সম্পাদকদের সঙ্গে ঐক্যফ্রন্টের বৈঠকে যা আলোচনা হলো

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৬ নভেম্বর ২০১৮, ১৯:০০ | অনলাইন সংস্করণ

সম্পাদকদের সঙ্গে ঐক্যফ্রন্টের বৈঠকে যা আলোচনা হলো
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে পত্রিকার সম্পাদকদের সঙ্গে মতবিনিময় করে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। ছবি: যুগান্তর

দেশের শীর্ষস্থানীয় পত্রিকার সম্পাদকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেছে ড. কামালের নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৩টায় গুলশানের হোটেল লেকশোরে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকে সম্পাদকরা বিভিন্ন মতামত দিয়েছেন। ঐক্যফ্রন্টের নেতারা অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য সম্পাদকদের কাছে সব ধরনের সহযোগিতা চেয়েছেন।

এ বিষয়ে ঐক্যফ্রন্টের মুখপত্র ও বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য যেসব সহযোগিতা দরকার তার সবই সম্পাদকদের কাছে চাওয়া হয়েছে।

তিনি জানান, অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে নির্বাচনকালীন সরকারের কর্মকাণ্ডের দিকে সজাগ দৃষ্টি রাখতে এবং সহযোগিতা করতে সংবাদপত্রের সম্পাদকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেন।

মতবিনিময় শেষে ড. কামাল হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, প্রায় তিন ঘন্টা সম্পাদকদের সঙ্গে আমরা মতবিনিময় করেছি। তারা বিভিন্ন ব্যাপারে মতামত দিয়েছেন। আমাদেরও দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন যে, যদি অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচন নিশ্চিত করতে হয় আমাদের কাছ থেকে তারা কী আশা করেন। এই মতবিনিময় আমাদের জন্য খুবই মূল্যবান মনে করি। সরকারের যেসব জিনিস আমরা চিহ্নিত করেছি আশা করবো সে ব্যাপারে সংবাদ মাধ্যম সজাগ দৃষ্টি রাখবে।

ড. কামাল বলেন, সম্পাদকদের সঙ্গে আমাদের আলোচনার উদ্দেশ্য ছিলো অতীতের অভিজ্ঞতার আলোকে কী কী জিনিস তারা অতীতে দেখেছেন। তারা মনে করেন এবার সেগুলো থেকে আমাদেরকে বিরত থাকতে হবে। একই সঙ্গে সক্রিয়ভাবে সবাইকে চেষ্টা করতে হবে যেন জনগণ সত্যিকার অর্থে নির্ভয়ে স্বাধীনভাবে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারে। যেন সত্যিকার অর্থে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হয়।

তিনি বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচন করতে সরকারের যেমন কর্তব্য আছে, আমরা যারা বিরোধী দল নির্বাচন করতে যাচ্ছি তাদেরও কর্তব্য আছে।

আপনারা কী ধরনের সহযোগিতা চেয়েছেন এমন প্রশ্নের জবাবে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য আমরা সব ধরনের সহযোগিতা চেয়েছি।’

