ডিজিটাল বাজারে সবচেয়ে ভোগান্তিতে ভোক্তারা

  মহিউদ্দীন আহমেদ ১৪ মার্চ ২০১৮, ১৬:৪৮ | অনলাইন সংস্করণ

ডিজিটাল বাজারে সবচেয়ে ভোগান্তিতে ভোক্তারা

আগামীকাল বৃহস্পতিবার বিশ্ব ভোক্তা অধিকার দিবস পালিত হতে যাচ্ছে। এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় ‘‘ডিজিটাল বাজার ব্যবস্থায় অধিকতর স্বচছতা ও ন্যয্যতা নিশ্চিত করণ”।

ভোক্তা অধিকার একটি মৌলিক অধিকার। যা কিনা সংবিধানের অনুচ্ছেদ ২৬ থেকে ৪৭(ক) এ নিশ্চিত করা আছে।

বর্তমান সরকার ২০০৯ সালে ভোক্তা অধিকার আইন পাশ করে। যেখানে খাদ্য, চিকিৎসা, পণ্য, ঔষধ ও সেবা খাতের ভোক্তা নিশ্চিত করা হয়েছে।

টেলিযোগাযোগ ও ডিজিটাল খাতের গ্রাহকদের সেবা খাতে অন্তর্ভূক্ত করা হলেও এ খাতে ভোক্তা অধিকার নিশ্চিত করার জন্য আইনটি ডিজিটাল বান্ধব না হওয়ায় এ খাতের ভোক্তরা বর্তমানে সবচাইতে ভোগান্তি ও প্রতারণার শিকার হচ্ছে।

বর্তমান বিশ্ব যখন প্রযুক্তি বান্ধব তখন সরকারও ২০০৮ সালে ভিশন-২০২১ ঘোষণা করে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে কাজ শরু করে।

টেলিকম খাতে গ্রাহক প্রায় ১৪ কোটি ৫০ লাখ, ইন্টারনেট ব্যবহারকারী প্রায় ৮ কোটি ৩৮ লাখ,মোবাইল ব্যাংকিং এর গ্রাহক প্রায় ৬ কোটি।

ই-কমার্সের ব্যবসা প্রায় ৭শত কোটি, ই-টিকেটিং, ই-বিলিং, ই-স্বাস্থ্য, ই-কৃষি, ই-বুক, ই-পেপার, ই-সার্ভিস, অনলাইন ব্যাংকি, পরিবহনে উবার, পাঠাওসহ প্রযুক্তি খাতে অসংখ্য এ্যাপস চালু আছে।

যার মাধ্যমে দেশের জনগণ ডিজিটাল সেবা পাচ্ছে। আর এসবই হচ্ছে গুগল সার্চ ইঞ্জিন, সোস্যাল মিডিয়া, ই-মেইলও বিভিন্ন ওয়েবসাইট থেকে।

বর্তমান বিশ্বের প্রায় ৫০ ভাগ জনগণই প্রযুক্তির সেবা নিচ্ছে। ১৯৯৫ সালেও এ খাতে ভোক্তা ছিল একভাগ। বর্তমানে জীবন জীবিকার সবকিছুই ডিজিটাল নির্ভর হয়ে পড়েছে।

সেই সাথে পাল্লা দিয়ে চলেছে এ খাতে প্রতারণা। বাংলাদেশ ব্যাংকের ৮০০ কোটি টাকা রিজার্ভ চুরি, সাইবারক্রাইম, পর্নগ্রাফি, পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস, মোবাইল ব্যাংকিং এর প্রতারণা, হ্যাকিং, ই-কমার্সের পণ্য ক্রয় বিক্রয়ের ক্ষেত্রে প্রতারণা, টেলিকম খাতে উচ্চমূল্যের ইন্টারনেট ও কলরেট, কলড্রপ, সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে ধর্মীয় অপপ্রচারের নামে দাঙ্গা হামলাসহ বিভিন্ন নৈরাজ্য চলছে।

জি-২০ সামিট ২০১৭ তে জার্মান প্রেসিডেন্ট নিজেই এ খাতের ভোক্তা স্বার্থ নিশ্চিত করার ব্যাপারে গুরুত্ব আরোপ করেছেন। তারই ধারাবাহিকতায় এবারের ভোক্তা অধিকার দিবসের প্রতিপাদ্য। ই-কমার্সের বাজারসহ ডিজিটাল বাজার নিয়ন্ত্রণের জন্য আজ অবধি কোন ধরণের নীতিমালা তৈরী করা হয় নাই।

যদি দ্রুত এ খাতের ভোক্তাদের স্বার্থ রক্ষা করার জন্য আইন ও নীতিমালা তৈরিসহ নিয়ন্ত্রণ কমিশনকে গতিশীল না করা হবে ততদিন এ খাতের গ্রাহকরা প্রতারিচত হতে থাকবে।

মহিউদ্দীন আহমেদ, সভাপতি, বাংলাদেশ মুঠোফোন গ্রাহক অ্যাসোসিয়েশন।

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter