বোনের নির্বাচনী প্রচারে যা বললেন সোহেল তাজ
jugantor
বোনের নির্বাচনী প্রচারে যা বললেন সোহেল তাজ

  যুগান্তর রিপোর্ট  

১০ ডিসেম্বর ২০১৮, ১১:৩৯:০১  |  অনলাইন সংস্করণ

বোনের নির্বাচনী প্রচারে যা বললেন সোহেল তাজ

বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ জাতীয় চার নেতার একজন। একটি সমৃদ্ধ সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন দেখে বঙ্গবন্ধুর ছায়াসঙ্গী ছিলেন।দেশের জন্য রাজনীতি করতে গিয়ে জীবন দিয়েছেন।

তার সহধর্মিনী জোহরা তাজউদ্দীন আওয়ামী লীগের দু:সময়ে দলের হাল ধরেন।দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন।আমৃত্যু দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য ছিলেন।

তাদের একমাত্র ছেলে তানজীম আহমদ সোহেল তাজ তাজউদ্দীন আহমদের বাড়ি গাজীপুরের কাপাসিয়া থেকে দু’বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। বাবার আদর্শ বুকে ধরে সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে রাজনীতি করছিলেন।

২০০৮ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী করেন।দৃঢ়তার সঙ্গে সেই দায়িত্ব পালন করছিলেন।হঠাৎ একদিন পদত্যাগপত্র জমা দিয়ে চলে যান যুক্তরাষ্ট্রে, যেখানে তার পরিবার থাকে।

আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতৃত্ব তার পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেনি। পরে সংসদ সদস্যপদ থেকেও পদত্যাগ করেন।পদত্যাগের কারণ আজও স্পষ্ট করেননি তাজউদ্দীনপুত্র। এর পরের সময়টা চলে মান অভিমানে।

পদত্যাগের সময় সোহেল তাজ বলেছিলেন আর রাজনীতিতে ফিরবেন না। সেই সিদ্ধান্তে এখনও অনঢ় তিনি।

রাজনীতি থেকে সোহেল তাজ দূরে থাকলেও তার পরিবারের এর সঙ্গে যুক্ত। তার ছেড়ে দেয়া আসনে আওয়ামী লীগের টিকিটে টানা দু’বার এমপি হয়েছেন তার বড় বোন সিমিন হোসেন রিমি।

এবারও তিনি মহাজোটের প্রার্থী।তাই বোনের পক্ষে নির্বাচনী প্রচারে দেশে এসেছেন সোহেল তাজ। অনানুষ্ঠানিক প্রচারেও অংশ নিচ্ছেন।

গতকাল রোববার কাপাসিয়ায় এক উঠোন বৈঠকে অংশ নেন।সেখানে সোহেল তাজ বাংলাদেশে স্বাধীনতার চেতনা ও সোনার বাংলার স্বপ্ন বাঁচিয়ে রাখতে নৌকায় ভোট চান।

তিনি বলেন, আগে যে অশান্তি, হানাহানি ও অর্থনৈতিক প্রবল বিপর্যস্ত অবস্থা ছিল, তা কাটিয়ে গত ১০ বছর দেশে শান্তি ও স্থিতি বিরাজ করছে। এটি সম্ভব হয়েছে স্বাধীনতা সংগ্রামে নেতৃত্বদানকারী দল আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার কারণে। তাই উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে শুধু নয়, স্বাধীনতার চেতনা ঠিক রাখতে ফের নৌকায় ভোট চাই।

এ সময় সোহেল তাজ বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা এগিয়ে যাচ্ছে। তাজউদ্দীন পরিবারের পক্ষ থেকে আমাদের মেজো বোন সিমিন হোসেন রিমিকে সবাই সমর্থন করছি সেই অগ্রযাত্রাকে ধরে রাখার জন্য।

তিনি বলেন, আমি আশা করি আগামী সংসদ নির্বাচনে কাপাসিয়াবাসী বিপুল ভোটে রিমিকে জয়যুক্ত করবেন। যাতে উন্নয়নের ধারাই শুধু নয়, স্বাধীনতার চেতনা এবং সোনার বাংলা স্বপ্নটা যেন বেঁচে থাকে।

বাংলাদেশের রাজনীতিতে তার পরিবারের অবদানের কথা সরণ করিয়ে দিয়ে সোহেল তাজ বলেন, আমাদের পরিবার বাংলাদেশের জন্য সারাজীবন কাজ করে গেছে। আমার বাবা স্বাধীনতা যুদ্ধে নেতৃত্ব দিয়েছেন। আমার মা সৈয়দা জোহরা তাজউদ্দীন দুঃসময়ে আওয়ামী লীগকে পুনরুজ্জীবিত করে নেতৃত্ব দিয়েছেন গণতন্ত্রের পক্ষে।

