• শুক্রবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৭
সরোজ মেহেদী    |    
প্রকাশ : ১৯ এপ্রিল, ২০১৭ ১৪:০৪:০২ প্রিন্ট
কোথায় থামবেন এরদোগান!
ফাইল ফটো

‘হারতে হারতে জিতে গেলেন এরদোগান। জিততে জিততে হেরে গেলেন পাশা’। ঠিক কোন বাক্যটি দিয়ে বুঝানো যেতে পারে দুনিয়াজোড়া দীর্ঘদিন ধরে আলোচিত তুরস্কের সদ্য সমাপ্ত গণভোটকে!

তীব্র লড়াইয়ের পর প্রস্তাবিত সাংবিধানিক সংস্কারের লক্ষ্যে আয়োজিত এ গণভোটে এরদোগানের দল জিতে গেছে। তার এ জয় মানে আপাতদৃষ্টিতে তুরস্ক নামক রাষ্ট্রটি অস্থিতিশীলতার হাত থেকে রক্ষা পেল।

কেউ চান বা না চান বিশ্বরাজনীতিতে আরও ক’বছরের জন্য শত বছর আগে সাম্রাজ্য হারানো একটি দেশ তার অবস্থান শক্তিশালী করল। কিন্তু এই গণভোট তুরস্কের সমাজে যে ক্ষতের প্রলেপ লাগিয়ে দিয়ে গেল তার কী হবে!

৫১ শতাংশ মানুষ যেখানে ‘হ্যাঁ’ বলেছেন সেখানে ৪৯ শতাংশ বলেছেন ‘না’। এই পরিসংখ্যান আমাদের বলে দেয়, ‘হ্যাঁ’ জিতে গেলেও ‘না’ মোটেও দুর্বল নয়। বরং ‘না’ ওয়ালারা জিততেও পারত। তাদেরকে আসলে হারিয়ে দিয়েছে গণতন্ত্রের বেশধারী মানুষখেকো, ভণ্ড ও প্রতারক পশ্চিমারা।

পশ্চিমা নেতাদের দরকার ছিল না তুরস্কের নিজস্ব এ গণভোট নিয়ে গায়ে পড়ে এসে কাজিয়া বাঁধানোর বা এরদোগান বাহিনীর হাতে ঝগড়ার রসদ তুলে দেওয়ার। একচোখা পশ্চিমা মিডিয়া গণভোটের শুরু থেকেই তুরস্ক বিরোধী অযৌক্তিক প্রোপাগাণ্ডায় নেমেছিল। যা তাতিয়ে দেয় কট্টর জাতীয়তাবাদী তুর্কিদের আর এর চূড়ান্ত রুপ দেয় ক্রিশ্চান বর্ণবাদী মগা রাজনীতিবীদেরা।

ফলে তুর্কিদের অনেকের সমর্থন ঘুরে যায়। পশ্চিমাদের এ নগ্ন অবস্থান প্রবাসী তুর্কিদের এরদোগানের প্রতি সহানুভূতিশীল করে তোলে। আর এ যে স্বল্প ব্যবধানে জয় তাতে কিন্তু প্রবাসী তুর্কিরাই নিয়ামকের ভূমিকা পালন করল।
এরদোগান তুরস্কের ইতিহাসে অন্যতম জনপ্রিয় শাসক। গত ১৫ বছর ধরে পর্যায়ক্রমে তুর্কিদের মধ্যে বাড়তে থাকা তার জনপ্রিয়তা থেকে আমাদের এটা বুঝতে অসুবিধা হয় না, মুখের কথা না, টেকশই উন্নয়নই ছিল তার জনপ্রিয়তার মূল কারণ।

মুখের কথায় খুব বেশিদিন চিড়া ভিজে না, ধর্মের বাণীতেও না। মানুষ খেতে, পরতে পারতে চায়, শান্তি চায়। এরদোগান তুর্কিদের সে চাওয়াটা পূরণ করতে সক্ষম হয়েছেন স্বীকার করলেই কেবল অন্যান্য বিষয়ে তর্ক হতে পারে।

আসলে তুরস্ক নামক দেশটি আমূল বদলে গিয়েছে তার হাত ধরে। অর্থনৈতিক উন্নয়নে নেওয়া তার পদক্ষেপগুলো তুরস্কের মাটিতে পা দেওয়া যে কারো চোখে পড়বে। ফলে নানা মতপার্থক্য সত্ত্বেও তুর্কিরা তার উপর আস্থা রেখেছে।

এর প্রতিদানও সে দিয়েছে তুর্কিদের ভাগ্যের উন্নয়নে বহুমুখী পদক্ষেপ নিয়ে। তুর্কিরা গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও এরদোয়ানের দলকে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা দিয়েছিল। তবু এ গণভোট নিয়ে এরদোগান বা তার দলের মধ্যে এক ধরনের আশংকা কাজ করছিল। আর এ আশংকা থেকেই তারা জোট বাঁধে বর্তমানে দেশটির সংসদে চতুর্থ বিরোধী দল এমএইচপির সাথে।

আসলে তুর্কিদের অনেকেই যারা জাতীয় নির্বাচনে এরদোগানকে ভোট দিয়েছিল তারাই যে সংবিধান পরিবর্তনের বেলা এরদোগানকে না বলবেন এমন একটি ধারণা নিয়েই মাঠে নেমেছিল এরদোগান শিবির। ফলে তারা নানারকম প্রস্তুতি নেয় এই গণভোটকে কেন্দ্র কের এবং শেষ পর্যন্ত সফলও হয়।

তবে এই নির্বাচনের মধ্য দিয়ে এরদোগান বা তার দল এ বার্তা পেল যে, তুর্কিরা তাদের ভোট দিয়ে সংসদে পাঠাতে আগ্রহী হলেও এভাবে সংবিধানে হাত চালিয়ে ক্ষমতা পরিবর্তনটা মোটেও এনজয় করছেন না। এখন দেখার পালা এরদোগান তুর্কিদের এ বার্তাটা কতটুকু পড়েন এবং স্বেচ্ছায় ক্ষমতার লাগাম টেনে ধরেন।

পশ্চিমা গণমাধ্যমগুলো খুঁচা দিতে গিয়ে এরদোগানকে সুলতান বলে ডাকে। তাকে একনায়ক বা স্বৈরতান্ত্রিক বলে চালিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে। কিন্তু গণতন্ত্রের নামে দেশে দেশে অশান্তি ফেরি করে বেড়ানো এই সাদা চামড়াধারীরা এটা ভুলে যায়, টানা ১৫ বছর ক্ষমতায় থাকার পরও এরদোগান এমন একজন নেতা যে একটি পরিবর্তনের জন্য জনরায়ের উপর নির্ভর করে।

এই চ্যালেঞ্জটা নিতে সাহস দেখায়, আবার জয়ীও হয়। এরদোয়ানের এই সাহসকে সম্মান জানাতে না পারলে পশ্চিমাদের কপালে দুর্ভোগ আছে। একরোখা এই সুলতানের চপেটাঘাতে ওদের দাঁতের ডাক্তারের কাছে ছুটে যেতে দেখলে অবাক হব না অদূর ভবিষ্যতে।

পশ্চিমাদের হাতে রেখে বা বাম হাত দেখিয়ে এরদোয়ানের ‘নতুন তুর্কি’ ঘোড়ার যে যাত্রা শুরু হলো তা সহজে থামবে বলে মনে হয় না। তবে এখানে একটা বড় আশংকা থেকে যায় যদি এরদোগান ও তার দল ক্ষত-বিক্ষত এ সমাজে মলম লাগানোর উদ্যোগ না নেন বা বেমালুম ভুলে যান ৪৯ শতাংশ মানুষের কথা।

যদি এমনটা চলতে থাকে, তাহলে কে জানে হয়তো এই গভীর ক্ষতই তার ক্ষমতার মসনদ আচমকা ক্ষত-বিক্ষত করে দিয়ে অবসান ঘটাবে একটি যুগের।

লেখক: তুরস্কে সাংবাদিকতায় মাস্টার্সে অধ্যয়নরত বাংলাদেশী শিক্ষার্থী।
 


আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by