•       রোহিঙ্গা শরণার্থী সব ক্যাম্পে টেলিটকের বুথ থাকবে, সেখান থেকে নাম মাত্র মূল্যে তাদের পরিবারের সঙ্গে কথা বলতে পারবেন: টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম
ফেনী প্রতিনিধি    |    
প্রকাশ : ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ২২:৪৫:১৭ প্রিন্ট
১৪ দিন হেঁটে সোনাগাজীতে ৭ শিশুসহ ১৩ রোহিঙ্গা

জীবন বাঁচাতে ১৪ দিনে হেঁটে মিয়ানমারের আরাকান রাজ্য থেকে ফেনীর সোনাগাজীতে আশ্রয় নিয়েছে ৭ শিশুসহ ১৩ রোহিঙ্গা।

গত ২৫ আগস্ট আরাকান রাজ্য থেকে হেঁটে ৯ সেপ্টেম্বর রাতে সোনাগাজী উপজেলার চর দরবেশ ইউনিয়নের চর সাহাভিখারী গ্রামে মাতব্বর বাড়িতে এসে আশ্রয় নিয়েছেন।

১০ সেপ্টেম্বর বিষয়টি জানাজানি হলে সোমবার রাতে পুলিশ প্রশাসনের নজরে আসেন। রাতেই সোনাগাজী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. হারুন মাতাব্বরের বাড়িতে গিয়ে রোহিঙ্গাদের তথ্য সংগ্রহ করেন। মানবতার কথা চিন্তা করে রোহিঙ্গাদের সহযোগিতা করতে এলাকাবাসীকে অনুরোধ করেন তিনি।

আশ্রয় নেয়া এসব রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তারা সবাই বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত।

রোহিঙ্গা নারীরা বাংলা ভাষা বলতে বা বুঝতে পারেন না। কিন্তু পুরুষ রোহিঙ্গারা বাংলা ভাষা অনেকটাই বোঝেন ও বলার চেষ্টা করেন।

ওই রোহিঙ্গা পরিবারের অভিভাবক মোহাম্মদ জাপর আহম্মদ মৌলভী বলেন, তার দুই মেয়েকে মিয়ানমার সেনা ও বৌদ্ধরা গুলি করে ও কুপিয়ে হত্যা করেছে। আরেক মেয়ের কোনো খোঁজ -খবর পাওয়া যায়নি। তাদের বাড়ি -ঘর জ্বালিয়ে দেয়া হয়েছে।

তিনি জানান, আরাকান রাজ্য থেকে জঙ্গল, নদী, পাহাড় অতিক্রম করে বাংলাদেশে এসেছেন জীবন বাঁচাতে। তারা বাংলাদেশে এসে নতুন প্রাণ পেয়েছেন।

জাপর আহম্মদের বড় ছেলে মৌলভি মোহাম্মদ সফি একজন ইমাম। আরাকান রাজ্যের একটি মসজিদের ইমামতি করতেন।

তাদের আশ্রয় দাতা চর দরবেশের সিরাজ সম্পর্কে জাপরের ভায়রাভাই। সিরাজ ৭ বছর পূর্বে আরাকান রাজ্যে গিয়ে বিয়ে করে ছিলেন।

স্থানিয় চেয়ারম্যান ও সোনাগাজী উপজেলা যুবলীগের সাধারন সম্পাদক নুরুল ইসলাম ভুট্টো বলেন, তিনি বিষয়টি জানতে পেরে স্থানীয় প্রশাসনকে জানিয়েছেন। তারা এসে দেখে গেছেন।

তিনি বলেন, মানবিক দিক বিবেচনায় তাদেরকে থাকতে দেয়া হয়েছে। তারা (রোহিঙ্গা) এখান থেকে যেতে হলে প্রশাসনকে জানিয়ে যেতে হবে।

সোনাগাজী মডেল থানার ওসি মো. হুমায়ুন কবির জানান, খবর পেয়ে থানা পুলিশ ঘটনার স্থল পরিদর্শন করে রোহিঙ্গাদের তথ্য সংগ্রহ করেছে।


আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by