তিনি বলেন, আমাদের পরিবার সব সময় গণতন্ত্রের পক্ষে এবং বাংলাদেশের অগ্রযাত্রার পক্ষে। সে জন্য আমরা অবশ্যই থাকব। আমার বোন নির্বাচন করা মানে আমি করা।

রোববার দুপুরে গাজীপুরের কাপাসিয়ায় আওয়ামী লীগ নেতা মরহুম খালেদ খুররমে বাসভবনে এই উঠোন বৈঠক হয়।

পরিবারের পক্ষে সোহেল তাজের বড় দুবোন শারমিন আহমেদ রিপি, মেহেজাবিন আহমেদ মিমি, সোহেল তাজের ছেলে ব্যারিস্টার তুরাজ আহমেদ তাজ, সিমিন হোসেন রিমির ছেলে রাকিব হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত ২০০৮ সালের নির্বাচনে গাজীপুর-৪ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন সোহেল তাজ। ২০০৯ সালের ৬ জানুয়ারি সোহেল তাজ স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব নিলেও ২০০৯ সালের ৩১ মে মন্ত্রিসভা থেকে আচমকা পদত্যাগ করেন। চলে যান সুদূর যুক্তরাষ্ট্রে।

২০১২ সালের ৭ জুলাই সংসদ সদস্য পদ থেকেও পদত্যাগ করেন। মাঝেমধ্যে সামাজিক কর্মকাণ্ডে উপস্থিত থাকলেও রাজনীতিতে যুক্ত হবেন না বলে তখন সাফ জানিয়ে দেন সাবেক এ স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী।

সোহেল তাজ ফের আলোচনায় আসেন আওয়ামী লীগের সর্বশেষ জাতীয় কাউন্সিলে। তখন রাজনীতির অন্দরমহলে আলোচনা শুরু হয় যে, সোহেল তাজ রাজনীতিতে সক্রিয় হবেন। ওই সময় তিনি দলীয় সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেন।

দলের গুরুত্বপূর্ণ পদে সোহেল তাজকে আনা হচ্ছে-এমন গুঞ্জনও শুরু হয়। তবে শেষ পর্যন্ত আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে তাকে রাখা হয়নি।

ব্যক্তিগতজীবনে সোহেল তাজের এক ছেলে ও দুই মেয়ে রয়েছে। বড় ছেলে তুরাজ আহমদ তাজ লন্ডনের একটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ব্যারিস্টারি পাস করেছেন। সোহেল তাজ পরিবার নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের মেরিল্যান্ডে থাকেন।

বোনের নির্বাচনী প্রচারে যা বললেন সোহেল তাজ

 যুগান্তর রিপোর্ট 
১০ ডিসেম্বর ২০১৮, ১১:৩৯ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
বোনের নির্বাচনী প্রচারে যা বললেন সোহেল তাজ
সিমিন হোসেন রিমির প্রচারে সোহেল তাজ

বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ জাতীয় চার নেতার একজন। একটি সমৃদ্ধ সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন দেখে বঙ্গবন্ধুর ছায়াসঙ্গী ছিলেন।দেশের জন্য রাজনীতি করতে গিয়ে জীবন দিয়েছেন।

 

তার সহধর্মিনী জোহরা তাজউদ্দীন আওয়ামী লীগের দু:সময়ে দলের হাল ধরেন।দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন।আমৃত্যু দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য ছিলেন।

 

তাদের একমাত্র ছেলে তানজীম আহমদ সোহেল তাজ তাজউদ্দীন আহমদের বাড়ি গাজীপুরের কাপাসিয়া থেকে দু’বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। বাবার আদর্শ বুকে ধরে সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে রাজনীতি করছিলেন।

 

২০০৮ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী করেন।দৃঢ়তার সঙ্গে সেই দায়িত্ব পালন করছিলেন।হঠাৎ একদিন পদত্যাগপত্র জমা দিয়ে চলে যান যুক্তরাষ্ট্রে, যেখানে তার পরিবার থাকে।

 

আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতৃত্ব তার পদত্যাগপত্র গ্রহণ করেনি। পরে সংসদ সদস্যপদ থেকেও পদত্যাগ করেন।পদত্যাগের কারণ আজও স্পষ্ট করেননি তাজউদ্দীনপুত্র। এর পরের সময়টা চলে মান অভিমানে।

 

পদত্যাগের সময় সোহেল তাজ বলেছিলেন আর রাজনীতিতে ফিরবেন না। সেই সিদ্ধান্তে এখনও অনঢ় তিনি।

 

রাজনীতি থেকে সোহেল তাজ দূরে থাকলেও তার পরিবারের এর সঙ্গে যুক্ত। তার ছেড়ে দেয়া আসনে আওয়ামী লীগের টিকিটে টানা দু’বার এমপি হয়েছেন তার বড় বোন সিমিন হোসেন রিমি।

 

এবারও তিনি মহাজোটের প্রার্থী।তাই বোনের পক্ষে নির্বাচনী প্রচারে দেশে এসেছেন সোহেল তাজ। অনানুষ্ঠানিক প্রচারেও অংশ নিচ্ছেন।  

