সোনার বাংলা গড়তে নতুন প্রজন্মকে সুশিক্ষা দিতে হবে

  রহমান মৃধা ২৩ মে ২০১৮, ১৯:৩১ | অনলাইন সংস্করণ

সোনার বাংলা গড়তে নতুন প্রজন্মকে সুশিক্ষা দিতে হবে
রহমান মৃধা

The Miguel Hernández University of Elche is offering prestigious education, excellent research, and quality services facilitating the comprehensive development of its students and their insertion into the labor market. It is located in the province of Alicante. The University of Elche welcomes students from diverse backgrounds, experiences and cultures in a campus.

এখানে ছেলে-মেয়ের টেনিস প্রশিক্ষণ চলছে। আমি সঙ্গে এসেছি। আমার ভাবনা থেকে কিছু কথা যা হয়তবা হতে পারে কারও প্রিয় বা কারও অপ্রিয়। কেন যেন মনে পড়ে গেল “দ্বিজেন্দ্রলাল রায়ের নন্দলাল কবিতার কিছু কথা- “নন্দের ভাই কলেরায় মরে, দেখিবে তারে কেবা! সকলে বলিল, 'যাও না নন্দ, করো না ভায়ের সেবা' নন্দ বলিল, ভায়ের জন্য জীবনটা যদি দিই- না হয় দিলাম, -কিন্তু অভাগা দেশের হইবে কি?”

আমরা দেশ ও জাতিকে হতাশ করতে যা করার তাই করছি? নাকি সোনার বাংলা গড়তে সুশিক্ষায় ঝাঁপিয়ে পড়ছি? ফিরে যায় ১৯৫২ সালে এবং শুরু করি ভাষা আন্দোলন দিয়ে, কারা ঝাপিয়ে পড়েছিলেন ভাষা আন্দোলনে? সালাম, বরকত, রফিক, শফিক আরো কত অজানা নাম, এঁরা সবাই গ্রামের ছেলে।

দেশ স্বাধীন করার জন্য কারা ঝাপিয়ে পড়েছিলেন? কারা জীবন দিয়েছিলেন? জাতীর পিতা শেখ মুজিব থেকে শুরু করে যাঁদের নাম আসবে তাঁরা সবাই গ্রামের ছেলে। বাংলাদেশের ৯০% লোক, আমরা গ্রামের ছেলে-মেয়েরা সব সময় ঝাপিয়ে পড়ি দেশের স্বার্থে, দেশ গড়ার স্বার্থে, দেশকে বহিঃশত্রুর থেকে রক্ষা করার স্বার্থে। অথচ গণতন্ত্রের স্বার্থে আমরা তেমন কিছু করতে পারছি আন। কিন্ত কেন? গণতন্ত্র মানে বাক স্বাধীনতা, পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ, বিশ্বাস, সৃজনশীল নাগরিক হিসাবে নিরাপদে ও গর্বের সাথে দায়িত্ব-কর্তব্য পালন করা। মতামতের ভিন্নতা এবং খোলামেলা আলোচনার মাধ্যমে যখন ঐক্যের সমন্বয় ঘটে ঠিক তখন জাতি স্বাধীনতার সুফল লাভ করে।

রাজনীতিবিদ বা সমাজের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তারা যখন ভয়ংকর রুপ ধারন করে তখন সেখানে গণতন্ত্র জাতির জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়ায়। বিধায় অপ্রিয় সত্য কথা বা সামাজিক আলোচনার বিষয়সূচি থেকে বঞ্চিত হয় জাতি। সামাজিক যোগাযোগ ব্যবস্থা থেকে শুরু করে ব্যক্তিস্বত্তা ও সুসম্পর্ক যেমন নষ্ট হয়। তেমন হারাতে বসে মনুষ্যত্ব, বিলীন হয় গণতন্ত্র।

আর ঠিক তখনই সৃষ্টি হয় দেশে অরাজকতার। স্বাধীনতা অর্জনের ৪৬ বছর পরেও গণতন্ত্রের সর্বোত্তম চর্চা আমাদের সমাজে এখনো হয়নি! আমার এই বিশ্বভ্রমনে দেখছি হাজারো মেহনতি ভাইয়েরা যারা এসেছে বাংলাদেশের গ্রাম থেকে পৃথিবীর অন্য দেশে, তারা কঠিন কাজ করছে।

সাথে ভাল যা দেখছে বা শিখছে তা কীভাবে দেশে করা যায় তা স্বপ্নের জালে বেঁধে মনের মাঝে ধরে রেখেছে। এছাড়া তা তারা বাংলাদেশে নিয়ে এসেছে এবং উৎপাদন করছে নতুন নানা ধরনের ফল, মূল থেকে শুরু করে খাদ্য সামগ্রী, তারাও সংগ্রামী মুক্তিযোদ্ধা, যুদ্ধ করে চলছে তারা।

দেশকে বহিশত্রুর থেকে মুক্ত করলেই তো দেশ মুক্ত হলো না? দেশকে খাদ্যের অভাবমুক্ত, অন্ন-বস্ত্রের অভাবমুক্ত, কুশিক্ষা মুক্ত, পরাধীন চেতনা মুক্ত, দুর্নীতি মুক্ত করতে হবে। সোনার বাংলা গড়তে হলে যারা বর্তমানে নানা দায়িত্বে আছেন তাঁদেরকে সক্রিয়ভাবে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে হবে।

যাদের বাংলাদেশে অনেক ক্ষমতা রয়েছে তারা ইচ্ছে করলে একটু হাত বাড়াতে পারে এবং পারে এসব কঠিন কাজকে সহজ করে দিতে কিন্তু তারা তা করছে না। তাই এই যুদ্ধে জয়ী হতে হলে আমাদের যার যা আছে তাই নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে। যারা আমাদের দেশ গড়ার কাজে আমাদের সাথে অতিতে ছিল না, থাকেনি তাদেরকে আমরা রাজাকার বলেছি।

কিন্তু যাদের সঙ্গে আমাদের মতের ভিন্নতা রয়েছে বা যারা অন্য ধর্মে বিশ্বাসী, তাদের ব্যক্তি ও মতের স্বাধীনতার প্রতি আমাদের শ্রদ্ধা থাকতে হবে বা তাদের বিশ্বাসের উপর হস্তক্ষেপ করতে আমরা পারি না, তাতে মানব জাতীর অকল্যাণ হবে এবং মনুষত্বের অবনতি ঘটবে। “We can and we will always agree to disagree”. এখানে একটি বিষয়ে বিশেষভাবে গুরুত্ব দিতে চাই তা হল ধর্মশিক্ষা পদ্ধতি। যা আমাদের সমাজকে ঠেলে দিচ্ছে দিনের পর দিন অন্ধকারের দিকে। এর কারণ ধর্মকে শিক্ষা দেওয়া হচ্ছে পৃথক পৃথক ভাবে যার কারণে পুরো সমাজ হচ্ছে বিভক্ত এবং একে অন্যের ধর্ম সম্পর্কে না জানার কারণে বাড়ছে ঘৃণা, লোপ পাচ্ছে মনুষত্বের।

এ থেকে রেহাই পেতে হলে আমাদের শিখতে হবে, জানতে হবে স্কুল লেভেলে, আলোচনা করতে হবে এমনভাবে যাতে মানুষে মানুষে ধর্ম বা অন্য কোন পার্থক্যের কারণে বিভেদ ও ঘৃণা না ছড়ায় এবং একই সঙ্গে যেন ধর্ম বিবর্জিত শিক্ষা ব্যবস্থায় ব্যক্তি -পরিবার ও সমাজে কল্যাণের স্থলে অকল্যাণ না হয় তার দিকে খেয়াল রাখতে হব।

only than we can understand each other with mutual respect love and tolerance. আমাদের পরিচয় হতে হবে একটি তা হচ্ছে আমরা বাংলাদেশি। শিক্ষাঙ্গনের পরিবর্তনের সাথে পরিবর্তন আনতে হবে যারা রয়েছে কর্মরত নানা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে।

আমি মনে করি যারা ক্ষমতায় থেকেও তার সদব্যবহার করছে না, যারা অন্যকে বিনা অপরাধে অপরাধী করছে, যারা অসৎ পথে অর্থ সঞ্চয় করছে, যারা দুর্নীতি করছে, তাদেরকেও আমরা রাজাকার বলতে পারি। কারণ তারাই হচ্ছে প্রকৃত পক্ষে দেশের শত্রু এবং এদের বিরুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়তে হবে যেমনটি পড়েছিলাম অতীতে।

কিন্তু এখানে একটু সমস্যা আছে তা হল আগের শত্রু তারা ছিল বহিশত্রু আর এরা হচ্ছে আমার আমাদের নিজের লোক, কেউ আমার বাবা, কেউ আমার মামা, কেউ আমার চাচা, কেউ আমার বন্ধু, কেউ আমার বন্ধুর বন্ধু, তাই এদের বিরুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়া বড় কঠিন!

এই জন্য দরকার সুশিক্ষা। “সুশিক্ষা should always create some well value, well value can or should be the part of moral value for mankind and nature”. এ বিষয়ে শিখতে হবে, জানতে হবে। আর সেই শেখা এবং জানার জন্য প্রয়োজন ভালো কারিগরের এবং তা পেতে হলে দরকার বিশেষায়িত শিক্ষক প্রশিক্ষণ বিশ্ববিদ্যালয়ের।

একজন সুশিক্ষিত কারিগর, আদর্শ বাব-মা, রাজনীতিবিদ বা সমাজের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তারা দেখাবে আমাদের নতুন প্রজন্মকে। সেই পথ যে পথে যুগে যুগে চলেছেন সব ভাল মানুষেরা। যারা শুধু দিয়েছেন সৎ কাজের আদেশ ও অসৎ কাজ থেকে বিরত থাকার নিষেধ।

এই মহান গুরুদায়িত্ব পালন যা মানব জাতীর কল্যাণ ও ভালবাসা বয়ে এনেছে যুগে যুগে। তাঁদেরকে আমাদের স্মরণ এবং বরন করতে হবে। ভাবতে হবে মানুষের কথা, ফিরিয়ে আনতে হবে মনুষত্বকে। এমন প্রতিজ্ঞায় প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হতে হবে আমাদের। তবেই হবে সোনার বাংলা এবং আমরা হব সোনার বাংলার আদর্শ মানুষ।

কবিগুরুর কথায়, “কেহ জানিবে না মোর গভীর প্রণয়, কেহ দেখাবে না মোর অশ্রুবারিচয়। আপনি আজিকে যবে শুধাইছ আসি, কেমনে প্রকাশি কব কত ভালোবাসি।”

রহমান মৃধা, পরিচালক ও পরামর্শক স্পেন থেকে, [email protected]

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter