রাজনীতির ইতিহাস বদলে দেয়া ৫ ঘটনা

  রকমারি ডটকম ২২ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৬:১৭ | অনলাইন সংস্করণ

দীর্ঘ ৯ মাস যুদ্ধের মধ্য দিয়ে কারও কাছে মাথা নত না করার সিদ্ধান্ত নিয়ে সে বাংলাদেশ আজও চলছে স্বাধীন রাষ্ট্র হয়ে। ছবি: যুগান্তর
দীর্ঘ ৯ মাস যুদ্ধের মধ্য দিয়ে কারও কাছে মাথা নত না করার সিদ্ধান্ত নিয়ে সে বাংলাদেশ আজও চলছে স্বাধীন রাষ্ট্র হয়ে। ছবি: যুগান্তর

ক্ষুদে ঘটনার মাধ্যমে রাজনৈতিক পালাবদল। শুরু হয় নতুন সমীকরণ। ইতিহাসের পাতায় নতুন বাঁক। রাজনৈতিক ইস্যুতে সবচেয়ে আলোচিত ও স্মরণীয় ঘটনা নিয়ে ‘রাজনীতির ইতিহাস বদলে দেয়া ৫ ঘটনা’ পাঠকের জন্য তুলে ধরা হলো।

এক. ৯/১১, টুইন টাওয়ার হামলা

সেদিনটা আর ১০টা দিনের মতোই ছিল আমেরিকার নিউইয়র্কের ম্যানহ্যাটন সিটিতে। ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের দুটো হাই রেইজড বিল্ডিং এই রাজ্যের ব্যস্ততা। হুট করেই ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের আকাশ ছোঁয়া কাঁচের জানালা দিয়ে দেখা যায় বিশালকায় একটি প্লেন ধেয়ে আসছে। নিমিষেই আকাশছোঁয়া টুইন টাওয়ার মাটিতে মিশে গেল প্লেনের আঘাতে। টুইন টাওয়ার ছাড়াও পেন্টাগনেও হামলা হয় সেসময়। রিলিজিয়াস এক্সট্রিমিস্ট গ্রুপ আল কায়েদার এই আক্রমণ পুরো বিশ্ব নাড়িয়ে দেয় যেন। বিশ্ব রাজনীতিতে এর তুমুল প্রভাব পড়ে। অভিবাসন বন্ধ, অভিবাসীদের ওপর অত্যাচার, আফগানিস্তানে তালেবান অধ্যুষিত এলাকায় আল কায়েদাকে নিশ্চিহ্ন করার চেষ্টাসহ প্রায় সবদেশেই এই হামলার প্রভাব পড়ে সেসময়।

দুই. আরব বসন্ত

২০১০ সালের শুরু থেকে আরব বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বয়ে যাওয়া গণবিপ্লবের ঝড়কে পশ্চিমা সাংবাদিকরা আরব বসন্ত হিসাবে আখ্যায়িত করেছে। গণবিক্ষোভের শুরু মিশরে; এরপর তা লিবিয়া, সিরিয়া, ইয়েমেনসহ বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে যায়। প্রথমে মিশরে প্রেসিডেন্ট হোসনি মুবারকের পতন হয়। পরে লিবিয়ায় মুয়াম্মর আল-গাদ্দাফি জামানার অবসান হয়। আরব বিশ্বের এই গনঅভ্যূত্থানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং এর ইউরোপীয় ন্যাটোভুক্ত সহচর রাষ্ট্রগুলো অস্ত্র সরবরাহ করে এবং সরাসরি আঘাত হেনে ক্ষমতাসীন রাষ্ট্রনায়কের পতন ঘটায়। এক হিসাবে বলা হয় আরব বসন্তের ফলে মাত্র পৌনে দুই বছরে লিবিয়া, সিরিয়া, মিশর, তিউনিসিয়া, বাহরাইন ও ইয়েমেনের গণ-আন্দোলনের ফলে মোট দেশজ উৎপাদনের ক্ষতি হয়েছে দুই হাজার ৫৬ কোটি ডলার।

তিন. ৪৭ এর দেশভাগ

প্রায় ১৯০ বছর ধরে ভারতীয় উপমহাদেশ শাসন ও শোষণ করার পর ব্রিটিশরা অবশেষে ভারতীয় উপমহাদেশকে স্বাধীনতা দেয়ার সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়। কিন্তু স্বাধীনতা দেয়ার সময় ধর্মের ভিত্তিতে ভিন্ন দুটি দেশ করবার হাস্যকর সিদ্ধান্ত পুরো উপমহাদেশের রাজনীতিতেই বিরূপ প্রভাব ফেলে। এক দেশের মানুষ আরেক দেশে চলে যায় কেবল ধর্ম ভিন্ন হবার কারণে। ভিটে মাটি ছেড়ে চলে যায় লাখো মানুষ, শুরু হয় সাম্প্রদায়িক হামলা। সেসব হামলা আর মনের ব্যথার রক্ত দিয়ে রেডক্লিফ টানেন ভারত ও পাকিস্তানের সীমারেখা।

চার. ৭১ এর মুক্তিযুদ্ধ

৪৭ এর দেশভাগের পর অনিবার্যভাবেই পশ্চিম ও পূর্ব পাকিস্তানে যুদ্ধ হওয়ার কথা। কারণ মাঝখানে এক বিশাল দেশ ভারত রেখে, সকল প্রশাসনিক ক্ষমতা পশ্চিম পাকিস্তানের হস্তগত করে পূর্ব পাকিস্তানকে শোষণের মাধ্যমে শাসনের চেষ্টার ফল মুক্তিযুদ্ধই ছিল। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে সেই যুদ্ধে প্রাণ দেয় ৩০ লাখ শহীদ। দীর্ঘ ৯ মাসের যুদ্ধের পর বাংলাদেশ বিজয় লাভ করে, রাজনৈতিক পটপরিবর্তনে রাষ্ট্রপতি হন বঙ্গবন্ধু। কারও কাছে আর মাথা নত না করার সিদ্ধান্ত নিয়ে সে বাংলাদেশ আজও চলছে স্বাধীন রাষ্ট্র হয়ে।

পাঁচ. আমেরিকান প্রেসিডেন্ট অ্যাসাসিনেশনস

আমেরিকান প্রেসিডেন্টদের অ্যাসাসিনেশন অ্যাটেম্পট নতুন কিছু না। আমেরিকার প্রেসিডেন্টদের বারবারই হত্যা করার প্লটিং ও চেষ্টা করা হয়। কেননা আমেরিকার প্রেসিডেন্টের হাতে পুরো বিশ্ব রাজনীতির চাবিকাঠি থাকে। এ পর্যন্ত ৪ জন প্রেসিডেন্টকে হত্যা করা হয়েছে আর হত্যা চেষ্টা করা হয়েছে প্রায় সব আমেরিকার প্রেসিডেন্টকেই। আব্রাহাম লিঙ্কন, জেমস গারফিল্ড, উইলিয়াম ম্যাকেনলি ও জন এফ কেনেডিকে হত্যাচেষ্টা করে সফল হয়েছে হত্যাকারীরা। প্রতিবারই রাজনৈতিক পট পরিবর্তনে সেসব হত্যাকাণ্ড বড় ভূমিকা পালন করেছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×