 

গতকাল রোববার কাপাসিয়ায় এক উঠোন বৈঠকে অংশ নেন।সেখানে সোহেল তাজ বাংলাদেশে স্বাধীনতার চেতনা ও সোনার বাংলার স্বপ্ন বাঁচিয়ে রাখতে নৌকায় ভোট চান।

 

তিনি বলেন, আগে যে অশান্তি, হানাহানি ও অর্থনৈতিক প্রবল বিপর্যস্ত অবস্থা ছিল, তা কাটিয়ে গত ১০ বছর দেশে শান্তি ও স্থিতি বিরাজ করছে। এটি সম্ভব হয়েছে স্বাধীনতা সংগ্রামে নেতৃত্বদানকারী দল আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার কারণে। তাই উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে শুধু নয়, স্বাধীনতার চেতনা ঠিক রাখতে ফের নৌকায় ভোট চাই।

 

এ সময় সোহেল তাজ বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা এগিয়ে যাচ্ছে। তাজউদ্দীন পরিবারের পক্ষ থেকে আমাদের মেজো বোন সিমিন হোসেন রিমিকে সবাই সমর্থন করছি সেই অগ্রযাত্রাকে ধরে রাখার জন্য।

 

তিনি বলেন, আমি আশা করি আগামী সংসদ নির্বাচনে কাপাসিয়াবাসী বিপুল ভোটে রিমিকে জয়যুক্ত করবেন। যাতে উন্নয়নের ধারাই শুধু নয়, স্বাধীনতার চেতনা এবং সোনার বাংলা স্বপ্নটা যেন বেঁচে থাকে।

 

বাংলাদেশের রাজনীতিতে তার পরিবারের অবদানের কথা সরণ করিয়ে দিয়ে সোহেল তাজ বলেন, আমাদের পরিবার বাংলাদেশের জন্য সারাজীবন কাজ করে গেছে। আমার বাবা স্বাধীনতা যুদ্ধে নেতৃত্ব দিয়েছেন। আমার মা সৈয়দা জোহরা তাজউদ্দীন  দুঃসময়ে আওয়ামী লীগকে পুনরুজ্জীবিত করে নেতৃত্ব দিয়েছেন গণতন্ত্রের পক্ষে।

 

তিনি বলেন, আমাদের পরিবার সব সময় গণতন্ত্রের পক্ষে এবং বাংলাদেশের অগ্রযাত্রার পক্ষে। সে জন্য আমরা অবশ্যই থাকব। আমার বোন নির্বাচন করা মানে আমি করা। 

 

রোববার দুপুরে গাজীপুরের কাপাসিয়ায় আওয়ামী লীগ নেতা মরহুম খালেদ খুররমে বাসভবনে এই উঠোন বৈঠক হয়।

 

পরিবারের পক্ষে সোহেল তাজের বড় দুবোন শারমিন আহমেদ রিপি, মেহেজাবিন আহমেদ মিমি, সোহেল তাজের ছেলে ব্যারিস্টার তুরাজ আহমেদ তাজ, সিমিন হোসেন রিমির ছেলে রাকিব হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

 

প্রসঙ্গত ২০০৮ সালের নির্বাচনে গাজীপুর-৪ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন সোহেল তাজ। ২০০৯ সালের ৬ জানুয়ারি সোহেল তাজ স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব নিলেও ২০০৯ সালের ৩১ মে মন্ত্রিসভা থেকে আচমকা পদত্যাগ করেন। চলে যান সুদূর যুক্তরাষ্ট্রে।

 

২০১২ সালের ৭ জুলাই সংসদ সদস্য পদ থেকেও পদত্যাগ করেন। মাঝেমধ্যে সামাজিক কর্মকাণ্ডে উপস্থিত থাকলেও রাজনীতিতে যুক্ত হবেন না বলে তখন সাফ জানিয়ে দেন সাবেক এ স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী।

 

সোহেল তাজ ফের আলোচনায় আসেন আওয়ামী লীগের সর্বশেষ জাতীয় কাউন্সিলে। তখন রাজনীতির অন্দরমহলে আলোচনা শুরু হয় যে, সোহেল তাজ রাজনীতিতে সক্রিয় হবেন। ওই সময় তিনি দলীয় সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেন।

 

দলের গুরুত্বপূর্ণ পদে সোহেল তাজকে আনা হচ্ছে-এমন গুঞ্জনও শুরু হয়। তবে শেষ পর্যন্ত আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে তাকে রাখা হয়নি।

 

ব্যক্তিগতজীবনে সোহেল তাজের এক ছেলে ও দুই মেয়ে রয়েছে। বড় ছেলে তুরাজ আহমদ তাজ লন্ডনের একটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ব্যারিস্টারি পাস করেছেন। সোহেল তাজ পরিবার নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের মেরিল্যান্ডে থাকেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন