অনলাইন ডেস্ক    |    
প্রকাশ : ১৭ জুলাই, ২০১৭ ২০:৪৬:০৭ প্রিন্ট
আমরা কাতারি সাইট হ্যাক করিনি: আরব আমিরাত
ফাইল ছবি

কাতারের রাষ্ট্রায়ত্ত সংবাদ সংস্থা হ্যাকিংয়ের সঙ্গে জড়িত থাকার কথা জোরালোভাবে অস্বীকার করেছে সংযুক্ত আরব অমিরাত।

গত মে মাসে কাতারের আমিরকে উদ্ধৃত করে ওই সংবাদ সংস্থা একটি সংবাদ প্রকাশ করে। যেখানে ইরানের প্রতি আমেরিকার 'শত্রুভাবাপন্ন মনোভাবে'র সমালোচনা করা হয় এবং হামাস-কেও ফিলিস্তিনি জনতার বৈধ প্রতিনিধি বলে বর্ণনা করা হয়।

কাতারের কর্মকর্তারা তখনই দাবি করেন, তাদের সাইট হ্যাক করা হয়েছে এবং ওই সব মন্তব্যের কোনও ভিত্তি নেই।

তবে ততক্ষণে ওই সব কথাবার্তা নিয়ে মধ্যপ্রাচ্যে তুলকালাম শুরু হয়ে গেছে। সংযুক্ত আর আমিরাত, সৌদি আরব, বাহরাইন ও মিশর সঙ্গে সঙ্গে কাতারের মিডিয়াকে ব্লক করে তাদের প্রতিক্রিয়া জানায়।

দুসপ্তাহ পর এই চারটি দেশ জঙ্গিবাদের প্রতি কাতারের কথিত সমর্থন ও ইরানের সঙ্গে তাদের সম্পর্কের প্রতিবাদে কাতারের সঙ্গে সব সম্পর্ক ছিন্ন করার ঘোষণা দেয়।

এখন মার্কিন গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের উদ্ধৃত করে ওয়াশিংটন পোস্টের এক প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, কাতার আমিরের উদ্ধৃতি করা ওই পোস্টিংয়ের পেছনে সংযুক্ত আরব আমিরাতের হাত ছিল।

তবে আমিরাতের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আনওয়ার গারগাশ সোমবার জানান, ওয়াশিংটন পোস্টের ওই রিপোর্ট মোটেই 'সত্যি নয়'।

এমন কী কাতারের কাছ থেকে যাতে ২০২২ সালের ফুটবল বিশ্বকাপ আয়োজনের দায়িত্ব কেড়ে নেওয়া হয়, সেই দাবি জানিয়ে আমিরাত ও আরও পাঁচটি আরব দেশ ফিফার কাছে কোনও চিঠি লেখেনি বলেও তিনি জানান।

ওয়াশিংটন পোস্টের রিপোর্টে অজ্ঞাতনামা মার্কিন গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে বলা হয়েছে, সদ্য পাওয়া তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা যাচ্ছে গত ২৩ মে আমিরাত সরকারের সিনিয়র সদস্যরা কাতারের রাষ্ট্রায়ত্ত সংবাদ সংস্থার সাইটগুলো হ্যাক করার পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা করেছিলেন।

আমিরাত কর্তৃপক্ষ নিজেরাই কাতারি সাইট হ্যাক করেছিল নাকি কোনও তৃতীয় পক্ষকে পয়সা দিয়ে সে কাজ করিয়েছিল - তা এখনও স্পষ্ট নয় বলে জানিয়েছেন ওই মার্কিন গোয়েন্দা কর্মকর্তারা।

এরআগে দ্য গার্ডিয়ান পত্রিকা গত মাসে রিপোর্ট করেছে, মার্কিন ফেডারেল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের তদন্তে দেখা গেছে ফ্রিল্যান্স রাশিয়ান হ্যাকাররাই নাকি এর জন্য দায়ী ছিল।
 


আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by