মতবিনিময় সভা শেষ হওয়ার আগেই বেরিয়ে এসে আমাদের নতুন সময়ের সম্পাদক নাইমুল ইসলাম খান সাংবাদিকদের বলেন, আমি তাদের জিজ্ঞাসা করেছি সাম্প্রতিক সময়ে ঐক্যফ্রন্টের জনসভাগুলোতে কোরআন তেলাওয়াত, বাইবেল, গীতা ও ত্রিপিটক পাঠের মাধ্যমে শুরু হয়েছে। সেখানে বঙ্গবন্ধু, বাংলাদেশের স্বাধীনতা এবং মুক্তিযুদ্ধের বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। এগুলো তাদের ঐক্যবদ্ধ চিন্তার ফল কিনা? এ বিষয়গুলো নিয়ে তাদের ঐক্যবদ্ধ অবস্থান নির্বাচনের আগে আমাদের সামনে তুলে ধরবেন কিনা। আমি জানতে চেয়েছি নির্বাচনের পর বাংলাদেশের স্বাধীনতা সুবর্ণ জয়ন্তী ও বঙ্গবন্ধুর শততম জন্মবার্ষিকীর উৎসব রয়েছে। তারা জয়ী বা পরাজিত হলে কিভাবে পালন করবেন। এসব প্রশ্নের নোট তারা নিয়েছেন, পরে উত্তর দেবেন।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের প্রধান সম্পাদক তৌফিক ইমরোজ খালিদী সাংবাদিকদের বলেন, আমি মতবিনিময় সভায় একটি প্রশ্ন করেছি, ঐক্যফ্রন্ট যদি জয়লাভ করে তাহলে প্রধানমন্ত্রী কে হবেন? সেই প্রশ্নের উত্তর আমি পাইনি। আমার মনে হয় এই ফ্রন্ট তথা সবাই যারা নির্বাচন করছে তাদের বলতে হবে সম্ভাব্য ক্ষেত্রে তারা যদি বিজয়ী হন কে প্রধানমন্ত্রী হবেন। সেটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সংসদীয় নির্বাচনের ক্ষেত্রে, সংসদীয় গণতন্ত্রের ক্ষেত্রে। যেমন আমরা বৃটিশ পার্লামেন্টারি সিষ্টেম অনুসরণ করার চেষ্টা করি, ভারতে হোক, বৃটেনের হোক বা অন্যান্য গণতান্ত্রিক দেশে সবাই কিন্তু আগে থেকে জেনে যান যে, এই দল বা এই জোট বিজয়ী হলে প্রধানমন্ত্রী কে হবে। সেই বিষয়টা কিন্তু এই ফ্রন্টকে পরিষ্কার করতে হবে। সেটা তারা এখনো পরিষ্কার করেননি।

বৈঠক শেষে সাপ্তাহিক পত্রিকার সম্পাদক গোলাম মর্তুজা বলেন, শেষ পর্যন্ত ঐক্যফ্রন্ট যেন নির্বাচন থেকে সরে না আসে সম্পাদকদের পক্ষ থেকে এই আহ্বান জানানো হয়েছে। একই সঙ্গে গণমাধ্যম প্রকৃত চিত্র তুলে ধরবে বলে সম্পাদকরা আশ্বস্ত করেছেন নেতাদের।

মতবিনিময়ে উপস্থিত ছিলেন নিউজ টুডের সম্পাদক রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ, প্রথম আলো সম্পাদক মতিউর রহমান, হলিডে সম্পাদক সৈয়দ কামালউদ্দিন, মানবজমিনের প্রধান সম্পাদক মতিউর রহমান চৌধুরী, নিউএজ সম্পাদক নুরুল কবীর, আমাদের নতুন সময়ের সম্পাদক নাইমুল ইসলাম খান, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের প্রধান তৌফিক ইমরোজ খালিদী, ঢাকা ট্রিবিউনের সম্পাদক জাফর সোবহান, দিনকাল সম্পাদক রেজোয়ান সিদ্দিকী।

এছাড়া এ মতবিনিময়ে অংশ নেন যুগান্তরের চিফ রিপোর্টার মাসুদ করীম, বাংলাদেশ প্রতিদিনের আবু তাহের, বাংলাদেশের খবরের সৈয়দ মেজবাহ উদ্দিন, ইনকিলাবের মুন্সি আবদুল মান্নান, নিউজ টুডের মোসলেম উদ্দিন আহমেদ, ডেইলি স্টারের সাখাওয়াত হোসেন লিটন, সমকালের লোটন একরাম, সাপ্তাহিকের গোলাম মোর্তজাসহ বিভিন্ন সংবাদপত্রের সিনিয়র সাংবাদিকরা।

ভয়েস অব আমেরিকার আমীর খসরু, রয়টার্সের সিরাজুল ইসলাম কাদির, এএফপির শফিকুল আলমও উপস্থিত ছিলেন মতবিনিময় অনুষ্ঠানে।

সভায় বিভিন্ন বিষয়ে সাংবাদিকদের মতামত শোনেন ও বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেন।

জোটের নেতাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, জেএসডির আ স ম আবদুর রব, তানিয়া রব, গণফোরামের মোস্তফা মহসিন মনটু, সুব্রত চৌধুরী, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার সুলতান মো. মনসুর আহমেদ।

এছাড়া গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপন, শামা ওবায়েদসহ ঐক্যফ্রন্টের শরিক নেতারাও ছিলেন।

গত ১৩ অক্টোবর জোট গঠনের পর গণমাধ্যমের সম্পাদকদের সঙ্গে এই প্রথম বসল জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।

এর আগে গত ১৮ অক্টোবর কূটনীতিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।

ঘটনাপ্রবাহ : বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×