম্পে সেনা সদস্য হিসেবে কর্মরত আছেন।

বৃহস্পতিবার দুপুরে অনশনরত প্রেমিকা দাবি করেন, তার বাড়ি জেলা সদরের শহীদওহাবপুর ইউনিয়নের গোয়ালন্দ মোড়ে। তারা দুজন একসঙ্গে ২০১৫ সালে রাজবাড়ীর ডা. আবুল হোসেন কলেজ থেকে এইচএসসি পরীক্ষা দেন। সেখানেই তাদের পরিচয়, পরিচয় থেকে প্রণয়। একপর্যায়ে শামীম তাকে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে দৈহিক সম্পর্ক গড়ে তোলে। ফুসলিয়ে মৌখিকভাবে কবুল বলে বিভিন্ন সময়ে তার সঙ্গে দৈহিক মেলামেশা করে শামীম।

সম্প্রতি শামীম তাকে বিয়ে করতে গড়িমসি করলে তরুণীটি তার পরিবারকে বিষয়টি জানায়। এরপর তার পরিবারের লোকজনও শামীমের পরিবারকে জানায়। কিন্তু শামীম টালবাহানা করতে থাকে। উপায় না পেয়ে তিনি মঙ্গলবার সকালে শামীমের বাড়িতে গিয়ে উঠেন। তখন শামীমও বাড়িতে ছিল।

এ ঘটনার পর বুধবার সকালে তার পরিবারের লোকজন শামীমের বাড়িতে বিয়ের প্রস্তাব নিয়ে আসে। কথাবার্তার এক পর্যায়ে শামীম তাকে বিয়ে করতে রাজিও হয়। কিন্তু দুপুরের পর শামীম কৌশলে বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়। এরপর থেকে তিনি (প্রেমিকা) ওই বাড়িতেই অবস্থান করছেন। শামীম তাকে বিয়ে না করা পর্যন্ত ওই বাড়িতেই তিনি অবস্থান করবেন বলে তরুণীটি জানান।

এ বিষয়ে শামীমের বাবা আক্কাছ মোল্লা জানান, আমরা বিয়ের আয়োজনও করেছিলাম। কিন্তু দুপুরের পর থেকে শামীমকে পাওয়া যাচ্ছে না।  

তরুণীর বাবা যুগান্তরকে জানান, দুই বছর ধরে আমার মেয়ের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে শামীম। এখন সে যদি আমার মেয়েকে বউ হিসেবে ঘরে না তুলে নেয় তাহলে আমি আইনের আশ্রয় নিতে বাধ্য হবো।   

মূলঘর ইউনিয়নের স্থানীয় ইউপি সদস্য আঃ হালিম মোল্লা জানান, আমরাও শামীমের পরিবারকে বুঝিয়েছি মেয়েটিকে মেনে নাও। শামীমের সঙ্গে বিয়ে দাও। বুধবার শামীমের বাবা আক্কাছ তাদের বিয়ে দেয়ার জন্য এলাকার লোকজনকে দাওয়াতও দিয়েছিলেন। কিন্তু পরবর্তীতে সে নিজেই শামীমকে পালিয়ে যেতে সহযোগিতা করে।

এ বিষয়ে মূলঘর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মান্নান মুসল্লী জানান, এ বিষয়ে আমি কিছুই জানি না। তবে অভিযোগ পেলে উভয় পক্ষের লোকজন সঙ্গে নিয়ে সমস্যা সমাধান করতে চেষ্টা করব।   

এ বিষয়ে প্রেমিক শামীম মোল্লার ব্যক্তিগত মোবাইল নম্বরে একাধিকবার ফোন করেও তাকে পাওয়া যায়নি।


আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by